• Home
  • »
  • News
  • »
  • entertainment
  • »
  • AISHWARYA RAI BACHCHAN DENIED THE FACT THAT SHE WAS ELIMINATED FROM THE MOVIE MANGAL PANDEY THE RISING TC ARC

Aishwarya Rai Bachchan : ‘মঙ্গল পান্ডে’ ছবি থেকে বাদ পড়েন? শুনে কী প্রতিক্রিয়া ছিল ঐশ্বর্যর?

ঐশ্বর্য রাই বচ্চন, ফাইল ছবি

সুদৃঢ় ব্যক্তিত্বের জন্য যে কোনও পরিস্থিতিতে কঠোরভাবে নিজের অবস্থান বুঝিয়ে দিয়েছেন ঐশ্বর্য।

  • Share this:

#মুম্বই: বলিউডে অন্যতম সুন্দরী অভিনেত্রী বলতে প্রথমেই যার কথা মনে পড়ে তিনি হলেন ঐশ্বর্য রাই বচ্চন (Aishwarya Rai Bachchan)। তবে শুধু রূপেই নন, গুণেও তিনি অনেক স্টারকে পিছনে ফেলে দেবেন। বরাবরই নিজের সুদৃঢ় ব্যক্তিত্বের জন্য যে কোনও পরিস্থিতিতে কঠোরভাবে নিজের অবস্থান বুঝিয়ে দিয়েছেন ঐশ্বর্য। সেরকমই এক ইন্টারভিউতে মঙ্গল পান্ডে: দ্য রাইজিং (Mangal Pandey: The Rising) সিনেমায় ঐশ্বর্যকে 'বাদ' দেওয়া হয়েছিল কি না প্রশ্ন করলে দৃঢ়ভাবে সাংবাদিকের ভুল ধরিয়ে দেন নায়িকা।

কেতন মেহতার (Ketan Mehta) পরিচালনায় মঙ্গল পান্ডে-তে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন অভিনেতা আমির খান (Amir Khan)। ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের নেতৃত্বে থাকা মঙ্গল পান্ডে চরিত্রটিই ছবিতে ফুটিয়ে তোলা হয়েছিল। আর এই সিনেমাটির নায়িকার ভূমিকায় ঐশ্বর্যকে সরিয়ে অমিশা পটেল (Amisha Patel)-কে নেওয়া হয়েছিল বলে সে সময় আলোচনা তুঙ্গে উঠেছিল। ২০০৪ সালে এক সাক্ষাৎকারে এক সাংবাদিক ঐশ্বর্যর কাছে এ প্রসঙ্গে তাঁর প্রতিক্রিয়া জানতে চান। যার উত্তরে জোর গলায় ঐশ্বর্য সাংবাদিককে বলেন যে 'সরিয়ে দিয়েছে' এই শব্দটি একেবারেই প্রযোজ্য নয়। কারণ ঘটনাটির প্রেক্ষাপট সম্পূর্ণ আলাদা।

মঙ্গল পান্ডে: দ্য রাইজিং সিনেমার প্রযোজকই তাঁর ছবি থেকে ঐশ্বর্যকে 'বাদ' দিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে রটিয়েছিলেন। তাই ওই প্রযোজক ঐশ্বর্যর কাছে ক্ষমাও চেয়েছেন বলে জানান অভিনেত্রী। তবে আসলে কী হয়েছিল সাংবাদিককে তার ব্যাখ্যাও দিয়েছেন প্রাক্তন মিস ওয়ার্ল্ড। তিনি বলেন, "আমার কাছে এই ছবির প্রস্তাব এসেছিল। তবে শেষ পর্যন্ত ছবির নির্মাতা সংস্থা এবং আমার এজেন্ট টিমের সঙ্গে একটি বিষয়ে মতপার্থক্য হওয়ার জন্য আমি নিজে থেকেই ছবি থেকে সরে গিয়েছিলাম। তাও শুভ মহরত হওয়ার অনেক আগেই।"

অন্য দিকে, ঐশ্বর্যর সঙ্গে সমস্যা হওয়ায় অমিশা পটেল সে সময় ছবিটিতে ঢুকে পড়েন বলেও শোনা গিয়েছিল। যদিও পরবর্তীকালে অমিশাও এ প্রসঙ্গে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করে দিয়েছেন। এক সাক্ষাৎকারে অমিশা বলেছিলেন "আমি খুবই খুশি। কোনও চালাকি করে এই চরিত্র পাইনি। আমি আমার যোগ্যতার ভিত্তিতে পেয়েছি। নির্মাতারা একটি নিষ্পাপ, মেকআপহীন চেহারা চেয়েছিলেন এবং তাই তাঁরা আমাকে প্রস্তাব দেন। আমি কোনও গেম খেলিনি। আমি এই ধরনের একটি দুর্দান্ত সিনেমায় পরিচিতি পেয়ে সম্মানিত বোধ করি।"

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালে ‘ফ্যানি খান’ (Fanney Khan) ছবিতে শেষবার পর্দায় ভক্তরা ঐশ্বর্যকে পেয়েছিলেন। সিনেমাটিতে সহ-অভিনেতা ছিলেন রাজকুমার রাও (Rajkummar Rao) এবং অনিল কাপুর (Anil Kapoor)। এর পর মণি রত্নমের (Mani Ratnam) ছবি ‘পন্নিয়িন সেলভান’ (Ponniyin Selvan)-এ আবার দেখা যাবে অ্যাশকে ৷

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published: