corona virus btn
corona virus btn
Loading

মৃতদেহের পাশে লেখা দেহে রহস্যভেদ পুলিশের! অভিযুক্ত গ্রেফতার পার্ক থেকে

মৃতদেহের পাশে লেখা দেহে রহস্যভেদ পুলিশের! অভিযুক্ত গ্রেফতার পার্ক থেকে
Photo-Representative

গলায় ও দেহের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন দেখে পুলিশের সন্দেহ আরও বাড়ে।

  • Share this:

#কলকাতা: বুধবার সকালের বছর ত্রিশের মৃতদেহ দেখে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান হয় খুন করা হয়েছে।  নৈহাটির বাসিন্দা রাকেশ সাউয়ের দেহ উদ্ধার হয় গোরাপদ সরকার লেন থেকে। গলায় ও দেহের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন দেখে পুলিশের সন্দেহ আরও বাড়ে। একটি কারখানার অস্থায়ী শ্রমিকের মৃত্যুতে উঠে আসে অনেক প্রশ্ন। মৃত ব্যাক্তির দেহ উদ্ধার করার সময় দেহের পাশ থেকে একটি লেখা পুলিশের তদন্তের সূত্র হিসাবে কাজ করে। লেখা একটি গোটা লাইন দেখেও পারিপার্শ্বিক তথ্য সংগ্রহের কাজ শুরু করে উল্টোডাঙ্গা থানা।

লেখা ছিল " সিআইডি অফিসার রাজ সাবধান, আগর জাদা চালাকি করেগো তে ফাঁস জায়েগা"। মৃত রাকেশের পরিচিত লোকদের থেকে বিভিন্ন তথ্যের মাধ্যমে উঠে আসে আরও এক অস্থায়ী শ্রমিকের কথা। মৃতদেহের পাশে দেওয়ালে দেখে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয় একটি ডাইরি। হিন্দিতে লেখা নানান গানের লাইনের কোন মিল না থাকলেও দেওয়ালে লেখার সঙ্গে মিল পাওয়া যায়। অভিযুক্তের খোঁজ শুরু করলেও বারবার ব্যর্থ হয় তদন্তকারী অফিসার। পরে খবর আসে দক্ষিণ কলকাতার দেশপ্রিয় পার্কের একটি জায়গায় এক ব্যাক্তির সন্ধান মিলেছে। তদন্তকারী অফিসার পার্কে গিয়ে গ্রেফতার করে সুমন শেখ হরফে সাকিল খান নামে ঐ ব্যক্তিকে।

বীরভূমের বাসিন্দাকে গ্রেফতার করার পরে প্রথম খুনের ঘটনা স্বীকার না করলেও পরে নিজে মুখেই খুনের কথা স্বীকার করে অভিযুক্ত। পুলিশের জেরায় হাজারো প্রশ্নের মধ্যে বারবার জানতে চাওয়া হয় কেন খুন করা হল রাকেশকে? পুলিশের প্রশ্নের মুখে ভেঙে পড়ে অভিযুক্ত টাকার না পাওয়ার কথা জানান পুলিশকে। অভিযুক্ত জানান রাকেশ সাউয়ের থেকে অভিযুক্ত সুমন শেখ হরফে সাকিল বেশ কিছু টাকা চেয়েছিল। রাকেশ দিতে অস্বীকার করায় সুযোগের খোঁজ করছিল সাকিল। রাকেশের ঘরে কাউকে না দেখে দরজা খোলা পেয়ে পড়ে থাকা রাকেশের জামার পকেট থেকে টাকা খোঁজে অভিযুক্ত। রাকেশ সেই কাজ দেখার পরে বাধা দিলেই একটি ছুড়ি দিয়ে আঘাত করে রাকেশ সাউকে। সেই ছুড়ির আঘাতে মৃত্যু হয় রাকেশের। মৃত্যু নিশ্চিত হবার পরে বেশ কিছু সময় ধরে দেওয়ালে একটি হিন্দি লাইন লেখে অভিযুক্ত। হাতের লেখা মিলিয়ে যে অভিযুক্তকে জালে পেয়ে যাবে পুলিশ, তা একবারও ভাবতে পারেনি সাকিল। অভিযুক্তকে আদালতে তোলা হলে আগামী ৩০ তারিখ পর্যন্ত পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেয় শিয়ালদহ আদালত।

Susovan Bhattacharjee

Published by: Debalina Datta
First published: August 22, 2020, 12:03 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर