মহিলাকে মাঝরাস্তায় নারকীয় গণধর্ষণ, প্রমাণ লোপাটে ধর্ষিতাকে জ্যান্ত জ্বালিয়ে দিল বাবা-ছেলে, তারপর...

মহিলাকে মাঝরাস্তায় নারকীয় গণধর্ষণ, প্রমাণ লোপাটে ধর্ষিতাকে জ্যান্ত জ্বালিয়ে দিল বাবা-ছেলে, তারপর...

গৃহবধূকে গণধর্ষণের পর জ্যান্ত জ্বালিয়ে দিল ধর্ষক বাবা-ছেলে। প্রতীকী ছবি।

বাড়ি ফেরার রাস্তায় তিনি যে ঠেলাগাড়িতে ছড়েছিলেন, সেই গাড়ির চালক এবং তাঁর ছেলে মিলে তাঁকে গণধর্ষণ করে। এরপরে প্রমাণ লোপাট করতে তাঁর গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়।

  • Share this:

    #সীতাপুর: বাপের বাড়ি থেকে বাড়ি ফেরার জন্য কাঠের ঠেলা গাড়িতে উঠেছিলেন বছর তিরিশের এক গৃহবধূ। কিন্তু বাড়ি ফেরার বদলে তীব্র মানসিক, শারীরিক যন্ত্রণা নিয়ে হাসপাতালে স্থান হয়েছে তাঁর। গৃহবধূর অভিযোগ, বাড়ি ফেরার রাস্তায় তিনি যে ঠেলাগাড়িতে ছড়েছিলেন, সেই গাড়ির চালক এবং তাঁর ছেলে মিলে তাঁকে  গণধর্ষণ করে। এরপর প্রমাণ লোপাট করতে  তাঁর গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। যদিও কোনওমতে প্রাণ রক্ষা পেয়েছে তাঁর। তবে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে তাঁর। গৃহবধূর অভিযোগের ভিত্তিতে ঠেলাগাড়ির চালক এবং তার ছেলে, দুই ধর্ষকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

    নিদারুণ লজ্জার ঘটনাটি ফের উত্তরপ্রদেশের। রাজ্যের সীতাপুরের মিশ্রিখার নৈমিশারণ্য এলাকায় মহিলার শ্বশুরবাড়ি। বৃহস্পতিবার বাপের বাড়ি সিধৌলি থেকে তিনি মিশ্রিখায় শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার জন্য বেরিয়েছিলেন। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়্যেছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় থানায় টোল ফ্রি হেল্পলাইন ১১২ নম্বরে একটি ফোন আসে। সেখানে জানানো হয় একটি মহিলাকে ধর্ষণ করে তাঁকে দু'জন মিলে জীবন্ত জ্বালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা করেছে। তৎক্ষণাৎ ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ। এরপর মহিলাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতাল সুরে জানা গিয়েছে, ধর্ষিতার শরীরের ৩০ শতাংশ পুড়ে গিয়েছে। তবে আপাতপ্ত তিনি বিপন্মুক্ত।

    সীতাপুরের পুলিশ সুপার আরপি সিং জানিয়েছেন, ধৃতদের মধ্যে একজন ৫৫ বছরের ব্যক্তি এবং তাঁর ছেলে।  দু'জনকেই গ্রেফতার করা হয়েছে। তাঁদের জেরা করা হচ্ছে। মহিলার শারীরিক পরীক্ষায় ধর্ষণের প্রমাণ মিলেছে। ঘটনার তদন্ত চলছে। ঘটনার জেরে এলাকায় প্রবল উত্তেজনা তৈরি হয়। অভিযুক্তদের কঠোর শাটির দাবি জানিয়েছেন নিগৃহীতা মহিলার প্রতিবেশী এবং পরিজনেরা।

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: