• Home
  • »
  • News
  • »
  • crime
  • »
  • AL QAEDA MODULE BUSTED IN UTTAR PRADESH LUCKNOW PLANNED SUICIDE ATTACKS SAID POLICE RC

Lucknow Al-Qaeda Terrorist Update: লখনউয়ে বড়সড় সাফল্য পুলিশের, আত্মঘাতী বিস্ফোরণের ছক ছিল আল কায়দা জঙ্গিদের!

লখনউয়ে বড়সড় সাফল্য পুলিশের, আত্মঘাতী বিস্ফোরণের ছক ছিল আল কায়দা জঙ্গিদের!

এলাকা পুরো সিল করে দিয়ে দীর্ঘ সময় ধরে চলে তল্লাশি অভিযান (Lucknow Al-Qaeda Terrorist Update)।

  • Share this:

    #লখনউ: উত্তরপ্রদেশের লখনউতে (Uttar Pradesh Lucknow) আল কায়দা (Al Qaeda) জঙ্গিদের হামলার (Terrorist Attacks) বড়সড় ছক বাঞ্চাল করল পুলিশের অ্যান্টি টেররিজম স্কোয়াড (ATS)। পুলিশ সূত্রে খবর, জনবহুল জায়গায় আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণের পরিকল্পনা ছিল জঙ্গিদের। শুধু লখনউ নয়, অন্য শহরেও এমন জঙ্গিহামলার ছক কষেছিল তারা। রবিবার সকাল থেকেই এটিএস অভিযান শুরু করে জঙ্গিদমনের। এলাকা পুরো সিল করে দিয়ে দীর্ঘ সময় ধরে চলে তল্লাশি অভিযান (Lucknow Al-Qaeda Terrorist Update)।

    পুলিশ সূত্রে খবর, আল কায়দার সহযোগী গোষ্ঠী 'আনসার গজওয়াত-উল-হিন্দ'-এর সদস্য দুই জঙ্গিকে ইতিমধ্যেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধৃত দুই জঙ্গির নাম মিনহাজ আহমেদ ও মসিরুদ্দিন ওরফে মুসির। দুইজনেই লখনউয়ের বাসিন্দা। সাংবাদিক সম্মেলন করে লখনউ পুলিশের এক সিনিয়র অফিসার প্রশান্ত কুমার জানিয়েছেন, 'এটিএস লখনউয়ের বড়সড় জঙ্গিহামলার ছক বাঞ্চাল করতে সফল হয়েছে। দুই আল কায়দা জঙ্গিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে অস্ত্র ও বোমা উদ্ধার হয়েছে। তদন্ত চলছে।'

    তিনি আরও জানিয়েছেন, 'রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় বিস্ফোরণের ছক কষেছিল আল কায়দা জঙ্গিরা। জনবহুল এলাকা ও স্মৃতিসৌধগুলিকে টার্গেট করা হয়েছিল। ১৫ অগস্ট স্বাধীনতা দিবসকে লক্ষ্য করে এই ছক তৈরি করা হচ্ছিল। মানববোমা বিস্ফোরণের ছক ছিল। লখনউয়ের পাশাপাশি অন্য শহরেও হামলার পরিকল্পনা ছিল। এই সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের পিছনে মাথা কাজ করছিল পেশওয়ার ও কুয়েট্টা থেকে।'

    পুলিশ জানিয়েছে, মিনহাজ আহমেদের ঘর থেকে পিস্তল ও বিস্ফোরক উদ্ধার করা গিয়েছে। লখনউয়ের কাকোরির বাসিন্দা এই ব্যক্তির বয়স প্রায় ৩০। আরেকটি দল যারা মসিরুদ্দিনের (৫০) বাড়িতে উঠেছিল। সেটি জওনপুরের মারিয়াহু এলাকায় অবস্থিত। সেখান থেকে বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক ও প্রেশাস কুকার বোমা উদ্ধার করা গিয়েছে। সোমবার ধৃত দুই জঙ্গিকে আদালতে তোলা হবে।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: