corona virus btn
corona virus btn
Loading

টাকার অভাবে চিকিৎসা বন্ধ জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রীমতীর, ফেসবুকে নাতনির আবেদনে কি মিলল সাড়া?

টাকার অভাবে চিকিৎসা বন্ধ জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রীমতীর, ফেসবুকে নাতনির আবেদনে কি মিলল সাড়া?

তাঁর অসুস্থতার কথা জানিয়ে ফেসবুকে পোস্ট লেখেন অভিনেত্রীর নাতনি। সোশ্যাল মিডিয়ায় শিল্পীর করুণ অবস্থা দেখে চোখে জল এসেছে অনেকেরই।

  • Share this:

#কলকাতা: শ্রীমতী পাইন। অভিনয় করছেন ৫০ বছর ধরে। সম্প্রতি তাঁকে অভিনয় করতে দেখা যায়, "খোকাবাবু', 'টাপুর-টুপুর' সিরিয়ালে। কিন্তু অর্থের অভাবে চিকিৎসা হচ্ছে না এই অভিনেত্রীর। তাঁর অসুস্থতার কথা জানিয়ে ফেসবুকে পোস্ট লেখেন অভিনেত্রীর নাতনি। সোশ্যাল মিডিয়ায় শিল্পীর করুণ অবস্থা দেখে চোখে জল এসেছে অনেকেরই। অনেকেই এগিয়ে আসতে চেয়েছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ারও হয় এই পোস্ট। সকলে এগিয়ে এলে হয়তো আবার সুস্থ হয়ে উঠতে পারেন শ্রীমতী।

হ্যাঁ, সত্যিই পারেন, যেভাবে এই খবর ভাইরাল হয়েছে ৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় সবার নজর কেড়েছে ৷ যে সংখ্যক মানুষ নিজেদের পেজে এই খবর শেয়ার করেছেন, তাঁরা যদি সত্যি পাশে এসে দাঁড়ান, তাহলে হয়তো আবার সুস্থ হতে পারেন অভিনেত্রী ৷ ঠিক এরকমটাই বলে উঠলেন অভিনেত্রীর নাতনি আহেলি ৷

অভিনেত্রী শ্রীমতি পাইনের অসুস্থতা ও চিকিৎসা বন্ধ হয়ে যাওয়া নিয়ে অনেক ভেবে চিন্তেই ফেসবুকে পোস্ট করেছিলেন আহেলি৷ প্রচুর লোকে সেই পোস্ট পড়েছেন, শেয়ার করেছেন৷ তারপর কি সত্যিই সাহায্যের জন্য এগিয়ে এসেছেন কেউ? অভিনেত্রীর নাতনি আহেলিকে ফোন করা হলে, আহেলি স্পষ্টই বলেন, ‘এরকম আগে কখনও করিনি ৷ প্রায় নিরুপায় হয়েই এই পোস্ট ৷ এই পোস্ট করার পর অনেকেই দিদার খোঁজ নিয়েছেন, দেখাও করেছেন ৷ কয়েকজন টাকাও দিয়ে গেছেন ৷ তবে তা চিকিৎসার জন্য খুব অল্প পরিমাণ ৷ আসলে, দিদার চিকিৎসার জন্য অনেকটাই টাকা প্রয়োজন৷ আমাদের সাধ্যের বাইরে গিয়েও আমরা খরচা করেছি ৷’

লকডাউনে অভিনেত্রী শ্রীমতি পাইনের পরিবারকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে এসেছে পাড়ার ক্লাবও ৷ বাড়িতে প্রয়োজনীও চাল, ডাল, আলু পেঁয়াজও দেওয়া হয়েছে ক্লাবের পক্ষ থেকে ৷

আহেলির কথায়, ‘সবাইকে ধন্যবাদ আমার পোস্টটা পড়ার জন্য, আমার পোস্ট সবার কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য ৷ একটাই অনুরোধ, প্রত্যেকে যদি একশো, দুশো টাকা করেও আমাদের সাহায্য করেন, তাহলেই সেটা বড়সড় সাহায্য ৷ আর একটা অনুরোধ স্নাতক স্তরে টেষ্ট পরীক্ষা দিয়েছি ৷ কিন্তু পারিবারিক কারণে ফাইনাল পরীক্ষা দিতে পারিনি ৷ যদি একটা চাকরির ব্যবস্থাও কেউ করে দেন, তাহলে সংসারটা দাঁড়িয়ে যায় ৷ দিদার চিকিৎসাও হয় ৷ ’

দেখে নিন আহেলির সেই পোস্ট---

Published by: Akash Misra
First published: May 17, 2020, 4:42 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर