এই সেই CCTV ফুটেজ, যা দেখে হায়দরাবাদ গণধর্ষণ-খুন কাণ্ডের কিনারা করে পুলিশ

এই সেই CCTV ফুটেজ, যা দেখে হায়দরাবাদ গণধর্ষণ-খুন কাণ্ডের কিনারা করে পুলিশ
  • Share this:

#হায়দরাবাদ: বুধবার ২৭ নভেম্বর সন্ধে ৬টা ১৫ মিনিট হায়দরাবাদ শহর লাগোয়া শামসাবাদ তন্দুপল্লি টোলপ্লাজা। জাতীয় সড়ক ৪৪-এর উপর এই টোলপ্লাজার কাছে দাঁড়িয়ে থাকা একটি ট্রাকে চেপে বসে চারজন। ট্রাক কিছুটা এগিয়ে থেমে যায়। সেখানেই একটু পরে এসে দাঁড়ায় একটি স্কুটার। টোলপ্লাজার কাছে রাস্তায় লাগানো সিসিটিভি ফুটেজ দেখেই হায়দরাবাদের তরুণী পশু চিকিৎসককে গণধর্ষণ ও নারকীয় হত্যাকাণ্ডের কিনারা করে পুলিশ। ট্রাকের রেজিস্ট্রেশন নম্বর দেখেই খোঁজ মেলে চার অভিযুক্তের। সেই রাতের আরও একটি সিসিটিভি ফুটেজ এবার এল প্রকাশ্যে ৷

চিৎকার থামাতে চিকিৎসক তরুণীর মুখে ঢেলে দেওয়া হয়েছিল মদ। গণধর্ষণের পর নাক-মুখ চেপে শ্বাসরোধ করে খুন। কম্বলে জড়িয়ে দেহ পুড়িয়ে প্রমাণ লোপাটের চেষ্টা হয়েছিল। হায়দরাবাদের ঘটনায় পুলিশি তদন্তে উঠে আসছে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। তিন দিন পর মুখ খুললেন তেলঙ্গনার মুখ্যমন্ত্রী। হায়দরাবাদর থেকে দিল্লি, আজও দোষীদের ফাঁসির দাবিতে সরব গোটা দেশ।

CCTV ফুটেজ দেখতে ক্লিক করুন-----> VIDEO

অপহরণ-গণধর্ষণ-খুন। প্রমাণ লোপাটের জন্য একের পর এক নৃশংস পরিকল্পনা। হায়দরাবাদের ঘটনায় অভিযুক্তদের জেরায় উঠে এসেছিল একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। পুলিশ সূত্রে খবর, সাহায্যের জন্য চিৎকার করছিলেন তরুণী ৷ তাঁর চিৎকার থামাতে জোর করে তরুণীর মুখে মদ ঢেলে দেয় অভিযুক্তরা ৷ তরুণীর মোবাইলও সুইচ অফ করে দেয় তারা ৷ এরপরই ট্রাকে তুলে গণধর্ষণ ৷ অচৈতন্য হয়ে পড়েছিলেন তরুণী ৷ এরপর নাক-মুখ চেপে শ্বাসরোধ করে খুন ৷ ধরা পড়ে যাওয়ার ভয় ছিল। তাই খুনের পর দেহ লোপাটের ছক কষে তারা। কম্বলে দেহ মুড়ে দেহ ট্রাকে তোলে অভিযুক্তরা ৷ চতনপল্লিতে একটি ব্রিজের তলায় দেহ রাখা হয় ৷  এরমধ্যেই ২ অভিযুক্ত কিনে আনে পেট্রোল ৷ ব্রিজের তলায় পেট্রোল ঢেলে পুড়িয়ে দেওয়া হয় দেহ ৷ সেই আগুনেই ফেলে দেওয়া হয় তরুণীর মোবাইল সিমও ৷

First published: 03:56:49 PM Dec 10, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर