Gang Rape: নিজের ৬ বছরের নাতনিকে পাশবিক গণধর্ষণ, দাদুকে সঙ্গ দিল কাকা! রক্তে ভাসল ছোট্ট শরীর

Gang Rape: নিজের ৬ বছরের নাতনিকে পাশবিক গণধর্ষণ, দাদুকে সঙ্গ দিল কাকা! রক্তে ভাসল ছোট্ট শরীর

খাবারের লোভ দেখিয়ে মাত্র ৬ বছরের নাতনিকে নির্মম গণধর্ষণ (Gang Rape) করল নিজের পঞ্চাশ বছর বয়সী দাদু (Maternal Grandfather) এবং কাকা (৩৮)।

খাবারের লোভ দেখিয়ে মাত্র ৬ বছরের নাতনিকে নির্মম গণধর্ষণ (Gang Rape) করল নিজের পঞ্চাশ বছর বয়সী দাদু (Maternal Grandfather) এবং কাকা (৩৮)।

  • Share this:

    #ভোপালঃ খাবারের লোভ দেখিয়ে মাত্র ৬ বছরের নাতনিকে নির্মম গণধর্ষণ (Gang Rape) করল নিজের পঞ্চাশ বছর বয়সী দাদু (মায়ের বাবা) (Maternal Grandfather) এবং কাকা (৩৮)। সামনে বসিয়ে রাখা হল ৩ বছরের ভাইকে। চরমতম পাশবিক ঘটনার সাক্ষী রইল দেশ। ঘটনার কথা প্রকাশ পেতেই ক্ষোভে ফুঁসছে দেশ। মধ্যপ্রদেশের রাজধানী ভোপালের (Bhopal) কোলার এলাকার এই ঘটনা রবিবারের সকালের শিরোনামে। কী করে মানুষ এতটা নীচে নামছে, তা নিয়ে ঝড় উঠেছে চায়ের দোকান থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় (Social Media) পাতায়।

    কী ঘটেছে? ছোট্ট মেয়ের মা পুলিশকে জানিয়েছেন, দিন কয়েক ধরেই মেয়ের আচরণে অদ্ভূত পরিবর্তন লক্ষ্য করছিলেন। সে ভাল করে কথা বলছিল না কারও সঙ্গে, ভাইয়ের সঙ্গে খেলছিল না, মারামারি করছিল না। কেমন যেন মনমরা হয়ে ছিল। জামা পরাতে বা খেলাতে গেলে ভয়ে সিঁটিয়ে যাচ্ছিল। আচমকা পরিবর্তন সন্দেহ হয়েছিল তাঁর। এরপরেই তিনি মেয়েকে বার বার কেন সে এমন প্রশ্ন করার পরে বৃহস্পতিবার বিকেলে ঘটনার কথা জানায় সে। সপ্তাহখানেক আগে কেমনভাবে দাদু এবং কাকা মিলে তাঁর ওপর অত্যাচার করেছে সেই সব কথা খুলে বলে। এমনকি চুপ করে থাকার জন্য ২০ টাকা দেওয়ার পাশাপাশি ঘটনার কথা কাউকে না বলার হুমকি দেয় বলেও জানিয়েছে নির্যাতিতা শিশুকন্যা।

    ঘটনার কথা জানার পরেই পুলিশের দ্বারস্থ হন শিশুকন্যার বাবা-মা।দাদু এবং মামার বিরুদ্ধে থানায় গণধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করে। এরপরেই শুক্রবার গ্রেফতার করা হয় দুই গুনধর দাদু এবং কাকা সঞ্জয়কে। পুলিশ জানিয়েছে শিশুটি তার মাকে জানায়, দিন কয়েক আগে কাকা তাকে এবং ভাইকে সিঙারা খাওয়ানোর জন্য নিজের ঘরে ডেকে নিয়ে যায়।  সেখানে আগে থেকেই ছিল মায়ের বাবা দাদু। স্বাভাবিকভাবেই দাদু-কাকাকে দেখে ভয় পায়নি তারা। কিন্তু খাবার দেওয়ার বদলে দ্দরজা বন্ধ করে ভাইয়ের সামনে তার ওপর অত্যাচার চালায় দু'জনে মিলে। কিছুক্ষণের মধ্যে ছোট্ট শরীর রক্তে ভেসে গেলে দুই ভাই-বোনকে সিঙারা কিনে ছেড়ে দেয় অভিযুক্তেরা। মুখ বন্ধ রাখার জন্য ২০ টাকার পাশাপাশি হুমকি দেওয়া হয়। দাদু-কাকার ভয়ে তাই মুখ খুলতে পারেনি দু'জনের কেউ। কিন্তু মেয়ে যন্ত্রণায় কুঁকড়ে যাওয়ায় ধরে ফেলেন মা। তারপরেই সামনে আসে সত্য।

    পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, শিশুটির ধৃত দাদু এবং কাকা দু'জনেই পেশায় মজুর এবং মাদকাসক্ত। নিয়মিত মদ্যপান করেন দু'জনেই। এ দিনেও তাঁর ব্যতিক্রম হয়নি। পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্ত ধর্ষকদের বিরুদ্ধে পকসো আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে। জানা গিয়েছে,শিশুটির বাবা-মাও পেশায় মজুর। এ দিন তাঁরা কাজের জন্য বাড়ি থেকে বেরিয়ে গেলে ভয়ঙ্কর এই কাণ্ড ঘটায় তারা।

    Published by:Shubhagata Dey
    First published:

    লেটেস্ট খবর