ক্রাইম

corona virus btn
corona virus btn
Loading

প্রথমে লিভ ইন সঙ্গী, তার পর আরও ৯ খুন! তেলেঙ্গানায় যুবককে ফাঁসির সাজা দিল আদালত

প্রথমে লিভ ইন সঙ্গী, তার পর আরও ৯ খুন! তেলেঙ্গানায় যুবককে ফাঁসির সাজা দিল আদালত
প্রতীকী ছবি৷
  • Share this:

#তেলেঙ্গানা: প্রথমে নিজের লিভ ইন পার্টনারকে চলন্ত ট্রেন থেকে ফেলে দিয়ে খুন৷ সেই হত্যাকাণ্ড চাপা দিতে আরও ৯টি খুন৷ পর পর খুনে অভিযুক্ত এক যুবককে মৃত্যুদণ্ডের সাজা শোনাল তেলেঙ্গানার একটি আদালত৷ সঞ্জয় কুমার যাদব নামে ২৪ বছরের অভিযুক্ত এই যুবক আদতে বিহারের বাসিন্দা৷ কর্মসূত্রে বছর ছয়েক আগে তেলঙ্গানার ওয়ারেঙ্গেলে যায় সে৷

তবে শুধু দশটি খুন নয়, অভিযুক্ত এই যুবকের বিরুদ্ধে নিজের লিভ ইন পার্টনারের নাবালিকা মেয়েকে ধর্ষণেরও অভিযোগ রয়েছে৷ অভিযুক্তের মোবাইল ফোনে থাকা ভিডিও থেকে তার প্রমাণ পেয়েছে পুলিশ৷ ফলে খুনের অভিযোগ ছাড়াও তার বিরুদ্ধে পকসো আইনে মামলা চলছে৷

টাইমস অফ ইন্ডিয়া-তে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী, মার্চ মাসে অন্ধ্রপ্রদেশে নিজের লিভ ইন পার্টনারকে প্রথমে খুন করে ওই যুবক৷ তার পরে একে একে আরও ৯টি খুন করে সে৷ যার মধ্যে একই পরিবারের ৬ জন রয়েছে৷ যেহেতু নিজের লিভ ইন পার্টনারকে সে অন্ধ্রপ্রদেশে খুন করেছিল, তাই সেই মামলাও আলাদা ভাবে চলছে৷

জানা গিয়েছে বিহারের বাসিন্দা ওই যুবক ওয়ারেঙ্গেলে বস্তা তৈরির কারখানায় কাজ করত৷ সেখানেই পশ্চিমবঙ্গ থেকে ওয়ারেঙ্গেলে কাজ করতে আসা এক সহকর্মীর পরিবারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয় তাঁর৷ ওই মহিলা সহকর্মীর এক আত্মীয়ার সঙ্গে যুবকের সম্পর্ক গড়ে ওঠে৷ ওই যুবতী নিজের তিন মেয়েকে নিয়ে ওয়ারেঙ্গেলে থাকত এবং অন্যান্য কর্মীদের রান্না করে দিত৷ কিন্তু সঞ্জয়কে নিজের কিশোরী মেয়ের সঙ্গে ঘোরাফেরা করতে দেখে আপত্তি জানায় ওই যুবতী৷ এর পরই ওই যুবতীকে ফাঁদে ফেলতে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দেয় সঞ্জয়৷

নিজের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আলাপ করানোর জন্য সঞ্জয়কে নিয়ে মার্চ মাসে পশ্চিমবঙ্গগামী একটি ট্রেনে ওঠেন ওই যুবতী৷ কিন্তু অভিযোগ, ট্রেনটি অন্ধ্রপ্রদেশের পশ্চিম গোদাবরী জেলায় পৌঁছতেই বাটার মিল্কের মধ্যে মাদক মিশিয়ে ওই যুবতীকে খেতে দেয় সঞ্জয়৷ এর পর আচ্ছন্ন অবস্থায় তাঁকে চলন্ত ট্রেন থেকে ফেলে দেয় ওই যুবক৷

সঞ্জয় যখন একা ওয়ারেঙ্গেলে ফিরে আসে, তখন যুবতীর পরিবারের সদস্যরা তাঁকে প্রশ্ন করতে থাকে৷ যুবতীর খোঁজ না দিতে পারলে সঞ্জয়ের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ জানানোর হুমকি দেয় তাঁরা৷ এর পরই সঞ্জয় একে একে পরিবারের সদস্যদের খুন করতে শুরু করে৷ অভিযোগ বিষ খাইয়ে সবমিলিয়ে ৯ জনকে খুন করে সঞ্জয়৷ তার পর দেহগুলি একটি কুয়োর মধ্যে ফেলে দেয় সে৷ মে মাসে এই হত্যালীলা চালায় অভিযুক্ত৷

মামলার শুনানি চলাকালীন সরকারি আইনজীবী দাবি করেন, এটি বিরলতম অপরাধ৷ এতজনকে খুন করা ছাড়াও এক কিশোরীকে ধর্ষণ করারও অভিযোগ রয়েছে ওই যুবকের বিরুদ্ধে৷ তাই অভিযুক্তের মৃত্যুদণ্ডেরই দাবি জানান সরকার পক্ষের আইনজীবী৷ সেই আবেদনে সাড়া দিয়েই সঞ্জয়কে ফাঁসির নির্দেশ দেয় আদালত৷

Published by: Debamoy Ghosh
First published: October 30, 2020, 5:38 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर