সোশ্যাল মিডিয়ায় বন্ধুত্ব থেকে বাড়িতে ডাকাতি, ১৪ লক্ষ টাকার সোনার গয়না খোয়ালেন তরুণী

Credit: Reuters

বন্ধুত্বের ফাঁদে পা দিয়ে বড় সর্বনাশ৷

  • Share this:

#মুম্বই: সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকের সঙ্গেই বন্ধুত্ব হয়ে থাকে। অচেনা মানুষ চেনা হয়ে যায় নিমেষেই। কিন্তু এই চেনার আড়ালেই থাকতে পারে মুখোশের আবরণ। যা আদতে ক্ষতি করতে পারে আপনার, আমাদের। এমন ঘটনার কথা বহু শোনা যায় টিভি খুললেই। এবার এমন ঘটনারই সাক্ষী থাকল মুম্বই।

খবর মোতাবেকে, মুম্বইয়ের এক তরুণীর সঙ্গে সম্প্রতি আলাপ হয় ১৯ বছর বয়সী শায়জান আগওয়ানের। ইনস্টাগ্রাম (Instagram)-এর মাধ্যমে বন্ধুত্ব বাড়তে থাকে। পরিবারকে না জানিয়ে আগওয়ানের সঙ্গে দেখাও করেন ওই তরুণী। এই পর্যন্ত সব ঠিকই ছিল।

গত সপ্তাহে পরিবারের সঙ্গে ঘুরতে যান ওই তরুণী। যা স্বাভাবিক ভাবেই জানত আগওয়ান। বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগ কাজে লাগিয়ে নিজের কাজ হাসিল করে সে। তরুণীর কোলাবা হাউজের পাস্তা লেনের বাড়িতে ঢুকে ১৪ লক্ষ টাকার সোনার গয়না হাতিয়ে নেয়। পাশাপাশি বাড়িতে এদিক-ওদিক ছড়িয়ে থাকা টাকাপয়সা ও একটি iPhone-ও চুরি করে। ১৪ লক্ষ টাকার গয়না বাদে আর কত টাকা সে নিয়েছে, তার সঠিক হিসাব পাওয়া যায়নি।

Times of India-য় প্রকাশিত রিপোর্ট থেকে জানা যায়, ওই তরুণীর বাবা পেশায় চাটার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট। এবং কোলাবার ওই বাড়িতেই পাকাপাকি ভাবে থাকেন। এই ঘটনাটি ঘুণাক্ষরেও টের পাননি তরুণী বা তাঁর পরিবারের কেউ। ২৭ তারিখ যখন তাঁরা ছুটি কাটিয়ে বাড়ি ফেরেন, তখন এই পরিস্থিতির কথা জানতে পারেন এবং পুলিশে খবর দেন।

কিন্তু মজার কথা ছিল, বাড়ির কোনও জানালা বা দরজা ভাঙা ছিল না, যেখান থেকে ঢুকে আগওয়ান এই চুরি করে। ফলে পুলিশ প্রথমেই অনুমান করে, যে এই চুরি করেছে, তার কাছে অবশ্যই নকল চাবি ছিল। এবং ঘটনাচক্রে আগওয়ানের কাছ নকল চাবি ছিল। যা ওই তরুণীই দেখা করার সময়ে তার কাছে ফেলে এসেছিলেন।

আগওয়ানকে সন্দেহভাজনের তালিকায় থাকলেও প্রথমে তরুণী তাকে সন্দেহ করতে চাননি। পরে পুলিশ তাঁকে রাজি করালে আগওয়ানকে গ্রেপ্তার করা হয়। এদিকে তরুণীও স্বীকার করেন যে, তিনি ওই যুবককে চাবি দিয়েছিলেন। এর পরে কী ভাবে আগওয়ানের সঙ্গে দেখা হয়, কী ভাবে তার সঙ্গে পরিচয়, সবটা পুলিশকে জানান তিনি।

এর পর মাজাগাঁওতে আগওয়ানের বাড়িতে তল্লাশি চালায় পুলিশ। সেখান থেকে ১ লক্ষ টাকা ও iphone-টি উদ্ধার হয়েছে। বাকি টাকা আগওয়ান কোথায় রেখেছে বা কাকে দিয়েছে, সে বিষয়ে এখনও কিছু জানা যায়নি। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে বাকি টাকার খোঁজ করছে পুলিশ।

Published by:Debalina Datta
First published: