বিবাহিত প্রেমিকাকে কুপিয়ে খুন করে আত্মঘাতী প্রেমিক

বিবাহিত প্রেমিকাকে কুপিয়ে খুন করে আত্মঘাতী প্রেমিক

প্রেমিকার বাড়িতে ঢুকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে খুন করে আত্মঘাতী হল প্রেমিক

  • Share this:

SARADINDU GHOSH

#বর্ধমান: প্রেমিকার বাড়িতে ঢুকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে খুন করে আত্মঘাতী হল প্রেমিক। এই চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছেপূর্ব বর্ধমানের মন্তেশ্বরের চন্দনপোতা গ্রামে। ওই মহিলার এদিনই বাপের বাড়ি থেকে স্বামীর কাছে যাওয়ার কথা ছিল। তার আগেই ভোরে ঘরে ঠুকে তাকে কুপিয়ে খুন করে প্রেমিক।

খুন হওয়া মহিলার নাম বন্যা মন্ডল। আত্মঘাতী প্রেমিকের নাম দীপক হালদার। মৃতদেহ দুটি ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে মন্তেশ্বর থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

পূর্বস্থলীর গৌরাঙ্গ মন্ডলের সঙ্গে মন্তেশ্বরের চন্দনপোতা গ্রামের বন্যা মন্ডলের বিয়ে হয় ৫ বছর আগে। তাদের ৩ বছরের একটি কন্যা সন্তান আছে। মাস চারেক আগে তাদের বাড়িতে নির্মাণ কাজ করতে আসে দীপক হালদার। রাজমিস্ত্রী দীপকের বাড়ি মুর্শিদাবাদের কান্দিতে। বাড়িতে কাজের সূত্রে বন্যার সঙ্গে দীপক প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পরে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রেমিকের সাথে পালিয়ে চার মাস ঘর করে বন্যা। এই সম্পর্ক জানাজানি হতেই স্বামী স্ত্রীর মধ্যে দূরত্ব বেড়ে যায় । পরে বন্যার বাবা মেয়েকে বুঝিয়ে ঘরে ফিরিয়ে নেয়। স্বামীকে ছেড়ে বাপের বাড়িতে থাকতে শুরু করে বন্যা। গ্রামে একটি অনুষ্ঠানে গিয়ে ফের স্বামী স্ত্রীর সঙ্গে সস্পর্ক জোড়া লাগে। এই খবর সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পারে প্রেমিক দীপক। শুক্রবার স্বামীর বাড়ি যাওয়ার কথা ছিল বন্যার। তার আগেই ভোরে দীপক বাড়িতে ঢুকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে বন্যাকে নৃশংস ভাবে কোপাতে শুরু করে। আত্মীয়রা বাধা দিতে এলে অস্ত্র ফেলে চম্পট দেয় দীপক।ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় বন্যার।

এরপর ঘটনাস্থল থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে ঘূর্ণি গ্রামে একটি গাছে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হয় দীপক।

ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে মন্তেশ্বর থানার পুলিশ। মৃতদেহ দুটি ময়নাতদন্তে পাঠানো হচ্ছে। দুজনের মৃত্যুর পেছনে অন্য কোনও ঘটনা রয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হবে বলে জানিয়েছে জেলা পুলিশ।

First published: 07:37:42 PM Dec 13, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर