ধূ-ধূ প্রান্তর হল সবুজ শ্যামল, পাশে দাঁড়ালেন আমির খান

ধূ-ধূ প্রান্তর হল সবুজ শ্যামল, পাশে দাঁড়ালেন আমির খান

আনলকডাউন প্রক্রিয়ায় চতুর্দিকে যখন হাহাকার। ভাইরাসের সঙ্গে যুদ্ধে ভেঙে পড়ছে অর্থনীতিও, তখনই যেন এক নতুন সূর্যোদয়। ধূ ধূ প্রান্তরে দুই বছর পর মাথা তুলে দাঁড়াচ্ছে এক অরণ্য!

আনলকডাউন প্রক্রিয়ায় চতুর্দিকে যখন হাহাকার। ভাইরাসের সঙ্গে যুদ্ধে ভেঙে পড়ছে অর্থনীতিও, তখনই যেন এক নতুন সূর্যোদয়। ধূ ধূ প্রান্তরে দুই বছর পর মাথা তুলে দাঁড়াচ্ছে এক অরণ্য!

  • Share this:

    শর্মিলা মাইতি

    #মুম্বই: আনলকডাউন প্রক্রিয়ায় চতুর্দিকে যখন হাহাকার। ভাইরাসের সঙ্গে যুদ্ধে ভেঙে পড়ছে অর্থনীতিও, তখনই যেন এক নতুন সূর্যোদয়। ধূ ধূ প্রান্তরে দুই বছর পর মাথা তুলে দাঁড়াচ্ছে এক অরণ্য!

    কোনও যাদুমন্ত্রে নয়। বানানো কথাও নয়। ফেক নিউজ আর চটকদারির যুগে কোনও মনগড়া খবরও নয়। বাস্তবের জমিতেই, করোনাকালে তৈরি হল এক অরণ্য। পানি ফাউন্ডেশনের দুই বছরের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল। আর সেই সফল প্রচেষ্টাকে কুর্নিশ জানালেন স্বয়ং আমির খান। কিন্তু এক কম সময়ে কীভাবে সম্ভব হল? সেটা জানার জন্য আমাদের সূর্যোদয়ের দেশ জাপানকে ধন্যবাদ দিতে হবে। জাপানি পরিবেশবিজ্ঞান আকিরা মিয়াওয়াকি এক বিশেষ বৃক্ষরোপণ পদ্ধতি প্রয়োগ করতে চেয়েছিলেন ভারতে। সেট্রিজ এনভায়রনমেন্টাল ট্রাস্টের (Saytrees Environmental Trust)  সঙ্গে যোগাযোগ করেন তিনি। তাঁর ভাষায়, যেকোনও দেশের কাছে বর্তমান পরিস্থিতিতে এই সবুজের আবাহন অবশ্যই প্রয়োজন। 2018 সালের সেপ্টেম্বর মাস শুরু হয় এই প্রজেক্ট।

    View this post on Instagram

    Please watch and give me your reactions. Love. a.

    A post shared by Aamir Khan (@_aamirkhan) on

    মহারাষ্ট্রের  সাতারা জেলার গ্রামবাসীদের নিয়ে শুরু হয় এই বৃক্ষরোপণ প্রকল্প।  মোট দু হাজার গাছ পোঁতা হয়। গাছ বাছাই পর্ব অত্যন্ত মনোযোগ সহকারে করা হয়েছিল। সব রকম গোত্রের বৃক্ষের চারা পোঁতা হয়েছিল। অরণ্যে যেমন বহু জগতের গানের সমন্বয় থাকে,  ঠিক তেমনিভাবেই গাছগুলি দূরত্ব মেনে বসানো হয়েছিল। প্রতিটি গাছ নিয়মিত পরিচর্যা করা হয়েছিল এতদিন, যাতে বাড়বৃদ্ধি দ্রুত হয়। শুধু তাই নয়,  প্রচুর প্রজাতির পোকামাকড়, পাখি ও ছোট ছোট জীব এই বনে ছাড়া হয়েছিল যাতে রক্ষিত হয় বাস্তুতন্ত্র । স্বয়ং আমির খান এতটাই অভিভূত যে তিনি বলেছেন "ভাবতেই পারছি না এ-ও সম্ভব! আপনারা দেখুন। উৎসাহ দিন" ইনস্টাগ্রামে ভিডিও করে বলেছেন তিনি।

    প্রসঙ্গতঃ উল্লেখ্য আমির খান ও কিরণ রাও বহু দিন ধরেই পানি ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে জল সংরক্ষণ নিয়ে প্রচার ও কাজ করে চলেছেন। মহারাষ্ট্র ও প্রতিবেশী রাজ্যে। আমির এখনই ঘোষণা করেছেন যে, জল সংরক্ষণের সঙ্গেসঙ্গে কৃত্রিমভাবে অরণ্য গঠনের কাজও করে চলবেন তিনি। পৃথিবীকে সবুজ করে তোলার লক্ষ্যে এগোবেন এই সুপারস্টার! আগামী দিনে আরও বিষণ্ণ, ধূসর প্রান্তর সবুজ নবীন হয়ে উঠবে এই উচ্চাশা বুকে নিয়ে নতুন উৎসাহে কাজ শুরু করতে চান আমির।

    Published by:Akash Misra
    First published: