Home /News /education-career /
Malda : বাবা ঝালমুড়ি বিক্রেতা! রাজ্যে মাদ্রাসায় মাধ্যমিকে প্রথম হয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আর্থিক সাহায্য চাইল সারিফা

Malda : বাবা ঝালমুড়ি বিক্রেতা! রাজ্যে মাদ্রাসায় মাধ্যমিকে প্রথম হয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আর্থিক সাহায্য চাইল সারিফা

বাবা পেশায় ঝালমুড়ি বিক্রেতা! রাজ্যে প্রথম মাদ্রাসা বোর্ডের মাধ্যমিক ছাত্রী সারিফা, গর্বিত পরিবার

বাবা পেশায় ঝালমুড়ি বিক্রেতা! রাজ্যে প্রথম মাদ্রাসা বোর্ডের মাধ্যমিক ছাত্রী সারিফা, গর্বিত পরিবার

Malda : রাজ্যের সেরা দুই ছাত্রীর দুজনেই ভাদো মুসলিম গার্লস মিশনের পড়ুয়া। দু'জনেই বটতলা আদর্শ হাইমাদ্রাসা থেকে এবারের পরীক্ষায় বসে।

  • Share this:

#মালদহ: মাদ্রাসা বোর্ডের মাধ্যমিক পরীক্ষার নজরকাড়া ফলাফল মালদহের। একই সঙ্গে প্রথম ও দ্বিতীয় স্থানে মালদহের দুই ছাত্রী। সোমবারই ২০২২ সালের মাদ্রাসা বোর্ডের মাধ্যমিক পরীক্ষার ফল আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা হয়। রাজ্যের সেরা দুই ছাত্রীর দুজনেই ভাদো মুসলিম গার্লস মিশনের পড়ুয়া। দু'জনেই বটতলা আদর্শ হাইমাদ্রাসা থেকে এবারের পরীক্ষায় বসে।

রাজ্যে মাদ্রাসা বোর্ডের মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রথম সারিফা খাতুনের প্রাপ্ত নম্বর ৭৮৬। বাবা উজির হোসেন ঝালমুড়ি বিক্রেতা। মা সোয়েদা বিবি গৃহবধূ। ভবিষ্যতে চিকিৎসক হতে চায় সারিফা। উচ্চশিক্ষার জন্য মুখ্যমন্ত্রীর সাহায্য চায় মাদ্রাসা পরীক্ষার প্রথম অধিকারিনী। পরিবারের আর্থিক অবস্থা স্বচ্ছল নয়। উচ্চশিক্ষায় সাহায্য করুন মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যসরকার। এমনটাই আর্জি জানিয়েছেন সারিফার বাবা উজির হোসেন এবং মা সোয়েদা বিবি। সারিফাও নিজে জানিয়েছেন, ভবিষ্যতে উচ্চশিক্ষার ইচ্ছে তাঁর। কিন্তু সেই খরচ বহন করতে পারবেন না তাঁর বাবা। তাই মুখ্যমন্ত্রীর কাছে সারিফা আর্থিক সাহায্যের আবেদন করেছে।

পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে ছোট সারিফা। করোনাকালেও পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতিতে কোনও কমতি ছিল না তার। রাজ্যে প্রথম দশের মধ্যে স্থান পাওয়ার আশা ছিল। তবে একেবারে 'প্রথম' একথা কখনও ভাবতে পারেনি, জানিয়েছে সারিফা। অন্যদিকে রাজ্যে মাদ্রাসা বোর্ডের মাধ্যমিক পরীক্ষায় দ্বিতীয় স্থান পেয়েছে ভাদো মুসলিম গার্লস মিশনের ইমরানা আফরোজ। বটতলা আদর্শ হাইমাদ্রাসা থেকে সেও সারিফার মতোই পরীক্ষায় বসেছিল।

মাদ্রাসা পরীক্ষার দ্বিতীয় ইমরানার প্রাপ্ত নম্বর ৭৭৫। ভবিষ্যতে স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক হতে চায় ইমরানা। মেয়ে বরাবর পড়াশোনায় আগ্রহী। প্রথম থেকেই ভাল ফলের আশা ছিল, জানিয়েছেন মা ইসমেতারা খাতুন।

আরও পড়ুন- ঋতুপর্ণের তৈরি নারী চরিত্র! কিংবদন্তির মৃত্যুবার্ষিকীতে ফিরে দেখা যাক

এদিকে ভাদো মুসলিম গার্লস মিশন থেকে সব মিলিয়ে চারজন রাজ্যের মেধা তালিকায় স্থান পেয়েছে। ঘটনায় উচ্ছ্বসিত মিশন কর্তৃপক্ষ। মিশনের অধ্যক্ষ মাসুদ আলম জানিয়েছেন, প্রথম স্থান পাওয়া সারিফা ছোটবেলা থেকেই মিশনের পড়ুয়া। সপ্তম শ্রেণি থেকে মিশনে যোগ দেয় ইমরানা। ওঁরা দুজন ছাড়াও নবম ও দশম স্থানে মিশনের দুই পড়ুয়া রয়েছে। ভবিষ্যতে আরও ভাল করতে ওঁরা উদ্বুদ্ধ করবে জানিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ।

সেবক দেবশর্মা

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

Tags: Malda

পরবর্তী খবর