বড় মেয়ের চিকিৎসার টাকা জোগাড়ে ১২-র ছোট মেয়েকে বিক্রি বাবা-মায়ের! তার পর...

বড় মেয়ের চিকিৎসার টাকা জোগাড়ে ১২-র ছোট মেয়েকে বিক্রি বাবা-মায়ের! তার পর...

প্রতীকী ছবি

বুধবারই অভিযুক্ত ছিন্না সুব্বাইয়া ওই ১২ বছরের মেয়েটিকে বিয়ে করে। যদিও একদিন পরেই নারী ও শিশু কল্যাণ দফতরের উদ্যোগে মেয়েটিকে উদ্ধার করা গিয়েছে।

  • Share this:

    #নেল্লোর: নিজের ১২ বছরের মেয়েকে বিক্রি করে দেওয়ার অভিযোগ উঠল এক দম্পতির বিরুদ্ধে। বিক্রি করার কারণ কী? বড় মেয়ে শ্বাসকষ্টের রোগে ভুগছেন। তাঁর চিকিৎসার জন্য টাকার প্রয়োজন। সেই টাকা জোগাড়ের জন্যই নিজের মেয়েকে এক ৪৬ বছরের ব্যক্তির কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন দম্পতি। ঘটনাটি ঘটেছে অন্ধ্রপ্রদেশের নেল্লোরে। গত বুধবার গোটা ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসে।

    বুধবারই অভিযুক্ত ছিন্না সুব্বাইয়া ওই ১২ বছরের মেয়েটিকে বিয়ে করে। যদিও একদিন পরেই নারী ও শিশু কল্যাণ দফতরের উদ্যোগে মেয়েটিকে উদ্ধার করা গিয়েছে। শিশুটিকে জেলা শিশু স্বাস্থ্য দফতরে রাখা হয়েছে এবং তার কাউন্সেলিং করানো হচ্ছে।

    পুলিশ সূত্রে খবর, কোত্তুরের বাসিন্দা ওই দম্পতি প্রতিবেশী সুব্বাইয়ার কাছে টাকা চেয়েছিলেন। পরে মেয়েকে বিক্রি করার প্রতিদান হিসেবে ১০ হাজার টাকা দিতে রাজি হয় সে। যদিও ওই দম্পতি তার কাছে ২৫ হাজার টাকা চেয়েছিল। পুলিশ জানতে পেরেছে, বিবাদের কারণে কিছুদিন আগেই সুব্বাইয়ার স্ত্রী তাকে ছেড়ে চলে গিয়েছেন। তার পর থেকেই ওই প্রতিবেশী ১২ বছরের মেয়েটিকে বিয়ে করার ইচ্ছে হয়েছিল তার। বুধবার মেয়েটিকে বিয়ে করার পর দামপুরে এক আত্মীয়ের বাড়িতে নিয়ে যায় সুব্বাইয়া। প্রতিবেশীরা জানতে পেরেই গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানকে খবর দেন। প্রধান শিশু কল্যাণ দফতরে যোগাযোগ করেন।

    বালিকুড়া চাইল্ডলাইনেও কয়েকদিন আগেই এমনই একটি ঘটনার শিকার হওয়ায় একটি মেয়েকে উদ্ধার করা হয়। বৌদ্ধ থেকে তাকে পাচার করা হয়েছিল বলে খবর। অপেরায় কাজের টোপ দিয়ে তাকে ৪০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেওয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ। শোভা গ্রামের মহেন্দ্র কুমার সোয়াইনের বিরুদ্ধে ওইদিনই মামলা দায়ের করে পুলিশ। যদিও এখনও অভিযুক্ত মহেন্দ্রকে ধরতে পারেনি পুলিশ।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: