আজ কেউ অপেক্ষা করে না পনেরো পয়সার পোস্টকার্ডের জন্য : মধুর ভাণ্ডারকর

আজ কেউ অপেক্ষা করে না পনেরো পয়সার পোস্টকার্ডের জন্য : মধুর ভাণ্ডারকর

মধুর ভান্ডারকরের সঙ্গে ইন্টারভিউয়ের অনেকটা শেষ দিকে ছিল এই প্রশ্নটা। কিন্তু লেখা শুরু করা হল এটা দিয়ে।

মধুর ভান্ডারকরের সঙ্গে ইন্টারভিউয়ের অনেকটা শেষ দিকে ছিল এই প্রশ্নটা। কিন্তু লেখা শুরু করা হল এটা দিয়ে।

  • Share this:
    শর্মিলা মাইতি
    #মুম্বই : বিতর্ক ছাড়া কি সিনেমাকে লাইমলাইটে আনা যায় না?
    মধুর ভান্ডারকরের সঙ্গে ইন্টারভিউয়ের অনেকটা শেষ দিকে ছিল এই প্রশ্নটা। কিন্তু লেখা শুরু করা হল এটা দিয়ে। কারণ, প্রশ্নের পর ঠোঁটের কোণের মুচকি হাসি।
    সবসময়ে ধোপদুরস্ত থাকতে পছন্দ করেন। ফর্মাল পোশাক ছাড়া তাঁকে কেউ কখনও দেখেনি।  জেল দিয়ে ব্যাকব্রাশ করা চুল।
    "বিতর্ক ছাড়াও বহু ছবি বহু কাল ধরে লাইমলাইটে আছে।" বললেন মধুর, "আমার ছবি নিয়ে বিতর্ক হয়েছে ঠিকই। কিন্তু সমাজের যেসব সমস্যা সিনেমায় তুলে আনা উচিত মনে করেছি, সেটাই করেছি। সেই ছবিরই স্থায়িত্ব বেশি হবে যা একাধিক প্রজন্মের মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য। এ নিয়ে  আমার কোনও দ্বিধা নেই। আজ পনের কুড়ি বছর ধরে ছবি বানাচ্ছি। চাঁদনী বার সবার পছন্দ হয়েছিল।  দর্শক আমার ছবিতে কিছু-না-কিছু খুঁজে পায় তাই আজও আসে দেখতে। পেজ থ্রি যখন বানিয়েছিলাম, তখন সবাই বলেছিল কিংবা ভেবেছিল, আমি বোধহয় সাংবাদিক। তার পর যখন ট্রাফিক সিগন্যাল বা জেল দেখল, তখন বুঝতে পারল যে আমি সমাজচিত্র বানানোর চেষ্টা করি। আসল কথাটা বিতর্ক নয়, বক্স অফিস। বক্স অফিসে কোন ছবি জিতবে, সেটা কোনও কনট্রোভার্সি ঠিক করে দেয় না। "
    বাংলা ছবি 'অভিযাত্রিক' নিবেদন করছেন আপনি, সত্যজিতের প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ। প্রশ্ন করতেই তিনি বললেন, " সারা বিশ্বের কাছে সত্যজিতের ছবি এক অপার বিস্ময়। শ্যাম বেনেগল, গোবিন্দ নিহালনি, সত্যজিত রায়, মৃণাল সেন যে সময়ে ছবি নির্মাণ করেছেন, তা শুধু তখনকার সময়কেই তুলে ধরে না। তুলে ধরে এক আদ্যন্ত ভারতীয় মূল্যবোধ। ভারতকে পরিচিত করিতেছে,  সংযুক্ত করেছে সারা বিশ্বের সিনেমার সঙ্গে। সময় এখন বদলেছে। আগে মানুষ মাসের পর মাস অপেক্ষা করত একখানি চিঠির জন্য। কখন ডাকহরকরার চিঠি আসবে। আমি নিজেই পনের পয়সার পোস্টকার্ডে চিঠি লিখেছি। আজ SMS এর, স্মার্টফোনের যুগে সেসব ব্রাত্য হয়ে গেছে। কেউ চিঠির জন্য অপেক্ষা করে না,  পোস্টম্যানও ভ্যানিশ হয়ে গেছে। কিন্তু এই বদলে যাওয়া সমাজ পর্দায় নস্টালজিয়া দেখতে ভালবাসে। "
    আপনি কি নিজেকে এঁদের শিষ্য মনে করেন? "ফিল্মমেকার প্রফেশনে যেদিন থেকে এসেছি, সেদিন থেকেই আমার ছাত্রজীবন শুরু। আমি কেন, সব পরিচালকই আসলে ছাত্র। সবাই সমুদ্রের ধারে নুড়ি কুড়োচ্ছি। আমি আজীবন শিষ্য। শেখা বন্ধ করে দিলেই মৃত্যু অবধারিত।" বললেন মধুর ভান্ডারকর।
    Published by:Akash Misra
    First published: