• Home
  • »
  • News
  • »
  • crime
  • »
  • DELHI MURDER 62 YEAR OLD WOMAN HAS BEEN KILLED BRUTALLY ARC

Delhi Murder: যৌন হেনস্থার পর নৃশংস খুন ৬২ বছরের প্রৌঢ়াকে, গ্রেফতার অভিযুক্ত

প্রতীকী ছবি

  • Share this:

    দিল্লি : যৌন হেনস্থার পর কুপিয়ে খুন (Murder) করার অভিযোগ ৬২ বছর বয়সি এক প্রৌঢ়াকে ৷ এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পূর্ব দিল্লির ডাল্লুপাড়া অঞ্চলে ৷ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে ৷

    এই ঘটনার খবর পুলিশের কাছে পৌঁছয় হাসপাতাল সূত্রে ৷ পুলিশ সূত্রে জানানো হয়েছে রবিবার ধর্মশীলা হাসপাতালে গিয়ে তাঁরা দেখেন ধারাল অস্ত্র দিয়ে প্রৌঢ়ার গলা কেটে ফেলা হয়েছে ৷ এ ছাড়া তাঁর পেটেও একাধিক আঘাতের চিহ্ন ছিল ৷ হাসপাতালে আনার পর তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা ৷

    এই ঘটনায় নিউ অশোকনগর থানায় খুনের মামলা রুজু করা হয়েছে৷ তদন্তে নেমে পুলিশ গুরুত্ব দেয় সিসিটিভি ফুটেজের উপর ৷ যে এলাকায় প্রৌঢ়ার বাড়ি, সেখানকার সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হয় ৷ সিসিটিভি ক্যামেরার ছবির সূত্র ধরেই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ ৷  ধৃতের নাম বিপিন ডেঢা ৷ ৩০ বছর বয়সি বিপিন মৃতার পড়শি ৷

    জেরায় অভিযুক্ত খুনের কথা স্বীকার করেছে বলে পুলিশের দাবি ৷ ধৃত বিপিন জানিয়েছে, ঘটনার সময় সে অপ্রকৃতিস্থ অবস্থায় ছিল ৷ উদ্ধার করা হয়েছে হত্যার অস্ত্র কাস্তেটিও ৷ তদন্তের স্বার্থে অভিযুক্ত সম্বন্ধে অন্যান্য তথ্য প্রকাশ করেনি পুলিশ ৷

    নিহত মহিলা আদতে বিহারের বেগুসরাইয়ের বাসিন্দা ৷ দিল্লিতে তিনি থাকতেন ছেলে এবং নাতির সঙ্গে ৷ ঠেলাগাড়িতে শাকসব্জি বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন ৷ তাঁর ছেলে নয়ডায় নিরাপত্তারক্ষীর কাজ করেন৷ তিনি পুলিশকে জানিয়েছেন কাজ সেরে বাড়ি ফিরে দেখেন রক্তের স্রোতে তাঁর মা পড়ে আছেন ৷ তার পর তিনি তড়িঘড়ি মাকে ধর্মশীলা হাসপাতালে নিয়ে যান ৷

    স্থানীয় বাসিন্দাদের জেরা করে পুলিশ জানতে পেরেছে রবিবারও নাতিকে সঙ্গে নিয়ে ঠেলাগাড়িতে তরকারি বিক্রি করেছেন ওই প্রৌঢ়া ৷ তার পর বাড়িতে ফিরে রান্নাও করেছেন ৷

    প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের ধারণা, প্রথমে গলা কেটে প্রৌঢ়াকে খুন করা হয় ৷ তার পর অন্তত ২০ বার কোপানো হয় ধারাল ছুরি দিয়ে ৷ যৌন হেনস্থার আশঙ্কাও পুলিশ উড়িয়ে দেয়নি ৷ নিহত মহিলার দেহ পাঠানো হয়েছে ময়নাতদন্তের জন্য ৷ ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এলে অনেক ধোঁয়াশা দূর হবে বলে ধারণা পুলিশের ৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: