corona virus btn
corona virus btn
Loading

বাঙালিয়ানার সংজ্ঞা জানি না, তবে বাঙালিত্ব প্রাণপণ ধরে রেখেছি : অনির্বাণ

বাঙালিয়ানার সংজ্ঞা জানি না, তবে বাঙালিত্ব প্রাণপণ ধরে রেখেছি : অনির্বাণ

প্রথম বাংলা ছবি রিলিজ ওটিটি প্ল্যাটফর্ম হইচই-তে৷

  • Share this:

#কলকাতা: নিউজ১৮ বাংলার ফেসবুক পেজে লাইভ হয়ে কী কী বললেন অনির্বাণ, উত্ফুল্ল দর্শক ভিড় করে এলেন ৷  লিখছেন, শর্মিলা মাইতি

প্রথম বাংলা ছবি রিলিজ ওটিটি প্ল্যাটফর্ম হইচই-তে৷  করোনা আবহে মুম্বইয়ে যখন সব ছবিই মুক্তি পাচ্ছে ওটিটি প্ল্যাটফর্মে, তখন টলিউডেও নতুন করে শুরু হল এই ট্রেন্ড ৷ দর্শকের হাতে হাতে পৌঁছে যাবে তাঁর অভিনীত ছবি ডিটেকটিভ ৷

অনির্বাণ এই মুহূর্তে শহর ও গ্রাম, দুই মেরুর বাঙালির কাছেই আইকন. প্রতিটি ছবিতেই রাখেন নিজস্ব অটোগ্রাফ ৷ লাইভে আসার পরেই টের পাওযা গেল তাঁর অকৃত্রিম জনপ্রিয়তা ৷ নিজে তিনি অবশ্য সোশাল মিডিযা থেকে দূরেই থাকেন ৷ তাঁর টিম মই ম্যানেজ করেন তাঁর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ৷ নিউজ ১৮ এর আমন্ত্রণে লাইভে তাঁর প্রথমেই বিনম্র স্বীকারোক্তি, এই ব্যাপারটা পুরোপুরি সিলেবাসের বাইরে, জানেন. অন্য কোনও পেজ থেকে একা লাইভ এই প্রথমবার করলাম ৷

দর্শকের প্রশ্ন ছিল, বাঙালিযানা কি সত্যিই হারিযে যাচ্ছে ? উত্তরটা এত সুন্দর গুছিযে দিলেন যে সত্যিই কেউ ভাবতে পারেননি ৷ বললেন, বাঙালিযানার সংজ্ঞা ওভাবে দেওযা যায় না. বাঙালির ইতিহাস বিরাট বড় এবং ব্যাপ্ত আমি সেখানে নগণ্য, মন্তব্য করার ধৃষ্টতা নেই. আমার জ্ঞান হযেছে যখন থেকে, তখন থেকেই আমি তীব্রভাবে বাঙালি. ছোটবেলা থেকে বাংলা বই পড়েছি, নাটক করেছি, পরবর্তীতে ছবির জগতে এসেছি, প্রাণপণ বাংলা ভাষাকে আঁকড়ে ধরেই বেঁচে থেকেছি. যা যা চরিত্র করেছি, সব চরিত্রের মধ্যেই আমার বাঙালিত্বই প্রকাশ পেয়েছে, ডিটেকটিভ ছবির মহিমচন্দ্রকে দেখলে আরও বুঝতে পারবেন, কতটা বাঙালি আমি, আর খুঁজে নেবেন আপনারা, বাঙালিয়ানা পুরোমাত্রায় আছে কি না ৷

এই ছবি শেষ করতে সত্যিই অনেকটা কাঠখড় পোড়াতে হযেছে. অনির্বাণ জানালেন, দশ দিন শুটিং বাকি থাকতেই করোনা আবহে বন্ধ হযে যায় সবকিছু. তিন মাস পরে সুযোগ যখন এল, তখন পুরো ব্যাপারটাই আবার নতুন নিয়ম মেনে করতে হল. তখনও সবাই ভয়েভযে ছিলেন, যখন-তখনই শুটিং বন্ধ করে দেওযা হতে পারে করোনার কবলে কেউ পড়লে, কিন্তু ভগবানের ইচ্ছায় ভালয ভালয় শুটিং শেষ হল. সুখের বিষয আমরা কেউই করোনা আক্রান্ত হইনি. ছোট্ট করে স্বস্তির নিঃশ্বাস নিলেন অনির্বাণ ৷

এই করোনাভাইরাসই লিখল ছবির ভাগ্য ৷ যে ছবি মুক্তি পাওযার কথা ছিল সিনেমাহলে, সেই ছবি মুক্তির আলো দেখল দর্শকের হাতের মুঠোয়. বদলে যাওযা সময, বদলাতে থাকা চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিযে বিনোদন ইন্ডাস্ট্রির ডায়রির পাতাও বদলাচ্ছে. শূন্যে মিলিয়ে যাচ্ছে বক্স অফিস. পরিবর্তে এক নিমেষে লক্ষ কোটি মানুষের হাতে, দেশে বিদেশে পৌছে যাচ্ছে বাংলা ছবি… নিঃশব্দেই আরও বেশি করে গ্লোবাল হচ্ছে বাংলা ছবি ৷

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছোটগল্প অবলম্বনে এই ছবিতে অভিনয করেছেন ঈশা সাহা, সাহেব ভট্টাচার্য ও তৃণা সাহা ৷

Published by: Akash Misra
First published: August 10, 2020, 4:25 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर