Home /News /darjeeling /
প্রকৃতির কোলে কিছুটা সময় উপভোগ করতে ঘুরে আসুন কালিম্পং-এর দাঁড়াগাও

প্রকৃতির কোলে কিছুটা সময় উপভোগ করতে ঘুরে আসুন কালিম্পং-এর দাঁড়াগাও

দাঁড়াগাও

দাঁড়াগাও বারমিঘের একতা হোম ষ্টে 

চারিদিক দিক দিয়েই পাহাড় ঘেরা। পাহাড়ের নীচে দিয়ে বয়ে চলেছে তিস্তা নদী, যার একদিক পড়ছে সিকিমের মধ্যে আর একদিক পড়ছে দার্জিলিং-এর মধ্যে।

  • Share this:

    #কালিম্পং: জীবনের চলার দৌড়ে ছুটতে ছুটতে মাঝেমাঝে শরীর অপেক্ষা মন বড্ড ক্লান্ত হয়ে যায়। এক টুকরো নির্জনতার জন্য হয়তো কখনও বারান্দার এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে অহেতুক ছুটে চলা। যদি পাওয়া যায় ক্ষনিকের শান্তি, যদি পাওয়া যায় এক কর ভালো থাকার ওষুধ। নিরিবিলিতে পাহাড়-পর্বতের অসম্ভব সুন্দর পরিবেশে ঘুরতে যেতে ইচ্ছে করছে মনের মানুষের সাথে ? পরিবারের সাথে পুজোর কটাদিন একান্তে কাটাতে মন চাইছে ? তাহলে আপনার গন্তব্য হওয়া উচিত দার্জিলিং বা কালিম্পঙ জেলার বেশ কিছু স্বল্প পরিচিত পাহাড়ি গ্রামে।

    পাহাড়! একটি ছোট্ট শব্দ হলেও এই পাহাড়ে ভ্রমণ পিপাসু বাঙালিরা ছুটে চলে যান বারবার। তবে দার্জিলিং হোক বা সিকিম, অফ বিট জায়গা সকলেরই এখন পছন্দের। এসব জায়গায় থাকলে আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনি প্রকৃতির কত কাছাকাছি চলে এসেছেন। সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশের সাথে আপনি এই পাহাড়ি গ্রামে থেকে হিমালয় পর্বতমালা তথা কাঞ্চনজঙ্ঘার অপূর্ব দৃশ্য দেখার ও সুযোগও পাবেন।

    চারিদিক দিক দিয়েই পাহাড় দিয়ে ঘেরা। পাহাড়ের নীচে দিয়ে বয়ে চলেছে তিস্তা নদী, যার একদিক পড়ছে সিকিমের মধ্যে আর একদিক পড়ছে দার্জিলিং-এর মধ্যে। এখানে দর্শনীয় স্হান বলতে ব্রিটিশ বাংলো, শিব ধাম, হনুমান মন্দির ও একটি হিমালিয়া পার্ক আছে। হিমালিয়া পার্ক থেকে ভ্রমণ পিপাসু পর্যটকরা তারা পাহাড় কে উপভোগ করতে পারবেন। পাশাপাশি থাকছে থুপ্পা খাবার থাকে সকালে। পাশাপাশি থাকে পাহাড়ের স্পেশাল মোমো। এছাড়াও ক্যাম্প ফায়ারের মধ্যে দিয়ে স্হানীয় চিকেন খেতে পারবেন। জন প্রতি খরচ দৈনিক ১২০০ টাকা। এর মধ্যে থাকে থাকা ও খাওয়া। সকালে জল খাবার, দুপুরে ভাত, সন্ধ্যায় চা টিফিন ও রাতের খাবার।

    আসতে গেলে কি করতে হবে

    কলকাতা থেকে শিলিগুড়ি বা নিউ জলপাইগুড়ি ষ্টেশনে যে কোন ট্রেনে এসে নামতে হবে। গাড়ি ভাড়া বারমেঘ দাঁড়াগাও আসতে হবে। এছাড়াও শেয়ারে আসা যেতে পারে। শেয়ারে আসতে গেলে নিউ জলপাইগুড়ি বা শিলিগুড়ি থেকে কালিম্পং যেতে হবে। তারপরে কালিম্পং থেকে মানসুন কাশিং বলে শেয়ারে টেক্সি পাওয়া যায়। এই ট্যাক্সি করে বারমেঘ আসা যাবে। বারমেঘ বাসস্ট্যান্ডের পাশ দিয়ে পাহাড়ের কোলে চলে এসেছে সেই ছোট্ট গ্রাম টি বারমেঘ। যেখানে অবস্থিত একতা হোম ষ্টে সহ বিভিন্ন হোম ষ্টে তে। ফোন করে বুকিং করতে পারেন।

    এছাড়াও চারখোল,বিদ্যাং,পাবং,জোড়পুখরি, চটকপুর,তিনচুলে-গুম্বাদারা, সিটং, বিজনবাড়ি, দাওয়াইপানি, মাইরুং গাঁও, সামলবং, তাবাকোশি,কালেজ ভ্যালি, লুংচু, ইছে গাঁও, ঝেপি, দিলারাম, পানবো, ছোট মাংওয়া, বড় মাংওয়া, লিংসে, রারাবং, মিরিক, গোপালধারা, ঋষিখোলা, রোলেপ, কোলেখাম, দোবান উপত্যকা, রামধুরা, হালানে গাওঁ, রেলি, তাকভার, লামাগাঁও, বুনকুলুং, রিশপ , লাভা, দারাগাওঁ, লোলেগাঁও, মূলখাগড়া , মানসং এবং আরও অনেক অজানা বা স্বল্প পরিচিত পাহাড়ি গ্রামে অনেক ছোট ছোট হোম ষ্টে আছে নিরিবিলি তে সময় কাটানোর জন্য।

    কৌশিক অধিকারী

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published:

    Tags: Kalimpong, Tourist

    পরবর্তী খবর