কোনও অভিনেত্রীই ১০০ শতাংশ সফল নন, বহুবার ফেল করেন: পরিণীতি চোপড়া

কোনও অভিনেত্রীই ১০০ শতাংশ সফল নন, বহুবার ফেল করেন: পরিণীতি চোপড়া

এই বার বার মুখ থুবড়ে পড়ার অভিজ্ঞতাই তাঁকে বা তাঁদের চূড়ান্ত সাফল্য এনে দিয়েছে: পরিণীতি চোপড়া

এই বার বার মুখ থুবড়ে পড়ার অভিজ্ঞতাই তাঁকে বা তাঁদের চূড়ান্ত সাফল্য এনে দিয়েছে: পরিণীতি চোপড়া

  • Share this:

    #মুম্বই: দ্য গার্ল ইন দ্য ট্রেন! এর আগে যে কত দিন পরিণীতি চোপড়ার বিরতি পর্ব ছিল, হাতে গুনে বলা যাবে না। কিন্তু তাতে দমে যাননি তিনি। আসলে যাঁরা একটু ইনট্রোভার্ট হন, তাঁরা সেরা সুযোগটা না আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে থাকেন। পরিণীতি সেই বর্গে পড়েন। তারপরে মুষলধারে বৃষ্টির মতো এল দ্য গার্ল ইন দ্য ট্রেন।

    "আমার জীবনের সেরা পারফর্ম্যান্স বলব না। কিন্তু এই পর্যন্ত পাওয়া সেরা চরিত্র তো বটেই। আমি এই প্রথম কোনও চরিত্র নিয়ে ভাবতে ভাবতে এমন মশগুল হয়ে পড়েছিলাম যে কখনও কখনও মনে হচ্ছিল যে আমি পারব না। ফোন করে না বলে দিই। শুটিংয়ের আগে অবধি প্রচণ্ড ভয়' করত। আর এরকম হচ্ছে বলেই জানতাম ভাল একটা কিছু ঘটছে।" বললেন পরিণীতি চোপড়া।

    এই রকম খাটনি আগে খাটেননি, তাই বলতে চাইছেন কি? "সবচেয়ে কঠিন ছিল চরিত্রটা। একবার মনে পড়ছে, এক দিনে 16 টা সিন নিখুঁত ভাবে করতে হবে। আমার তো ভয়ে আত্মারাম খাঁচাছাড়া! এমনটা যে হতে পারে তাই-ই ধারণা ছিল না। একটা সম্পূর্ণ নতুন অভিনয়ের আঙ্গিক শিখলাম আমি। আমায় শেখালেন পরিচালক।"

    সত্যি কি এর আগে যেসব ছবিতে অভিনয় করেছেন, সেগুলো মনের মতো নয়? "বিশ্বাস করুন, অনেক সময়েই এমন হয় যে, স্ক্রিপ্ট দেখে মনে হয় দুর্দান্ত ছবি। কিন্তু ট্রিটমেন্ট এত নির্জীব, দায়সারা হয় যে পুরো ব্যাপারটা অহেতুক লাগে। ভাল পরিচালকের মুনশিয়ানায় ছবি ভাল হয়। অভিনেতাদের তিনি চরিত্রের সাইকোলজিতে ঢুকিয়ে দেন। চরিত্রও তখন অভিনব হয়ে ওঠে।" জানালেন পরিণীতি, "এখানে আমার ভয়েস আর ন্যারেশন এমনভাবে আছে যে পুরোটাই ক্রিয়েটিভ মনে হয়। আমি বরাবর অ্যাকাডেমিক পারসন। হোমওয়র্ক মন দিয়ে করতাম। এখনও সেভাবেই করি। " পরিণীতি বললেন।

    অনেকদিন পর অভিনয় করলেন। কয়েকটা ছবিও ভাল চলেনি বক্স অফিসে। কখনও হতাশ হয়েছেন? মন খারাপ হয়েছে? "না কখনও হয়নি। দেখুন, পৃথিবীতে এমন কোনও অভিনেতা বা অভিনেত্রী নেই যিনি জীবনে একাধিক বার অসফল হননি! বরং এই বার বার মুখ থুবড়ে পড়ার অভিজ্ঞতাই তাঁকে বা তাঁদের চূড়ান্ত সাফল্য এনে দিয়েছে। আমি ইন্টারেস্টিং চরিত্র খুঁজি না, আমি খুঁজি ইন্টারেস্টিং ডিরেক্টর যিনি ফিল্মটাকে দর্শকের কাছে ইন্টারেস্টিং করে তোলেন। তবেই আমাদের সাফল্য। আর যাঁরা কঠিন পরিস্থিতিতে ভেঙে পড়েন তাঁদের উদ্দেশ্যে বলি, নিজের পাশে দাঁড়ান। সাফল্য শুধু সময়ের অপেক্ষা।" বললেন পরিণীতি।

    সত্যিই তিনি পজিটিভ। জীবনের প্রতি।

    শর্মিলা মাইতি

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: