ভারতে ইভিএমে প্রথম ভোটগ্রহণ ৩৭ বছর আগে, জেনে নিন ইভিএম সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য

ভারতে ইভিএমে প্রথম ভোটগ্রহণ ৩৭ বছর আগে, জেনে নিন ইভিএম সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য
Representational Image
  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন নিয়ে দেশ জুড়ে রাজনৈতিক বিতর্কে সরগরম। একদিকে ইভিএম নিয়ে কারচুপির অভিযোগ বিরোধীদের। অন্যদিকে ব্যালটে ফিরবে না বেলে অনড় নির্বাচন কমিশন। তারই মধ্যে দেখে নেওয়া যাক, ইভিএম নিয়ে যাবতীয় তথ্য।

৩৭ বছর আগে ভারতে প্রথম ইভিএমে ভোটগ্রণ হয়। ১৯৮২ সালে পরীক্ষামূলকভাবে কেরলে পারুর বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার হয়। সেই নির্বাচন জেতেন বাম প্রার্থী সিভন পিল্লাই। এরপরই ইভিএমে ভোটগ্রহণকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেন পরাজিত কংগ্রেস প্রার্থী এ সি জোস।

জোসের দাবি, ইভিএম ব্যবহারের ক্ষেত্রে কোনও আইনি ব্যবস্থা নেই। আদালত ওই মামলার রায়ে জানায়, আইনের বেড়াজাল ডিঙিয়েই ইভিএম ব্যবহার করেছে নির্বাচন কমিশন।

১৯৮৮র ডিসেম্বর সংবিধানী সংশোধন আনা হয়। তাতে ইভিএমে ভোট করার সাংবিধানিক অধিকার দেওয়া হয় কমিশনকে। ১৯৯০ ফেব্রুয়ারি। ইলেকটোরল রিফর্ম কমিটি গড়া হল। জাতীয় ও রাজ্যস্তরের রাজনৈতিক দলগুলির সদস্যদের নিয়ে গঠিত কমিটি সুপারিশ করে, বিশেষজ্ঞদের দিয়ে প্রাথমিকভাবে ইভিএমের মূল্যায়ণ করাতে হবে।

এপ্রিল ১৯৯০। বিশেষজ্ঞ কমিটির রিপোর্টে ক্লিনচিট দেওয়া হয় ইভিএমে। ১৯৯৯। গোয়া বিধানসভা নির্বাচনে ব্যবহার হল ইভিএম। ২০০৩। দেশের সব উপনির্বাচন ও বিধানসবা নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার।

২০০৪। ভারতে প্রথম লোকসভা নির্বাচন হল ইভিএমে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ইভিএমের মাধ্যমেই ভোট হয়। তাদের মধ্যে রয়েছে -

ইভিএমে ভোট  - বেলজিয়াম - ব্রাজিল - এস্তোনিয়া - ফিলিপিন্স - সংযুক্ত আরব আমিরশাহী - আমেরিকা - ভেনেজুয়েলা

বহু দেশে আবার এখনও ব্যালটেই ভোট হয়। তাদের মধ্যে রয়েছে -

ইভিএম নয়  - কানাডা - ফিনল্যান্ড - ফ্রান্স - জার্মানি - আয়ারল্যান্ড - ইতালি - কাজাখস্তান - লিথুয়ানিয়া - নামিবিয়া - নেদারল্যান্ডস - নরওয়ে - রোমানিয়া - দক্ষিণ কোরিয়া - স্পেন - সুইৎজারল্যান্ড

তবে বেশ কয়েকটি দেশ ইভিএম থেকে ফের ব্যালটে ফিরেছে। তাদের মধ্যে রয়েছে -

ব্যালটে ফিরেছে 

- কানাডা - ফিনল্যান্ড - ফ্রান্স - জার্মানি - আয়ারল্যান্ড

অর্থাৎ বেশ কয়েকটি প্রথমসারির দেশও ফিরে গিয়েছে ব্যালটে। ভারতে মূলত দু’টি সংস্থা ইভিএম তৈরি করে। তাদের মধ্যে রয়েছে ভারত ইলেকট্রনিক্স লিমিটেড ও ইলেকট্রনিক্স কর্পোরেশন অফ ইন্ডিয়া। এক একটি ইভিএমের আয়ু ১৫ বছর। ১৯৮৯ থেকে এখনও পর্যন্ত তিন ধরণের ইভিএম তৈরি হয়েছে। গোপনীয়তা রক্ষার জন্য বেশ কিছু পদ্ধতি নেওয়া হয় বলে কমিশনের দাবি। যেমন, মেশিনের সোর্স কোড থাকে মাত্র কয়েকজন ইঞ্জিনিয়ারের হাতে। তবে কোন কেন্দ্রে এই মেশিনগুলি পাঠান হবে, তা তাদের তথ্যে থাকে না। মেসিনের কন্ট্রোল ইউনিট থাকে বুথের প্রিসাইডিং অফিসারের হেফাজতে। মেশিনের ব্যালট ইউনিটে থাকা বোতামে ভোট দেওয়া হয়।

প্রক্রিয়া যতই নিরাপদ বলে দাবি করুক না কেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে তা মানতে রাজি নয় বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি। ২০১৯-এর ভোট ব্যালটে ফেরানোর জন্য তারা চাপ বাড়তেই থাকবে। এর জন্য ব্যালটে ফিরে যাওয়া দেশগুলিকেই হাতিয়ার করতে চায় তারা।

First published: January 24, 2019, 4:39 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर