Assam Gang Rape: অ্যাম্বুল্যান্স না পেয়ে হেঁটে ২৫ কিমি দূরে বাড়ি যাওয়ার মাঝপথে 'গণধর্ষণ' করোনা রোগীকে!

অ্যাম্বুল্যান্স না পেয়ে হেঁটে ২৫ কিমি দূরে বাড়ি যাওয়ার মাঝপথে 'গণধর্ষণ' করোনা রোগীকে!

করোনাভাইরাসের পরীক্ষা (Covid-19 Test) করিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মেয়ের সামনে মা-কে গণধর্ষণের (Gangrape) অভিযোগ দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে অসমের (Assam) চড়াইদেও জেলায়, হাসপাতাল থেকে ফেরার পথে।

  • Share this:

    #চড়াইদেও: করোনাভাইরাসের পরীক্ষা (Covid-19 Test) করিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মেয়ের সামনে মা-কে গণধর্ষণের (Gang Rape) অভিযোগ দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে অসমের (Assam) চড়াইদেও জেলায়, হাসপাতাল থেকে ফেরার পথে। পুলিশ সূত্রে খবর, চা বাগানের (Tea Garden) কর্মী ওই মহিলাকে রাস্তা আটকে দুই ব্যক্তি পাশের চা বাগানের ভিতর টেনে নিয়ে যায়। সেখানেই তাঁকে গণধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ। হাসপাতাল থেকে করোনার নেগেটিভ রিপোর্ট নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন মা ও মেয়ে।

    গত ২৭ মে ঘটনাটি ঘটে। পুলিশের কাছে দু'দিন পর অভিযোগ জানান নিগৃহীতা। মহিলার মেয়ের দাবি, 'কয়েকদিন আগে আমাদের পরিবারের প্রত্যেকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিল। আমরা প্রত্যেকে আইসোলেশনে ছিলাম। বাবা ও মায়ের শরীর খারাপ হওয়ায় তাঁদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। আমিও পরে হাসপাতালে ভর্তি হই।' পরীক্ষার ফল নেগেটিভ হওয়ার পরই তাঁদের বাড়ি চলে যেতে বলা হয়।

    মেের আরও দাবি, 'আমরা বাড়ি ফেরার জন্য অ্যাম্বুল্যান্সের খোঁজ করেছিলাম। কিন্তু হাসপাতাল তা দিতে রাজি হয়নি। আমাদের দুপুর আড়াইটে সময় হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়। আমরা জিজ্ঞেস করেছিলাম যে, যেহেতু বাইরে করোনার কারণে কার্ফু চলছে, আমরা কি রাতটা হাসপাতালে কাটিয়ে কাল সকালে বেরোতে পারি? হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ না করে দেন। এর পরই আমরা হাঁটতে শুরু করি রাস্তায়। তার খানিক পর থেকেই দুই ব্যক্তি আমাদের ধাওয়া শুরু করে।' পুলিশ সূত্রে খবর, নিগৃহীতার মেয়ে কোনও ক্রমে সেখান থেকে পালিয়ে গ্রামে গিয়ে খবর দেন। হাসপাতাল থেকে গ্রামের বাড়ির দূরত্ব প্রায় ২৫ কিলোমিটার। প্রায় দু'ঘণ্টা পর মা-কে খুঁজে পান তাঁরা। চড়াইদেওয়ের সিনিয়র পুলিশ অফিসারের দাবি, 'আমরা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছি। মহিলার মেডিক্যাল পরীক্ষা করানো হয়েছে।'

    অসমের এই ঘটনায় নড়চড়ে বসেছে প্রশাসন। রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী কোভিড ১৯ নেগেটিভ রোগীদের বাড়ি ফেরার পথে অ্যাম্বুল্যান্স দেওয়াল বাধ্যতামূলক বলে ঘোষণা করেছেন। অসমের টি ট্রাইব স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন এই ঘটনায় দোষীদের দ্রুত গ্রেফতার দাবি করেছে। এই ঘটনায় হাসপাতালের গাফিলতির অভিযোগ তুলেছেন তাঁরা। কী ভাবে বিকেলে রোগীদের হাসপাতাল থেকে ২৫ কিলোমিটার হেঁটে বাড়ি ফেরার সিদ্ধান্ত জানাল হাসপাতাল, তা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: