কেজরিওয়ালের মেয়েকে প্রতারণার অভিযোগে পুলিশের জালে ৩

কেজরিওয়ালের মেয়েকে প্রতারণার অভিযোগে পুলিশের জালে ৩
অরবিন্দ কেজরিওয়াল

এই মুহূর্তে ভারতের সব থেকে সক্রিয় স্ক্যাম এটিই। বিগত কিছু বছর ধরেই চলে আসছে এই ধরনের প্রতারণা। পেমেন্টের জন্য ভুল QR কোডের কারণেই এই বিরাট অঙ্কের টাকা হারিয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর একমাত্র মেয়ে।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: ওএলএক্স (OLX)-এ সোফা বিক্রি করতে দিয়ে প্রতারণার শিকার হলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের মেয়ে হর্ষিতা। দিল্লির সাইবার অপরাধ দমন শাখায় অভিযোগ করেন কেজরি-কন্যা হর্ষিতা। এর পরই পুলিশের জালে ধরা পড়েছে তিন অভিযুক্ত।

    পুলিশ সূত্রে খবর, 'অরবিন্দ কেজরিওয়ালের মেয়েকে আর্থিক প্রতারণার অভিযোগে তিন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের নাম সাজিদ, কপিল ও মানবেন্দ্র। ই-কমার্স ওয়েবসাইট খুলে প্রতারণা করার মূল কারিগর আপাতত পলাতক। তাঁর খোজে তল্লাশি চালানো হচ্ছে।'

    অরবিন্দ-কন্যা হর্ষিতা জানিয়েছেন যে, স্ক্যামারদের খপ্পড়ে পড়ে তিনি ৩৪ হাজার টাকা খুইয়েছেন। এই মুহূর্তে ভারতের সব থেকে সক্রিয় স্ক্যাম এটিই। বিগত কিছু বছর ধরেই চলে আসছে এই ধরনের প্রতারণা। পেমেন্টের জন্য ভুল QR কোডের কারণেই এই বিরাট অঙ্কের টাকা হারিয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর একমাত্র মেয়ে। সোফা বিক্রি করে কথা ছিল টাকা পাওয়ার, সেই জায়গায় টাকা খোয়ালেন তিনি। পুলিশের কাছে ঠিক এমনই অভিযোগ করেছেন দিল্লি আইআইটি পাস-আউট কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার হর্ষিতা কেজরিওয়াল।


    শুধুই কেজরিওয়ালের কন্যা নয়। এ দেশে প্রতিদিন প্রতি মুহূর্তে বহু মানুষ এই ধরনের প্রতারণার ফাঁদে পড়ছেন। পুলিশ জানিয়েছে, 'এক ব্যক্তি নিজে ক্রেতা সেজে হর্ষিতাকে তাঁর অ্যাকাউন্টে একটি বার কোড স্ক্যান করে অল্প পরিমাণ টাকা পাঠাতে বলে। বার কোড স্ক্যান করা মাত্রই হর্ষিতার অ্যাকাউন্ট থেকে প্রথমে ২০ হাজার এবং পরে ১৪ হাজার টাকা কেটে যায়।' শেষ পর্যন্ত তিন জনকে গ্রেফতার করতে পেরেছে দিল্লির সাইবার ক্রাইম শাখার পুলিশ।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published:

    লেটেস্ট খবর