corona virus btn
corona virus btn
Loading

চিকিৎসক বাবাকে গাছে বেঁধে স্ত্রী ও মেয়েকে গণধর্ষণ

চিকিৎসক বাবাকে গাছে বেঁধে স্ত্রী ও মেয়েকে গণধর্ষণ
representative image
  • Share this:

#পটনা: অসহায় বাবার চোখের সামনেই নৃশংস নির্যাতন চলল নাবালিকা মেয়ে ও স্ত্রীয়ের উপর। চিকিৎসককে গাছে বেঁধে তাঁর স্ত্রী ও মেয়েকে আগ্নেয়াস্ত্রের সামনে গণধর্ষণ করে ১২ জনের দুষ্কৃতি দল। ঘটনাটি ঘটেছে বিহারের গয়ার সোনডিহা গ্রামে। এখনও পর্যন্ত ২০ জন সন্দেহভাজনককে আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রোগী দেখে বাড়িতে ফিরছিলেন চিকিৎসক। তাঁর সঙ্গে ছিলেন মেয়ে ও স্ত্রী। জাতীয় সড়কের উপর তাঁর বাইকের রাস্তা আটকায় একদল দুষ্কৃতি। টেনে হিঁচড়ে তিনজনকে বাইক থেকে নামানো হয়। চিকিৎসককে ব্যাপক মারধরের পর বেঁধে ফেলা হয় রাস্তার পাশের গাছে। এরপর তাঁরই চোখের সামনে প্রথমে স্ত্রী ও পরে তাঁর নাবালিকা মেয়ের উপর নৃশংস শারীরিক অত্যাচার চালায় দুষ্কৃতিরা।

আরও পড়ুন 

সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেল বাইকে চড়ে তিনজন এসেছিল বুখারিকে খুন করতে

নির্যাতিতা মহিলা জানিয়েছেন, টাকা পয়সা, দামী মোবাইল, গয়না সবকিছু কেড়ে নেওয়ার পরও নিষ্কৃতি দেওয়া হয়নি। কমপক্ষে ১২ জন তাদের উপর নির্যাতন চালায়। দুষ্কৃতিদের প্রত্যেকের হাতে ছিল আগ্নেয়াস্ত্র। এই পুরো সময়টিতে চিকিৎসক ছিলেন তাদের বন্দুকের নিশানায়।

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনায় পুলিশি গাফিলতির অভিযোগ উঠেছে। কুঞ্চ পুলিশ ফাঁড়ির খুব কাছেই এমন নৃশংস ঘটনা ঘটায় উঠছে প্রশ্ন। এমনকি থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়েরের পরও পুলিশের গড়িমসিতে নির্যাতিতাদের মেডিক্যাল পরীক্ষায় বিলম্ব হয়। ইতিমধ্যেই কর্তব্যে গাফিলতির অভিযোগে কুঞ্চ পুলিশ ফাঁড়ির এসএইচও রাজীব রঞ্জনকে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

ঘটনায় অভিযুক্ত সন্দেহে ২০ জনকে আটক করেছে পুলিশ। এর মধ্যে ২ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। বাকি অভিযুক্তদের খোঁজে সোনডিহা ও পার্শ্ববর্তী গ্রামগুলিতে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। পটনা জোনের আইজিপি নাইয়ার হাসনাইন খান অভিযুক্তদের দ্রুত গ্রেফতার করার আশ্বাস দিয়েছেন।

First published: June 15, 2018, 11:07 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर