স্ত্রীকে ফিরে পেতে মামলা করে বউ-শাশুড়ির হাতে বেধড়ক মার খেল জামাই, তুলকালাম আদালত চত্বরে

স্ত্রীকে ফিরে পেতে মামলা করে বউ-শাশুড়ির হাতে বেধড়ক মার খেল জামাই, তুলকালাম আদালত চত্বরে

হাড়হিম করা ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই চমকে গিয়েছেন সবাই

  • Share this:

SEBAK DEBSARMA

#মালদহ: আদালতে বউ ফেরতের মামলা করায় জুটলো বেধড়ক মার। মালদহ আদালত চত্বরেই বউ ও শাশুড়ির মার খেয়ে জখম জামাই ঘটনাটি ঘিরে আদালত চত্বরে ঘটনায় তুমুল উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে । শেষ পর্যন্ত জখম জামাইকে উদ্ধার করল ইংরেজবাজার থানার পুলিশ।

শ্বশুরবাড়ির লোকজনের অভিযোগ, ২৫ লক্ষ টাকা নগদ নিয়ে মেয়েকে বিয়ে করেন পেশায় প্রাথমিক শিক্ষক গুণধর জামাই। কিন্তু বিয়ের পর থেকেই শুরু হয় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চলতে থাকে তাঁদের বাড়ির মেয়ের উপরে । মারধর, সিগারেটের ছ্যাঁকা দেওয়া, বউকে খেতে না দেওয়া অর্থাৎ খাওয়া বন্ধ করে দেওয়া, কিছুই বাদ দেওয়া হয়নি । শেষে অত্যাচারী জামাই বাড়ি ছাড়া করে মেয়েকে । এরপর নিজে ভালো সাজতে গিয়ে উল্টে আদালতে বউ ফেরত মামলা সাজাই সে ।

অন্যদিকে, জামাইয়ের দাবি, বিয়ের পরে মেয়েকে নিজের বাড়িতে নিয়ে চলে আসেন বাপের বাড়ির লোকজন । এরপর বারবার বললেও আর বউ ফেরত পাচ্ছিলেন না । বউকে ফিরে পেতে মামলা করতে হয়েছিল শ্বশুরবাড়ির লোকেদের বিরুদ্ধে তাঁকে । এতে ক্ষুব্ধ হয়ে হামলা করেন শ্বশুরবাড়ির লোকজনেরা ।

জানা গিয়েছে মালদহের ইংরেজ বাজারের অমৃতির নিয়ামতপুরের বাসিন্দা মাসুমা নাসরিন সঙ্গে সম্বন্ধ করে বিয়ে হয় মোথাবাড়ি থানার উত্তর লক্ষ্মীপুরের বাসিন্দা প্রাথমিক শিক্ষক নইমুদ্দিন আহমেদের । বিয়ের অল্পদিনের মধ্যেই শুরু হয় অশান্তি তা ক্রমেই বাড়তে থাকে দিনেদিনে ৷ বর্তমানে আলাদা রয়েছে স্বামী ও স্ত্রী ।

এদিন দুপুর নাগাদ মালদহ আদালতের কাছে শুভঙ্কর শিশু উদ্যান এর সামনে শুরু হয়ে যায় শ্বশুরবাড়ি বনাম বাপের বাড়ি লড়াই । মুহূর্তের মধ্যে এলাকায় লোক জমে যায়। প্রকাশ্য রাস্তায় জামাই নইমুদ্দিন আহমেদকে টানাহেঁচড়া, মারধর শুরু করেন ক্ষিপ্ত স্ত্রী, শাশুড়ি-সহ শ্বশুরবাড়ির লোকজনেরা ।

ওই সময় মারের হাত থেকে ছেলেকে বাঁচানোর চেষ্টা করেন নইমুদ্দিনের বাবা দুলাল আলি । কিন্তু মার ঠেকাতে পারেননি তিনি । শেষ পর্যন্ত ইংরেজবাজার থানার পুলিশ এসে উদ্ধার করে নিয়ে যায় নইমুদ্দিনকে। এই ঘটনার জেরে ঘটনায় শশুরবাড়ি ও জামাই পরস্পরের বিরুদ্ধে ইংরেজ বাজার থানায় অভিযোগ জানিয়েছে । পুলিশ ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্তে নেমেছে ।​

First published: 03:23:53 PM Dec 20, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर