পুলিশকে ফোন না করে কেন সাহায্যের জন্য বোনকে ফোন ? হায়দরাবাদ ধর্ষণের ঘটনায় মন্ত্রীর প্রতিক্রিয়ায় বিতর্কের ঝড়

পুলিশকে ফোন না করে কেন সাহায্যের জন্য বোনকে ফোন ? হায়দরাবাদ ধর্ষণের ঘটনায় মন্ত্রীর প্রতিক্রিয়ায় বিতর্কের ঝড়

৬ বছর আগে দিল্লির নির্ভয়ার ঘটনাই যেন ফিরল হায়দরাবাদে। এক তরুণী পশু চিকিৎসককে ধর্ষণের পর খুন করে চার যুবক।

  • Share this:

#হায়দরাবাদ: হায়দরাবাদে পশু চিকিৎসকের ধর্ষণের ঘটনায় তেলেঙ্গনার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রশ্ন তোলেন কেন সাহায্যের জন্য পুলিশকে ফোন না করে বোনকে ফোন করে সাহায্যে চেয়েছিলেন নির্যাতিতা ৷ মন্ত্রীর এই বক্তব্যের জেরে বিতর্কের ঝড় উঠেছে দেশজুড়ে ৷ মন্ত্রী মহম্মদ মেহমুদ আলি জানান,‘ঘটনাটি অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক ৷ পুলিশ অপরাধ দমনে সদা সতর্ক। ৷ তবে নির্যাতিতা পুলিশকে না ফোন করে কেন বোনকে ফোন করেছিলেন ৷ ১০০ নম্বরে ফোন করে থাকলে তাকা বাঁচানো সম্ভব হত ৷’ এই মন্তব্যের মধ্যে দিয়ে নির্যাতিতাকেই একপ্রকার কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে দিয়েছেন মন্ত্রী বলে মনে করছেন অনেকে।

পরে তিনি নিজের সাফাই দিয়ে জানান, নির্যাতিতা তার মেয়ের মতো ৷ তিনি কেবল বলতে চেয়েছেন কেউ যদি ১০০ নম্বরে ফোন করতেন তাহলে হয়তো নির্যাতিতাকে বাঁচানো সম্ভব হত ৷’

৬ বছর আগে দিল্লির নির্ভয়ার ঘটনাই যেন ফিরল হায়দরাবাদে। এক তরুণী পশু চিকিৎসককে ধর্ষণের পর খুন করে চার যুবক। ২৫ কিলোমিটার দূরে দেহ পুড়িয়ে ভাগাড়ে ফেলে আসে অভিযুক্তরা। ঘটনায় অভিযুক্ত চারজনকেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ক্লিনিক থেকে বাড়ি ফেরার পথে স্কুটি খারাপ হয়ে যায়। টোলপ্লাজার সামনে দাঁড়িয়েছিলেন পশুচিকিৎসক তরুণী। পাশের দোকানে সাহায্য চাইতেও যান । পরে সেখান থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে মিলেছে তরুণীর অর্ধদগ্ধ দেহ। ধর্ষণ করে খুনের পর তরুণীর দেহ পুড়িয়ে ফেলে অভিযুক্তরা।

এক প্রত্যক্ষদর্শী দাবি, তরুণীর সঙ্গে দুজন যুবক এসে স্কুটিটি নিয়ে যায়। তরুণীও তাদের সঙ্গেই ছিলেন। সম্ভবত তাঁরা স্কুটি সারিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। স্কুটি সারাতে পাশের একটি দোকানে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বলেও বোনকে জানান ওই তরুণী। তারপরেই তাঁর মোবাইল বন্ধ হয়ে যায়।

তন্দুপল্লী টোলপ্লাজা থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে শাদনগরে তরুণীর অর্ধদগ্ধ মৃতদেহ মেলে। ঘটনায় অভিযুক্ত দুই ট্রাকচালক সহ চারজনকেই গ্রেফতার করা হয়েছে বলে দাবি পুলিশের।

খোদ সাইবারবাদ টোলপ্লাজার কাছে এই নৃশংস ঘটনা। যা প্রকাশ্যে আসতেই চাপে পড়ে কেসিআর প্রশাসন। মহিলাদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্নের মুখে রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দাবি করেন,ঘটনায় অভিযুক্ত চারজনেরই বয়স ২০ থেকেন ২৬ এর মধ্যে। মহম্মদ আরিফ , ২৬ বছর ড্রাইভার,

জল্লু শিবা, ২০ বছর, ক্লিনার,জল্লু নবীন, ২০ বছর, ক্লিনার,চিন্তাকুন্তা চেনেকেশ্বাভুলু, ২০ বছর, ড্রাইভার ৷

মেহবুবনগরের ফার্স্ট ট্রাক কোর্টে এই মামলা স্থানান্তরের জন্য আবেদন করছে পুলিশ। পুলিশ কমিশনারের আশ্বাস, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে যাবতীয় তথ্য-প্রমাণ হাতে এসেছে। এমন ঘটনা রুখতে সন্ধের পর পেট্রোলিং ভ্যান নামিয়ে টহলদারি চলবে বলে ঘোষণা সাইবারাবাদ পুলিশের।

First published: 10:20:20 PM Nov 29, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर