corona virus btn
corona virus btn
Loading

প্রতিবাদের দু'বছর পর প্রতিশোধ নিতেই টিটাগড়ে খুন কলেজছাত্র, জেরায় কবুল অভিযুক্তের

প্রতিবাদের দু'বছর পর প্রতিশোধ নিতেই টিটাগড়ে খুন কলেজছাত্র, জেরায় কবুল অভিযুক্তের
Representational Image

নিহত তৌফিকের পরিবারও মনে করছে দু'বছর আগের সেই প্রতিবাদের প্রতিশোধ নিয়েছে আরিফ।

  • Share this:

#হাওড়া: প্রতিবাদের প্রতিশোধ। দু'বছর আগে টিটাগড়ের উড়ানপাড়ায় বাড়ির সামনে আরিফ ইকবালের মদের আসর বসানোর প্রতিবাদ করেছিল কলেজ ছাত্র তৌফিক আলি। দু'বছর ধরে সেই রাগ ভেতরে পুষে রেখেছিল আরিফ। শুক্রবার রাতে সেই রাগ মেটাতেই গুলি করে সে খুন করে তৌফিককে। পুলিশি জেরার উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর এই সত্য। নিহত তৌফিকের পরিবারও মনে করছে দু'বছর আগের সেই প্রতিবাদের প্রতিশোধ নিয়েছে আরিফ।

শুক্রবার সন্ধ্যায় নিজের মোটর বাইকে করে বাড়িতে ফিরছিলেন বারাকপুর রাষ্ট্রগুরু সুরেন্দ্রনাথ কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র তৌফিক। বাড়ির কাছে অন্য একটি মোটরবাইক নিয়ে তার পথ আটকায় আরিফ। রাস্তা ছাড়তে বললে শুরু হয় বচসা। যা হাতাহাতিতে গড়ায়। পরিস্থিতি উত্তপ্ত হতে শুরু করলে স্থানীয় বাসিন্দাদের হস্তক্ষেপে তখনকার মতো মিটমাট হয়ে যায় বিষয়টি। কিন্তু স্থানীয় বাসিন্দারা বুঝতে পারেননি আরিফের মূল উদ্দেশ্যটা। কিছু সময় পরই দলবল নিয়ে এসে তৌফিককে তার বাড়ির সামনে গিয়ে গুলিতে ঝাঁঝরা করে দেয় আরিফ। তারপর মোটরবাইকে চম্পট দেয় তারা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা পুলিশকে জানিয়েছিলেন, আরিফ-সহ পাঁচ দুষ্কৃতী মোটরবাইকে এসেছিল। রাতভর তল্লাশির পর শনিবার সকালে গ্রেফতার করা হয় আরিফ ও তার এক সাগরেদকে। উদ্ধার হয় খুনে ব্যবহৃত অস্ত্র। পুলিশি জেরায় আরিফ স্বীকার করে নেয়, প্রতিবাদী তৌফিকের প্রতিশোধ নিতেই খুন করেছে সে।

কি ঘটেছিল দু'বছর আগে?

তৌফিকের কাকা জানিয়েছেন, দু'বছর আগে তাদের বাড়ির সামনেই মদের আসরে বসেছিল আরিফ। ঘরের সামনে মদের আসর চলার প্রতিবাদ করেছিলেন তৌফিক। তখনও তাদের মধ্যে বচসা বাধে। টিটাগড় থানায় আরিফের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানায় তৌফিকের পরিবার। পুলিশ আটক করে আরিফকে। যদিও পরবর্তীতে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ কাকার। তারপর দু'বছরের জন্য সৌদি আরবে চাকরি করতে চলে যায় আরিফ। কিন্তু মনের ভেতর রাত পুষে রেখেছিল আরিফ। লকডাউনের আগে দেশে ফেরার পর থেকেই তৌফিককে বিভিন্ন সময় খুনের হুমকি দিত সে।

নিহত ছাত্রের পরিবারের দাবি, শুক্রবার রাতে তৌফিককে খুনের জন্যই পরিকল্পনামাফিক তার পথ আটকানো হয়। তারপর উত্তপ্ত পরিস্থিতি তৈরি করে খুন করা হয়।

তৌফিক খুন হওয়ার পর থেকেই এলাকায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া। কারণ এলাকায় যথেষ্ট ভদ্র ছেলে বলেই পরিচিত ছিলেন তিনি। কারও সাথে ঝুট-ঝামেলার জড়াননি কোনওদিন। তাই এরকম প্রতিবাদী ছেলের খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত আরিফের চরম শাস্তি চাইছে প্রতিবেশী ও পরিবার।

সুজয় পাল

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: July 11, 2020, 9:42 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर