বাইক বিক্রির বিজ্ঞাপন দিয়ে ৬ লক্ষ টাকা খোয়ালেন হায়দরাবাদের ব্যক্তি!

হায়দরাবাদের গাচ্ছিবওলির বাসিন্দা ওই ব্যক্তি পেশায় চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট। কিছু দিন আগে তিনি একটি অ্যাপে নিজের বাইক বিক্রি করার

হায়দরাবাদের গাচ্ছিবওলির বাসিন্দা ওই ব্যক্তি পেশায় চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট। কিছু দিন আগে তিনি একটি অ্যাপে নিজের বাইক বিক্রি করার

  • Share this:

#হায়দরাবাদ: হায়দরাবাদে বাইক বিক্রি করতে গিয়ে ৬ লক্ষ টাকা খোয়ালেন ব্যক্তি। QR কোডের মাধ্যমে ওই ব্যক্তির অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা হাতাল প্রতারক। পরে বুঝতে পেরে সাইবার ক্রাইম বিভাগে খবর দেন তিনি।

হায়দরাবাদের গাচ্ছিবওলির বাসিন্দা ওই ব্যক্তি পেশায় চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট। কিছু দিন আগে তিনি একটি অ্যাপে নিজের বাইক বিক্রি করার বিজ্ঞাপন দেন। জানা যায়, বিজ্ঞাপনটি পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গেই তিনি একটি ফোন পান। যেখানে বাইক কিনবেন বলে একজন দাম জিজ্ঞাসা করে।

এই ব্যক্তি জানিয়ে দেন, বাইকটির দাম ৩,৫০০ টাকা। কিন্তু সেই টাকা কমানোর জন্য দরদাম করে সে। পরে সমস্ত কথা হয়ে গেলে আগাম কিছু টাকা দেওয়ার কথা জানায় ফোনের ওপাশের ব্যক্তি। চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট তাতে রাজি হয়ে যান।

এবার কথা মতো ওই ব্যক্তি আগাম কিছু টাকা দেওয়ার জন্য একটি QR কোড পাঠায়। জানায়, ওই কোড স্ক্যান করলেই তিনি ওর অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা পেয়ে যাবেন। সেই মতো QR কোড-সহ মেসেজ আসতেই ওই ব্যক্তি টাকা পাওয়ার জন্য তা স্ক্যান করেন এবং প্রথম বারই তাঁর অ্যাকাউন্ট থেকে ২ লক্ষ টাকা চলে যায়।

টাকা ডেবিট হওয়ার মেসেজ পেতেই তিনি ওই ব্যক্তিকে ফোন করেন, যে বাইকটি কিনছে। সে জানায় এটা এমনি চলে এসেছে, রিফান্ড হয়ে যাবে। এবার আবার একটি QR কোড আসে ওই ব্যক্তির ফোনে, সেটা স্ক্যান করতে আবারও ২ লক্ষ টাকা চলে যায়। আবারও বাইক যে কিনছে তাকে ফোন করে ওই ব্যক্তি। জানায় পুরো বিষয়টা। তখন সে বোঝায়, এটা ব্যঙ্কের বা সার্ভারের কোনও সমস্যা। তার অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা কাটেনি। তাই আবারও একটি QR কোড পাঠায়। যেটায় স্ক্যান করার পর তিন নম্বর বার ২ লক্ষ টাকা হাওয়া হয়। এবার তৃতীয়বার ওই ব্যক্তিকে ফোন করায়, সে আর ফোন ধরেনি।

এই পরিস্থিতিতে চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট বুঝে যান, তিনি প্রতারণার শিকার, সব মিলিয়ে মোট ৬ লক্ষ টাকা খুইয়েছেন। তাই তড়িঘড়ি থানায় ফোন করেন ও পরে সাইবার ক্রাইম বিভাগে অভিযোগ দায়ের করেন।

তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতে সাইবেরাবাদ সাইবার ক্রাইম বিভাগ তদন্ত শুরু করেছে। তল্লাশি শুরু হয়েছে প্রতারকের খোঁজে। শেষ পাওয়া খবর পর্যন্ত এখনও কারও খোঁজ পাওয়া যায়নি!

First published: