corona virus btn
corona virus btn
Loading

হিটলারের সময়ের ভয়ঙ্কর মাদক ‘Yaba’ মিলল কলকাতায় ! কী এই ট্যাবলেট ?

হিটলারের সময়ের ভয়ঙ্কর মাদক ‘Yaba’ মিলল কলকাতায় ! কী এই ট্যাবলেট ?
Yaba Tablets

যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধির পাশাপাশি শরীর চনমনে রাখতে এই ইয়াবা ট্যাবলেট কলকাতায় এক শ্রেণীর মানুষের কাছে এখন দারুণ জনপ্রিয় বলে জানা গিয়েছে ৷

  • Share this:

#কলকাতা: ক'দিন আগেই আটার প্যাকেটে করে মাদক পাচারের ছক বানচাল করেছে কলকাতা পুলিশের এসটিএফ। তারপরই আবার ফের কলকাতায় কোটি টাকার মাদক-সহ গ্রেফতার তিনজন। ধৃতদের থেকে ৭৪ হাজার পিস নিষিদ্ধ মাদক 'ইয়াবা' ট্যাবলেট মিলেছে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মান সেনাদের চাঙ্গা রাখার জন্য হিটলারের তৈরি উত্তেজক ট্যাবলেট এবার ঢুকে পড়ছে পশ্চিমবঙ্গে। আগে অন্য নামে তা বিক্রি হলেও এখন মায়ানমারে দেদার তৈরি হচ্ছে ‘ইয়াবা’ ট্যাবলেট। প্রশাসনের উদ্বেগ বাড়িয়ে এবার শহর কলকাতায় মিলল ৭৪ হাজার মাদক মেশানো ট্যাবলেট।

বৃহস্পতিবার তারাতলা এলাকার নেচার পার্কের কাছ থেকে অসম নম্বর প্লেটের একটি সন্দেহজনক গাড়ি আটক করা হয়। গাড়ি পরীক্ষার সময়েই মেলে প্রায় আড়াই কোটি টাকার এই মাদক। গোয়েন্দাদের কাছে গোপনসূত্রে খবর ছিল, ভিনরাজ্যের নম্বরপ্লেট লাগানো গাড়িতে মাদক আনা হচ্ছে। সেই সূত্রে এই গাড়িটিকে আটক করে খুঁটিয়ে পরীক্ষা করতেই এই চক্রের পর্দাফাঁস হয়।

এসটিএফ সূত্রে খবর, ধৃতদের মধ্যে দু’জন মনিপুরী নাগরিক। তৃতীয় অভিযুক্ত মালদহের বাসিন্দা। ধৃতদের জেরা করে জানা গিয়েছে, এরা আন্তর্জাতিক মাদক পাচার চক্রের সঙ্গে যুক্ত। মায়ানমার থেকে ইয়াবা ট্যাবলেট এনে অসম থেকে উত্তরবঙ্গ-মালদহ হয়ে কলকাতায় নিয়ে আসা হয়েছিল। কলকাতা থেকে ভিনরাজ্য এবং বাংলাদেশেও এই মাদক পাচারের ছক ছিল এই চক্রের।

যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধির পাশাপাশি শরীর চনমনে রাখতে এই ইয়াবা ট্যাবলেট কলকাতায় এক শ্রেণীর মানুষের কাছে এখন দারুণ জনপ্রিয় বলে জানা গিয়েছে ৷

অভিনব কায়দায় গাড়ির দরজার ফাঁকে এই মাদকের প্যাকেট ভরে নিয়ে নিয়ে আসছিল চক্রীরা। তবে পুলিশ বা কোনও গোয়েন্দা সংস্থা যাতে তাদের গতিবিধি বুঝতে না পারে সেইজন্য মাঝপথে গাড়ি বদল করা হত। এক্ষেত্রে মায়ানমার থেকে মাদক অসম পর্যন্ত এনে গাড়ি বদল করা হয়েছিল।

এসটিএফের এক কর্তা বলেন, "এই চক্রটি একই রুট ব্যবহার করে মাদক পাচার করছিল। কারা কারা এই চক্রে জড়িত তা আমরা তদন্ত করে বের করব।"

সূত্রের খবর, ভিনরাজ্য ছাড়াও বাংলাদেশে এই ইয়াবা ট্যাবলেটের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। তাই মায়ানমার থেকে এই মাদক এনে কলকাতাকে ব্যবহার করে বহুবার পাচার হয়েছে। অতীতে এরকম চক্র একাধিকবার গ্রেফতার হলেও কেন বন্ধ হচ্ছে না মাদক পাচার তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। লালবাজারের এক কর্তা বলেন, "বারবার এই চক্রের পাণ্ডাদের গ্রেফতার করা হলেও এরা প্রত্যেকবার নতুন পদ্ধতিতে মাদক পাচার করে। আমরা সবসময় নজর রাখছি।"

First published: February 22, 2020, 2:39 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर