• Home
  • »
  • News
  • »
  • crime
  • »
  • KOLKATA FAKE IAS OFFICER DEBANJAN DEB BLUFFS A SECURITY COMPANY ONCE ALSO SS

Debanjan Deb: আইএএস যে ভুয়ো কেউ বুঝতেই পারেননি ! দেবাঞ্জনের প্রতারণার জালে নিরাপত্তা সংস্থাও

Fake IAS Officer Debanjan Deb: সরকারি অফিসার থেকে বেসরকারি সংস্থা। সবাইকেই নিরাপত্তারক্ষী দিয়ে থাকে বেলেঘাটার এই সংস্থা। ভুয়ো আইএএসের আসল রূপ ধরতে পারেনি তারাও!

Fake IAS Officer Debanjan Deb: সরকারি অফিসার থেকে বেসরকারি সংস্থা। সবাইকেই নিরাপত্তারক্ষী দিয়ে থাকে বেলেঘাটার এই সংস্থা। ভুয়ো আইএএসের আসল রূপ ধরতে পারেনি তারাও!

  • Share this:

    কলকাতা: শুধু সাধারণ মানুষ নন। ভুয়ো আইএএসের প্রতারণার জালে নিরাপত্তা সংস্থাও। সংস্থার দাবি, আইএএস যে ভুয়ো তা বুঝতেই পারেননি তাঁরা।

    সরকারি অফিসার থেকে বেসরকারি সংস্থা। সবাইকেই নিরাপত্তারক্ষী দিয়ে থাকে বেলেঘাটার এই সংস্থা। ভুয়ো আইএএসের আসল রূপ ধরতে পারেনি তারাও!

    কেন্দ্রীয় সরকারি আমলা। সর্বদাই সঙ্গী সশস্ত্র দেহরক্ষী। বেতনও দিতেন বিপুল টাকা। রক্ষীরা ভাবতেন, তাঁদের ‘বস’ প্রশাসনের কোনও প্রভাবশালী কর্তাব্যক্তি। কসবাকাণ্ড প্রকাশ্যে আসার পর তাঁরা জানতে পারলেন, তিনি আসলে আমলাই নন!

    কেন্দ্রীয় সরকারি আমলার দেহরক্ষী চাই। ২০২১ সালের জানুয়ারি মাসে এই মর্মেই বিজ্ঞাপন দেওয়া হয় একটি পোর্টালে। বিজ্ঞাপন দেখে দেবাঞ্জন দেবের সঙ্গে যোগাযোগ করে সংস্থা। ৬ জানুয়ারি থেকে ৭ মার্চ এই সংস্থার কাছ থেকে দেহরক্ষী নেন দেবাঞ্জন। নিরাপত্ত সংস্থার সিনিয়র ম্যানেজার দেবব্রত মৈত্র বলেন, ‘‘তিন মাসের রক্ষী লাগবে বলেছিল। কিন্তু, দু’মাস পরই টার্মিনেট করে দেয়। টেন্ডারের মাধ্যমে লোক নেয়। তাড়া ছিল বলে তিন দিনের মধ্যেই ফাইনাল হয়ে যায়। দেখে সন্দেহ হয়নি।’’

    দেহরক্ষী বাবদ মাসে ৪০ হাজার টাকা বেতন দিতেন দেবাঞ্জন। বেতনের টাকা আসত ভুয়ো পুরকর্তা হিসেবে তৈরি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে। সূত্রের দাবি, নিরাপত্তা সংস্থার সামনে কেন্দ্রীয় সরকারি আমলা হিসেবে নিজেকে বিশ্বাসযোগ্য করে তোলার জন্য একাধিক কৌশল নিতেন দেবাঞ্জন।

    Published by:Siddhartha Sarkar
    First published: