লকডাউন কাটছে রান্না করে, বাসন মেজে: তনুশ্রী চক্রবর্তী

বাক্স-পেটরা গোছানো হয়ে গিয়েছিল। নিজের সংলাপ আউড়ে নিয়েছিলেন বেশ কয়েকবার। কথা ছিল ১৭ই মার্চ সমতল ছেড়ে পাহাড়ে পাড়ি দেবেন তিনি। উড়ে যাবেন সোজা কালিম্পং শহরে।

বাক্স-পেটরা গোছানো হয়ে গিয়েছিল। নিজের সংলাপ আউড়ে নিয়েছিলেন বেশ কয়েকবার। কথা ছিল ১৭ই মার্চ সমতল ছেড়ে পাহাড়ে পাড়ি দেবেন তিনি। উড়ে যাবেন সোজা কালিম্পং শহরে।

  • Share this:

#কলকাতা: বাক্স-পেটরা গোছানো হয়ে গিয়েছিল। নিজের সংলাপ আউড়ে নিয়েছিলেন বেশ কয়েকবার। কথা ছিল ১৭ই মার্চ সমতল ছেড়ে পাহাড়ে পাড়ি দেবেন তিনি। উড়ে যাবেন সোজা কালিম্পং শহরে। 'আবার বছর কুড়ি পর' ছবির আউটডোরে যাওয়ার কথা সব পাকা। কিন্তু কথা মতো কিছু হলো না। বন্ধ হলো শুটিং পাড়া। বন্ধ হলো গোটা গোটা দেশ। বাড়িতেই বন্দী হয়ে গেলেন তিনি। শুধু তিনি নয়, সকলেই হলো গৃহবন্দী। তনুশ্রী চক্রবর্তী। করোনা আতঙ্ক প্রভাব ফেলেছে তাঁর মনেও। নিউজ 18 বাংলার সঙ্গে নিজের চিন্তার কথা ভাগ করে নিলেন তিনি। কীভাবে সময় কাটাচ্ছেন তনুশ্রী, সে কথাও জানালেন নায়িকা।

সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে তনুশ্রী বেশ অ্যাক্টিভ। তাঁর কথায়, 'আমাকে যাঁরা ভালবাসেন, আমার ফ্যান, আমি তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে চাই। তাঁরা কেমন আছেন জানতে চাই। তাঁদের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে চাই। আর তো কোনও উপায় নেই, এই সাইটগুলোর মাধ্যমে এটুকু জানান দিতে চাই, যে আমি তাঁদের পাশেই আছি।' নিজের বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজন, সকলকে নিয়ে বেশ দুশ্চিন্তায় রয়েছেন নায়িকা। ফোনে খবরা খবর নিচ্ছেন। তবে মনে একটা ভয় রয়েই যাচ্ছে তাঁর।

শ্যুটিং ও নানা কাজের মধ্যে দিন কেটে যায়। বাড়িতে খুব একটা সময় কাটাতে পারেন না তনুশ্রী। তবে কোয়ারেন্টাইন এর জন্য জন্য জন্য অনেকটা ফাঁকা সময় মিলেছে। কিন্তু বাড়িতে এখন পরিচারিকারা আসছেন না। বাড়ির সমস্ত কাজে মাকে সাহায্য করছেন নায়িকা। রান্না করতে খুব ভালোবাসেন তনুশ্রী। বাড়ির রান্নার অনেকটা দায়িত্ব এখন তাঁর। তনুশ্রী জানালেন, 'আমি রান্না করতে খুব ভালোবাসি। রান্না করছি। আর নিয়ম করে প্রচুর বাসন মাজছি।' এছাড়া প্রচুর ওয়েবসিরিস দেখছেন, বই পড়ছেন বন্ধু-বান্ধবদের সঙ্গে কথা বলেছেন, এভাবেই কেটে যাচ্ছে সময়। কিন্তু তাঁর মনের গভীরে চিন্তা কাজ করছে। মাঝে মাঝেই মনে হচ্ছে সব ঠিক নেই। ঠিক হওয়া প্রয়োজন।

তনুশ্রী বললেন, 'আমরা অনেকেই বাড়িতে খাবার স্টক করতে পারছি। কিন্তু অনেকে রয়েছেন যাঁরা পারছেন না। অনেকেরই এতটা সামর্থ্য নেই। তাঁরা কী খাচ্ছেন? কীভাবে দিনযাপন করছেন? সেটা ভাবলে একটু কষ্ট হচ্ছে।' এই রোগের হাত থেকে বাঁচার একটা মাত্র উপায়, বাড়িতে থাকা এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা। এটা অনেকে বুঝতে চাইছেন না। সেটা বোঝা প্রয়োজন, বলে মনে করেন তনুশ্রী।

নায়ক নায়িকাদের ফিট না থাকলে চলে না। কিন্তু কোয়ারেন্টাইন এর জন্য জন্য তো বন্ধ সমস্ত জিম। তাইতো অনুশ্রী বাড়িতেই স্ট্রেচিং করছেন। হোয়েট লিফটিং এর কয়েকটা জিনিস আছে তাঁর কাছে। সেসব দিয়ে ওয়র্কআউট করে নিজেকে ফিট রাখছেন তনুশ্রী।

বাড়ির কাজ করে আপাতত সময় কেটে যাচ্ছে। তবে তিন তিনটে ছবির শুটিং পিছিয়ে গিয়েছে তনুশ্রীর। আবার মূল স্রোতে কবে সকলে ফিরতে ফিরতে পারবেন, সেই কথাই ভাবছেন নায়িকা।

Published by:Akash Misra
First published: