পুলিশের জুলুমের অভিযোগ! যথেচ্চ টাকা দিতে না পারায় মেরে ট্রাকচালকের হাত ভেঙে দিল

পুলিশের জুলুমের অভিযোগ! যথেচ্চ টাকা দিতে না পারায় মেরে ট্রাকচালকের হাত ভেঙে দিল

টাকা না দিতে পারায় ,মারের চোটে হাত ভাঙল ট্রাক ড্রাইভারের।

টাকা না দিতে পারায় ,মারের চোটে হাত ভাঙল ট্রাক ড্রাইভারের।

  • Share this:

 #কলকাতা:   পুলিশের বিরুদ্ধে জুলুমের অভিযোগ৷ অভিযোগ,  পুলিশি জুলুমের শিকার ট্রাক ড্রাইভার। পুলিশের দাবি মত টাকা দিতে না পারায় ,ওই ড্রাইভারকে নৃশংস ভাবে মারে পুলিশ। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে রক্তাক্ত ড্রাইভারকে চিকিৎসা করান মালিক রাজেশ শা । এই ঘটনায় ওই পুলিশ কর্মীদের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে থানাতে।    ঘটনাটি ঘটেছে পঞ্চসায়র এলাকার বুধের হাটিতে।

লরি চালক রমেশ শা তাঁর বালির লরি খালি করতে গিয়েছিল, ওই এলাকার চিংড়ি কারখানাতে। অভিযোগ সেই সময়, পুলিশ গাড়ি আটকায় এবং ২ হাজার টাকা দাবি করে।  টাকা দিতে অস্বীকার করে রমেশ। তখন ওই দুই পুলিশ কর্মী ওখান থেকে চলে যায়।    রাত্রি আটটা নাগাদ যখন ও ড্রাইভার খালি লরি নিয়ে ফিরছিল, তখন আবার লরি আটকে ধরে ৬ -৭ জন পুলিশ কর্মী।তারা আবার টাকার জন্য চাপ দেয়। গরীব লরি চালকের কাছে ওই টাকা ছিলনা। অবশেষে এক হাজার টাকা দিতেই হবে বলে দাবি করে অভিযুক্ত পুলিশরা।

এরপরেও টাকা না দিতে পারায় ওই লরি চালককে বেধড়ক মারধর শুরু করে।    পুলিশের মারে হাত কেটে রক্ত বার হতে থাকে। পরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে ডাক্তার সন্দেহ করে, ডান হাতের হাড়ে চিড় ধরেছে।    এই ঘটনায় রীতিমতো ক্ষুব্ধ পশ্চিমবঙ্গ ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন। তাঁরা পঞ্চসায়র থানাতে গিয়ে রাতের টহলরত ওই সমস্ত পুলিশ কর্মীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানান। রমেশ উল্লেখ করে ,রাতে যে সমস্ত পুলিশকর্মীরা তাঁকে মারধর করেছিল, তারা প্রত্যেকেই  মদ্যপ ছিলেন।

মালবাহী গাড়ির ওপর পুলিশি জুলুম রীতিমতো বাড়ছে বলে অভিযোগ৷  সেই জুলুমের পরিমাণ এতটাই যে, লরির মালিক থেকে ড্রাইভার সবাই হিমশিম খাচ্ছে। পুলিশের জুলুমের টাকা চাপছে, পরিবহন হওয়া মালপত্রের ওপর। আর সেই অতিরিক্ত টাকা দিয়ে মালপত্র কিনছেন  সাধারণ মানুষ এমনটা দাবি করেন পরেশ অধিকারী।    এই বিষয় নিয়ে পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করলে,কোনও উত্তর পাওয়া যায়নি।

SHANKU SANTRA

Published by:Debalina Datta
First published: