• Home
  • »
  • News
  • »
  • crime
  • »
  • WIFE AND HER LOVER ARRESTED AFTER HUSBAND AND CHILDREN KILLED DD

ভিনরাজ্যে কাজে স্বামী, স্ত্রী ব্যস্ত পরকীয়ায়া, স্বামী-সন্তানের মতদেহ উদ্ধার, তারপর...

Photo- Representative

স্ত্রীর সঙ্গে বিবাহবর্হিভূত সম্পর্কের জেরে দুই শিশু সহ মৃত তিন,গ্রেফতার স্ত্রী ও তার প্রেমিক

  • Share this:

#রায়গঞ্জ:  পঞ্জাবের পাঠানকোট এলাকায় মৃত তিনজনের দেহ আজ রায়গঞ্জে আনা হল। মৃতদেহ রায়গঞ্জে পৌছে গ্রামবাসিরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। পরিবারের লোকজন সহ এলাকার মানুষ অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন। মৃতের বাবার অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ স্ত্রী ও তার প্রেমিককে করেছে।

জানা গেছে, রায়গঞ্জ ব্লকের হাতিয়া পালইবাড়ি গ্রামের বাসিন্দা মংলু শেখ স্ত্রী এবং দুই ছেলে এক মেয়েকে নিয়ে পঞ্জাবে শ্রমিকের কাজ করতে যায়। লকডাউনের সময় মংলুর বাবা সলিম শেখ বাড়ি ফিরে এলেও সে বাড়ি ফেরে নি। মংলুর স্ত্রী মলিনা বেগম স্থানীয় এক শ্রমিকের সঙ্গে বিবাহবর্হিভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিল। দীর্ঘদিন যাবদ মংলুর সঙ্গে এনিয়ে বিবাদ চলছিল। মাস দুয়েক আগে মলিনা সেই ছেলের সঙ্গে পালিয়ে যায়। দুই ছেলে একজনের বয়স আট অন্যজনের বয়স ছয় বছর।ছোট ছেলে মাকে পেতে মরিয়া ছিল।

ছেলেকে মায়ের কাছে পাঠাতে মংলু তৎপর ছিল। গত সোমবার সকালে মংলু এবং তার দুই ছেলের ঝুলন্ত অবস্থায় দেহ উদ্ধার হয়। অভিযোগ মলিনার প্রেমিক কিষান ও তার দলবল ঘরে ঢুকে মেয়েকে একটি ঘরে আটকে রেখে তাদের হত্যা করে ঝুলিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়।

এ খবর রায়গঞ্জে পৌছাতেই মংলুর পরিবারের লোকেরা পঞ্জাবে পৌছান। মংলুর স্ত্রী মলিনা ও তাঁর প্রেমিকা কিষানের বিরুদ্ধে পাঠানকোট থানায় অভিযোগ দায়ের করেন মৃত ব্যাক্তির বাবা সলিম শেখ।সেই অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ দুইজনকেই গ্রেফতার করে বলে জানা গেছে। রায়গঞ্জ হাতিয়া পালইবাড়ির বাসিন্দাদের সহয়তায় শুক্রবার দেহ তিনটি রায়গঞ্জে আনা হয়। অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি পান সেব্যাপারে রাজ্যের  মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য মৃত ব্যাক্তির বোন রেহানা খাতুন আবেদন জানিয়েছেন।  গ্রামে দেহ পৌছাতেই গ্রামবাসীরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। স্থানীয় বাসিন্দা মহঃ আজিজ খান জানান, দুঃস্থ পরিবার। ভিন রাজ্যে কাজ করেই সংসার প্রতিপালন করেন। মৃত ব্যাক্তির স্ত্রীর সঙ্গে পঞ্জাবে কোন এক ব্যাক্তির সম্পর্ক তৈরি হয়েছিল। তার পরিণতি  হল এই ছোট্ট দুটি শিশু সহ তিনজন প্রাণ গেল। পঞ্জাব পুলিশ ঘটনার তদন্ত করে অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করেন তার দাবি জানান। রায়গঞ্জ পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য গৌতম দাস জানান, ঘটনাটি খবর পেয়ে দেহ আনার উদ্যোগ নেন।গ্রামবাসীদের সকলের সহযোগিতায় দেহ রায়গঞ্জে আনা হয়েছে। পাঞ্জাব পুলিশ ঘটনার তদন্ত করছে।

Uttam Paul

Published by:Debalina Datta
First published: