বিহারের কিষানগঞ্জ থানার পুলিশ অফিসার খুনের ঘটনায় প্রেফতার আরও ২

বিহারের কিষানগঞ্জ থানার পুলিশ অফিসার খুনের ঘটনায় প্রেফতার আরও ২

ধৃতরা হলেন আব্দুল মালিক এবং মহম্মদ ইসরাইল।

ধৃতরা হলেন আব্দুল মালিক এবং মহম্মদ ইসরাইল।

  • Share this:

# পাঞ্জিপাড়া:  বিহারের কিষানগঞ্জ থানার আই সি অশ্বিনী কুমার খুনের ঘটনায় আর দুইজনকে গ্রেফতার করল গোয়ালপোখর থানার পুলিশ। পুলিশ খুনের ঘটনায় গ্রেপ্তারের সংখ্যা পাঁচ।  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদমর্যদার এক অফিসারকে ঘটনার পূর্নাঙ্গ ঘটনার তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছেন ইসলামপুর পুলিশ জেলার পুলিশ সুপার শচীন মক্কার।শুক্রবার রাতে উত্তর দিনাজপুর জেলায় গোয়ালপোখর থানার পান্তাপাড়া গ্রামে আসামী ধরতে এসে দুষ্কৃতী  হামলায় মৃত্যু হয় বিহারের কিষানগঞ্জ থানার এক পুলিশ ইন্সপেক্টরের। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য হয়েছিল। জানা গেছে, বিহারের অসামাজিক কাছে যুক্ত থাকার অভিযোগ ছিল উত্তর দিনাজপুর জেলার গোয়ালপোখর থানার পান্তপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মহঃ ফিরোজ আলমের বিরুদ্ধে। শনিরার রাতে বিহারের কিষানগঞ্জ থানার আই সি অশ্বিনী কুমারের নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী পাঞ্জিপাড়া ফাঁড়িতে আসেন। বিহার বাংলা যৌথ অভিযানে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের উদ্যোগ নিয়েছিল বিহার পুলিশ। থানা এবং ফাঁড়ির পুলিশ নির্বাচনের কাজে ব্যাস্ত থাকায় বিহার পুলিশকে সহায়তা করতে রাজী হন নি। পাঞ্জিপাড়া ফাঁড়ির পুলিশ তাদের সহায়তা না রাজী না হওয়ায় বিহার পুলিশ ফাঁড়ি ছেড়ে বেরিয়ে যান।পাঞ্জিপাড়া ফাঁড়ি থেকে বেরিয়েই তারা আচমকাই মহঃ ফিরোজ আলমের বাড়িতে হানা দেয়। পুলিশ দুস্কৃতি ধরতে গ্রামে গেলেও গ্রামবাসিরা পুলিশকে ঘেরাও করে ব্যাপক মারধোর করে বলে অভিযোগ।ঘটনাস্থলেই কিষানগঞ্জ থানার আই সি অশ্বিনী কুমারের মৃত্যু হয়।এই ঘটনার খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন পাঞ্জিপাড়া ফাঁড়ির পুলিশ।

মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ইসলামপুর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।।খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে ছুটে এসেছে বিহার  পুলিশের উচ্চ পদস্থ পুলিশ আধিকারিকরা। বিহারের পূর্নিয়া রেঞ্জের আইজি সুরেশ প্রসাদ জানিয়েছেন, বিহার পুলিশের পক্ষ থেকে লিখিতভাবে অভিযোগ জানাবেন। আসেন উত্তর দিনাজপুর জেলার ইসলামপুর  পুলিশ জেলার পুলিশ সুপার শচীন মক্কার সহ উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা। ম্যাজিষ্ট্রেট পর্যায়ে  ময়নাতদন্তের করে গোয়ালপোখর থানার পুলিশ মৃতদেহ বিহার পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। কর্তব্যরত অবস্থায় কিষানগঞ্জ থানার আই সি মৃত্যু হওয়ায় কিষানগঞ্জ থানায় রাষ্ট্রীয় মর্যদা গান স্যালুট দেওয়া হয়।  দুস্কৃতি হামলায় বিহার পুলিশের খুনের ঘটনায় গতকাল দুপুরেই পান্তাপাড়া গ্রামে পুলিশী অভিযান শুরু করে। মূল অভিযুক্ত ফিরোজ আলমকে গ্রেপ্তারের করে।পরে তার ভাই আবুজার আলম এবং তার মা সাহেনূর খাতুনকে গ্রেপ্তার করেছিল।গতকাল রাতে পুলিশ আরো দুই অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে। ধৃতরা হলেন আব্দুল মালিক এবং মহম্মদ ইসরাইল।প্রত্যেকের বাড়ি পান্তাপাড়া গ্রামে।ইসলামপুর পুলিশ জেলার পুলিশ সুপার শচীন মক্কার জানান, উত্তর দিনাজপুর জেলার গোয়ালপোখর থানার পান্তাপাড়া গ্রামে মোটরবাইক চুরির আসামীকে ধরতে এসেছিল কিষানগঞ্জ থানার পুলিশ। কিষানগঞ্জ থানার পুলিশ অশ্বিনী কুমারের নেতৃত্বে পুলিশ বাহিনী।দুস্কৃতিকে গ্রেপ্তারে বিহার পুলিশ পাঞ্জিপাড়া পুলিশের সহায়তা চাইলেও নির্বাচনী কাজে পাঞ্জিপাড়া পুলিশ ব্যাস্ত থাকায় পাঞ্জিপাড়া ফাঁড়ির পুলিশ তাদের সহয়তা করতে রাজী হন নি।ফাঁড়ি থেকে বেরিয়েই তারা আচমকা দুস্কৃতি ধরতে পান্তাপাড়া গ্রামে চলে যান। অধিকরাতে পুলিশ অভিযান করায় গ্রামবাসিরা ঘিরে ধরে। মারধোর, ধস্তাধস্তিতেই কিষানগঞ্জ থানার আই সি মৃত্যু হয়।বিহার পুলিশের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়।ময়নাতদন্তে প্রার্থমিক রিপোর্টে  জানা গেছে, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েই তার মৃত্যু হয়েছে।বিহার পুলিশের অভিযোগের ভিত্তিতে এখন পর্যন্ত পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।বাকিদের খোঁজে তল্লাশী চলছে।

Uttam Paul

Published by:Debalina Datta
First published:

লেটেস্ট খবর