corona virus btn
corona virus btn
Loading

বহরমপুরের শোয়েব, ২৬/১১-এর আজমল কাসভ ! রহস্য ফাঁস সাক্ষাৎকারে

বহরমপুরের শোয়েব, ২৬/১১-এর আজমল কাসভ ! রহস্য ফাঁস সাক্ষাৎকারে

তবে State of Siege 26/11 এর সুযোগটা আসবে একটু অন্যভাবে ৷ জানতে পারি হলিউডের ম্যাথু 26/11 নিয়ে ওয়েব সিরিজ তৈরি করতে চলেছেন ৷

  • Share this:

#কলকাতা: দিল্লিতে আপাতত কোয়ারেন্টাইন ‘আজমল কাসভ’ ৷ হ্যাঁ, সেই কাসভ, যে ২৬/১১-এর মুম্বই হামলার মূলচক্রী ৷ সেই অল্প বয়সি ছেলেটা, যে গোটা দেশকে রাতারাতি নাড়িয়ে দিয়েছিল ৷ সেই কাসভকে শুক্রবার বেলা ১২টা নাগাদ ফোনে ধরে ফেললাম... ভাবছেন এসব কী লিখছি? কাসভ আবার কোথা থেকে এল? ফোনেও বা ধরলাম কী করে? সব গোলমেলে লাগছে ? না আর বিশেষ ভনিতা নয়, বরং আসল গপ্পে আসা যাক ... যে আজমল কাসভের গল্প আপনাদের এবার শোনাবো থুড়ি পড়াবো, সে বহরমপুরের ২৫ বছর বয়সের এক ‘মিষ্টি’ ছেলে ৷ যে কিনা বেশ কয়েক বছর ধরে মুম্বইতে রয়েছে নিজের স্বপ্নপূরণের জন্য ৷ নিজের ল্যাপটপ বিক্রি করে মোটে ৭ হাজার টাকা নিয়ে যে, মুম্বই রওনা দেয় ৷ আর তারপর সিনেমা, সিরিয়ালে কাস্টিং অ্যাসোসিয়েট ৷ সেই বহরমপুরের স্বপ্নদেখা ছেলেটাই এখন জি ফাইভের নতুন ওয়েব সিরিজ State of Siege 26/11-এর ‘কাসভ’ ৷ আসল নাম শোয়েব আহমেদ বা কবীর ৷ আদ্যপান্থ এই বাঙালি ছেলের অভিনয় দেখে এখন সবাই মুগ্ধ ৷ কিন্তু একসময়, শোয়েবের বন্ধুরাই তাঁর মুখে অভিনয়, অডিশনের কথা শুনলে বিশ্বাসই করত না !

এবার তাহলে বন্ধুদের বিশ্বাস হল? কী বলছে তাঁরা?

শোয়েব: শুধু বিশ্বাসই নয়, দারুণ খুশি বন্ধুরা ৷ আমাকে তো ফোন করে বলেই চলেছে, দারুণ অভিনয় করেছিস তুই ভাই ৷ শুভেচ্ছাও জানাচ্ছে ৷

আর বাড়ির লোক? শোয়েব: বাবা তো দারুণ খুশি ৷ সবাইকে আমার কথা বলছে ৷ খবরের কাগজে সাক্ষাৎকার বের হওয়ার পর, একাই অনেকগুলো পেপার কিনে ফেলেছে ৷ মা, বোন সবাই খুব খুশি ৷

কথায় কথায় শোয়েব জানিয়েছিলেন, এক গোঁড়া মুসমিল পরিবারে ছোট থেকে বড় হওয়া ৷ সেই পরিবারে সিনেমা, থিয়েটার, অভিনয়কে একেবারেই ভালো চোখে দেখা হতো না ৷ বাড়ির সবাইকে লুকিয়ে অডিশন দিত শোয়েব ৷ কারণ, সে ছোট থেকে একটা স্বপ্নকে তিল তিল করে বড় করে তুলছে ৷ আর যার প্রথম প্রতিফলন ওয়েব সিরিজ State of Siege 26/11 !

State of Siege 26/11 কেরিয়ারের ক্ষেত্রে প্রথম বড়সড় ব্রেক ৷ আর সেখানে কাসভের মতো বিতর্কীত, নেগেটিভ চরিত্র ৷ ঝুঁকি মনে হয়নি?

শোয়েব: প্রথমে আমি একজন অভিনেতা ৷ আমাকে যদি বিড়ালের চরিত্রই দেওয়া হয়, তাহলে আমি সেটা করতেও নিজের জানপ্রাণ ঢেলে দেব ৷ (ফোনের ওপারে হেসে ফেললেন শোয়েব )... আমার মনে হয়, কেরিয়ারের শুরুতে এরকম একটা চরিত্র পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার ৷ লড়াইটা যদি প্রথমেই কঠিন শুরু করি, তাহলে ভবিষ্যতে লড়তে সুবিধা হবে...কাসভের চরিত্রের ক্ষেত্রেও ঠিক তাই মনে হয়েছিল বলেই, সুযোগটা পেয়ে বেশি ভাবিনি ৷ হ্যাঁ, করে দিয়েছি ৷

কীভাবে এল সুযোগ?

শোয়েব: মুম্বইতে আমার কেরিয়ার শুরু কাস্টিং অ্যাসোসিয়েট হিসেবে ৷ প্রচুর ভালো ধারাবাহিক, সিনেমার কাস্টিংয়ের সঙ্গে যুক্ত ছিলাম ৷ বলা যেতে পারে চাকরি হিসেবে কাস্টিং আর মনের ভিতর অভিনেতা হওয়ার ইচ্ছেটা এখান থেকেই ফ্লাই করতে শুরু করল ৷ অভিনেতা হিসেবে প্রথম ব্রেকটা পাই ‘হাফ ম্যারেজ’ নামের একটি ধারাবাহিকে ৷ এই ধারাবাহিকের কাস্টিংয়ের কাজ করছিলাম ৷ কিন্তু একটা চরিত্রে অভিনেতা না পাওয়ার কারণ, নির্মাতা আমাকে অডিশন দিতে বলে ৷ ব্যস, সেই থেকেই শুরু... সোনম কাপুরের জোয়া ফ্যাক্টর ছবিতেও ছোট্ট একটা চরিত্রে অভিনয় করেছিলাম৷

তবে State of Siege 26/11 এর সুযোগটা আসবে একটু অন্যভাবে ৷ জানতে পারি হলিউডের ম্যাথু 26/11 নিয়ে ওয়েব সিরিজ তৈরি করতে চলেছেন ৷ এই খবর গোটা মুম্বইয়ে ছড়িয়ে পড়ে ৷ প্রায় ২০০ জনের মতো অভিনেতা অডিশন দিতে এসেছিল ৷ তার মধ্যে বেশ কয়েকজন প্রতিষ্ঠীত অভিনেতাও ছিলেন৷ আমি এই ওয়েব সিরিজে শোয়েব নামের এক চরিত্রের জন্যই অডিশন দিতে যাই৷ কিন্তু এই ওয়েব সিরিজের ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর বর্ষা লালওয়ানি আমাকে বলেন, তুমি কাসভের চরিত্রটা ট্রাই করো ৷ আমি অডিশন দিই ৷ তারপরের দিনই আমার কাছে ফোন আসে, আমি শর্ট লিস্টেড ৷ তারপর লুক টেষ্ট হয় ৷ পরিচালকের সঙ্গে একটা প্রাথমিক আলাপও হয় ৷ এরপর আমাকে নানা অস্ত্র চালানোর ট্রেনিং দেওয়ার জন্য গুজরাতের আমগাঁওতে নিয়ে যাওয়া হয় ৷ বলা যায় এভাবেই আমার কাসভ চরিত্রে ঢুকে পড়া৷

ট্রেনিং হল, অডিশন হল, এরকম একটা চরিত্রের জন্য নিজেকে কীভাবে তৈরি করেছিলেন?

শোয়েব: প্রথমেই যেটা করি, আমি প্রায় ৬ দিনের জন্য সবকিছু থেকে নিজেকে আইসোলেটেড করে ফেলি ৷ নো ফোন, নো ইন্টারনেট, নো সোশ্যাল মিডিয়া , নো টিভি৷ শুধু রাত ৯ টা বাজলে মাকে ফোন ৷ সারাদিন কাসভকে নিয়েই পড়াশুনো করতাম ৷ ঘরের মধ্যে কাসভের পোস্টারও টাঙিয়ে রেখেছিলাম ৷ বই পড়তাম ৷ আর হ্যাঁ, কাসভ হওয়ার জন্য নিজের ওজনটাকে বাড়িয়ে ছিলাম৷ এটা খুব হেল্প করেছিল, আমাকে কাসভের লুকে নিজেকে নিয়ে যেতে...

কাসভ নিয়ে পড়তে গিয়ে একটা জিনিস বার বার উপলদ্ধি করেছিলাম, যে আমার ফিলোজফি কখনই কাসভের মতো নয় ৷ ওর আইডিওলজির সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে আমি সম্মতও নই ৷ কিন্তু সবার মধ্যেই তো একটা এভিল সাইড থাকে, বলা ভালো কাসভ হওয়ার জন্য সেই এভিল সাইডকেই এক্সপ্লোর করেছিলাম৷

কখনও মনে হয়নি, এরকম একটা চরিত্র করার পর বিতর্ক উঠতে পারে? শোয়েব: না, সেরকম কিন্তু মনে হয়নি ৷ আসলে ওয়েব সিরিজটা এমনভাবে তৈরি হয়েছে, তাতে কিন্তু এরকম হওয়ার কথা নয় ৷ এখনও অবধি তো অভিনয়ের জন্য প্রশংসাই পাচ্ছি ৷

তবে হ্যাঁ, বলতে পারি এই প্রথম মু্ম্বই হামলা নিয়ে কোনও সিরিজে কাসভের ব্যাক স্টোরিকেও খুব সুন্দরভাবে এক্সপ্লোর করা হয়েছে ৷

বাংলার ছেলে, বাংলা ছবি করার ইচ্ছে নেই? শোয়েব: খুবই আছে, আমি করতেও চাই ৷ কয়েকটা কথাও হয়েছে ৷ খুব শীঘ্রই হয়তো করব ৷

আর বলিউড?

শোয়েব: ওটা তো স্বপ্ন ৷ তবে আমি স্লো বাট স্টেডিতেই বিশ্বাস করি ৷ এরপর কুণাল খেমুর সঙ্গে অভয় ২ ওয়েব সিরিজে কাজ করছি ৷ নেটফ্লিক্সের আরও একটা সিরিজের জন্য কথা হয়েছে ৷ কিন্তু এখনও কিছু ফাইনাল হয়নি৷

 State of seige 26/11 for 

Director - Mathew leutyllwer, Dop - Richard henkels.

Starring - Arjan Bajwa,Arjun Bijlani,Vivek Dahiya,Mukul Dev,Tara Alisha Berry. etc.

Published by: Akash Misra
First published: March 28, 2020, 10:12 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर