Home /News /education-career /
Army Recruitment 2022: আশার আলো! করোনার বিধিনিষেধের জেরে ২ বছরের স্থগিতাদেশের পরে শুরু হতে পারে সেনা নিয়োগ

Army Recruitment 2022: আশার আলো! করোনার বিধিনিষেধের জেরে ২ বছরের স্থগিতাদেশের পরে শুরু হতে পারে সেনা নিয়োগ

দেখা যায় চাকরির জন্য যেকোনো প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় বসতে গেলে সবথেকে বেশি যা দরকার পড়ে, তা হল জেনারেল নলেজ। বইয়ের দুনিয়ায় এই সংক্রান্ত একাধিক বইও পাওয়া যায়, যেখানে প্রশ্ন-সহ উত্তর দেওয়া থাকে।

দেখা যায় চাকরির জন্য যেকোনো প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় বসতে গেলে সবথেকে বেশি যা দরকার পড়ে, তা হল জেনারেল নলেজ। বইয়ের দুনিয়ায় এই সংক্রান্ত একাধিক বইও পাওয়া যায়, যেখানে প্রশ্ন-সহ উত্তর দেওয়া থাকে।

Army Recruitment 2022: স্বল্পমেয়াদী পরিষেবায় সেনাদের অন্তর্ভুক্তির জন্য 'ট্যুর অফ ডিউটি' (tour of duty) নামে একটি নতুন নিয়োগ সংক্রান্ত নীতিও চূড়ান্ত করা হচ্ছে বলে সূত্রের খবর

  • Share this:

    কোভিডের কড়া বিধিনিষেধের কারণে গত দুই বছর ধরে সেনাবাহিনীতে কোনও নিয়োগ হয়নি। অবশেষে পুনরায় নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে। এমনকি স্বল্পমেয়াদী পরিষেবায় সেনাদের অন্তর্ভুক্তির জন্য 'ট্যুর অফ ডিউটি' (tour of duty) নামে একটি নতুন নিয়োগ সংক্রান্ত নীতিও চূড়ান্ত করা হচ্ছে বলে সূত্রের খবর। নিয়োগের সময়সূচি তৈরির কাজ এখনও চলছে। তবে আশা করা যাচ্ছে, চলতি বছরের অগাস্ট মাস থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত সারা দেশে নিয়োগ কর্মসূচি পরিচালিত হবে।

    আরও পড়ুন: জ্বলছে দাদার দেহ, পাশেই গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলন্ত বোন...বাসন্তীর শ্মশানে মর্মান্তিক ঘটনা

    সেনাবাহিনীতে নিয়োগ না-হওয়ার কারণে প্রথম দিকে একটা লোকবল সঙ্কট তৈরি হয়েছিল। যদিও আধিকারিকদের দাবি ছিল, এই সঙ্কটের পরিস্থিতি অবশ্য সেনার কাজের মানে সেরকম কোনও প্রভাব ফেলতে পারেনি। প্রতিটা ইউনিট খুব সুন্দর ভাবেই কাজকর্ম চালিয়ে গিয়েছে। এই নিয়োগ প্রসঙ্গে এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, নতুন নিয়োগ নীতির আসন্ন ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে নিয়োগের জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। তিনি আরও জানান, 'ট্যুর অফ ডিউটি' মডেলের অধীনে ছয় মাসের প্রশিক্ষণ-সহ চার বছরের জন্য অফিসার (পিবিওআর) পদে কর্মী নেওয়া হবে। আর মেয়াদ শেষ হলে এই সব কর্মীদের মধ্যে কিছু সংখ্যক কর্মীকে আরও এক বার স্ক্রিনিংয়ের পরে চাকরিতে রাখা হতে পারে। সেই সঙ্গে জানা গিয়েছে, রিলিজের সময় সেনাবাহিনীর এই কর্মীদের ভালো একটা প্যাকেজও দেওয়া হবে।

    প্রসঙ্গত সাধারণ নিয়োগ প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে সেনাদের চাকরির মেয়াদ সাধারণত ২০ বছর হয়। চল্লিশ বছর বয়স হওয়ার আগেই সেক্ষেত্রে অবসর নেন তাঁরা এবং সেই সঙ্গে থাকে পেনশনের সুবিধাও।

    সেনাবাহিনীতে বর্তমানে পিবিওআর ক্যাডারে প্রায় ১, ২৫,০০০ সৈন্যের অভাব রয়েছে, এছাড়াও প্রতি মাসে প্রায় ৫,০০০-এর বেশি হারে সৈন্যসংখ্যার ঘাটতি বাড়ছে।

    এই প্রসঙ্গে প্রাক্তন নর্দার্ন সেনা কম্যান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল ডিএস হুডা (অবসরপ্রাপ্ত) জানিয়েছেন, সেনাবাহিনীতে পুনরায় নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হতে চলেছে, এটা নিঃসন্দেহে খুবই ভালো খবর। কারণ জনবলের ঘাটতির কারণে সেনাবাহিনীর বিভিন্ন ইউনিটের অপারেশনাল কাজকে প্রভাবিত করছে। 'ট্যুর অফ ডিউটি' প্রসঙ্গে তাঁর মত, বাস্তবায়নের আগে এটা নিয়ে আর একবার চিন্তাভাবনা করলে ভালো হবে। এদিকে আবার সেনাবাহিনীর নিয়োগ নিয়ে অনেকেই ক্ষুব্ধ। কারণ তাঁদের অভিযোগ, কোভিড পরিস্থিতি স্থিতিশীল হওয়ার পরেও সরকার নিয়োগের উপর স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করেনি। কোভিডের আগে সেনাবাহিনী প্রতি বছর ১০০টি নিয়োগ প্রক্রিয়া পরিচালনা করা হত। কোভিডের আগে, সেনাবাহিনী ২০১৯-২০ সালে ৮০,৫৭২টি এবং ২০১৮-১৯ সালে ৫৩,৪৩১টি শূন্যপদ পূরণ করেছিল।

    সারা দেশের লক্ষাধিক তরুণ ক্রমাগত দাবি জানিয়ে আসছেন যে, দ্রুত নিয়োগ শুরু করা হোক এবং নিয়োগে স্থগিতাদেশ থাকার কারণে যাঁদের বয়স বেড়ে গিয়েছে, তাঁদের জন্য বয়সের যোগ্যতা অন্তত দুই বছর শিথিল করা হোক। সেনাবাহিনীতে জেনারেল ডিউটি সেনা হিসাবে নিয়োগ পেতে প্রার্থীদের বয়স সাড়ে ১৭ থেকে ২১ বছরের মধ্যে হতে হবে। নিয়োগ প্রক্রিয়ার এই বিরল স্থবিরতা দেশ জুড়ে যুবকদের মধ্যে একটি সম্পূর্ণ প্রজন্মের আশাকে ধূলিসাৎ করে দিয়েছে বলে মত অনেকেরই। যদিও কর্মকর্তাদের একাংশের দাবি, প্রযুক্তির উন্নত ব্যবহারের কারণে কম সংখ্যক সেনাতেও তাঁরা কাজ চালিয়ে নিতে সক্ষম। এছাড়াও এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে তাঁরা আগামী দিনেও এই সেনা সংখ্যার ঘাটতি পূরণ করতে চাইছেন।

    First published:

    Tags: Recruitment 2022

    পরবর্তী খবর