Amitabh Bachchan: ইন্ডাস্ট্রিতে অমিতাভের ৫২ বছরের 'বচ্চনরাজ', অভিনেতা নিজেই হতবাক!

অমিতাভ বচ্চন।

প্রায় সমস্ত ধরনেরই ফিল্ম করেছেন অমিতাভ বচ্চন (Amitabh Bachchan)। তাঁর দীর্ঘ কেরিয়ারে দুই শতাধিক ছবিতে দেখা গিয়েছে তাঁকে। বলিউডে কাজ করার ৫২ বছর পূর্ণ (52 Years in Bollywood) করলেন অমিতাভ বচ্চন।

  • Share this:

    #মুম্বই: প্রায় সমস্ত ধরনেরই ফিল্ম করেছেন অমিতাভ বচ্চন (Amitabh Bachchan)। তাঁর দীর্ঘ কেরিয়ারে দুই শতাধিক ছবিতে দেখা গিয়েছে তাঁকে। বলিউডে কাজ করার ৫২ বছর পূর্ণ (52 Years in Bollywood) করলেন অমিতাভ বচ্চন। সোমবার সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেই এই অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করেছেন বলিউডের মেগাস্টার 'শাহেনশা'। ইনস্টাগ্রামের পোস্টে তাঁর নানা ফিল্মের চরিত্রের ছবির কোলাজ তৈরি করে শেয়ার করেছেন বিগ বি।

    বলিউডে প্রথমে তিনি আত্মপ্রকাশ করেছিলেন 'অ্যাংরি ইয়ং ম্যান' হিসেবে। তবে ছবির সঙ্গে সঙ্গেই নিজের ইমেজ বদলেছেন অমিতাভ। ইন্ডাস্ট্রির অনেক প্রবীণ অভিনেতা যা পারেননি, তা পেরেছেন অমিতাভ। নিজেকে যুগের সঙ্গে পাল্টে দিন দিন আধুনিক হয়েছেন অভিনেতা। নিজের ছকভাঙা অভিনয়ের সঙ্গে প্রমাণ করে দিয়েছেন, ৫২ বছর পরেও, তিনিই বলিউড ইন্ডাস্ট্রির 'শাহেনশা'।

    কিন্তু এই অসামান্য সাফল্যের জন্য কার কাছে ঋণী তিনি? নিজের ইনস্টাগ্রাম পোস্টেই সেকথা খোলসা করেছেন অভিনেতা। এই সব কিছুর কৃতিত্ব ঈশ্বরকে দিয়ে অমিতাভ লিখেছেন, '২ বছর একই জায়গায় কাটিয়ে দেওয়া মুখের কথা নয়! সবটাই সম্ভব হয়েছে সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের জন্য।' তিনি নিজেও বিস্মিত, কী ভাবে এটা সম্ভব হল? অভিনেতার পোস্টেল পরই অবশ্য ফ্যানেরা শুভেচ্ছায় ভরে দিয়েছেন তাঁর সোশ্যাল ওয়াল। তালিকায় রয়েছেন বলিউডের অন্য সেলেবরাও।

    অমিতাভের পোস্টে অভিনেত্রী মৌনি রায় শেয়ার করেছেন, লাল হৃদয় ও প্রণামের ইমোজি। শিল্পা শেট্টি ও শমিতা শেট্টিও বিগ বি-কে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। শিল্পা লিখেছেন, 'শুভেচ্ছা প্রিয় অমিতাভ বচ্চনজি। আপনার মতো কেউ নেই, কেই হবেনও না।' শমিতা একাধিক লাল হৃদয়ের ইমোজি শেয়ার করেছেন অমিতাভের পোস্টে।

    কাজের দিক থেকে অমিতাভকে শেষ দেখা গিয়েছে সুজিত সরকারের 'গুলোবা সিতাবো' ছবিতে। পাইপলাইনে রয়েছে 'ব্রহ্মাস্ত্র'-র কাজ। এছাড়াও দীপিকা পাড়ুকোনের সঙ্গে 'দ্য ইন্টার্ন'-এর কাজ করবেন তিনি। রয়েছে অজয় দেবগণের 'মে ডে'-র কাজও। এছাড়াও রশ্মিকা মন্দারা সঙ্গে অমিতাভকে দেখা যাবে 'গুডবাই' ছবিতেও।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: