ক্রাইম

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

ফেসবুক লাইভ করে আত্মহত্যার চেষ্টা, বন্ধুর উপস্থিত বুদ্ধি বাঁচালো প্রাণ

ফেসবুক লাইভ করে আত্মহত্যার চেষ্টা, বন্ধুর উপস্থিত বুদ্ধি বাঁচালো প্রাণ

বন্ধুর উপস্থিত বুদ্ধি ও কলকাতা পুলিশের তৎপরতায় জীবন বাঁচল

  • Share this:

#কলকাতা:  খেয়ে উঠে শনিবার রাতে সবে মোবাইল ঘাঁটা শুরু করেছিল গড়ফার বাসিন্দা নীলাদ্রি বন্দ্যোপাধ্যায়। কিছুক্ষণ মোবাইল ঘাটতেই ফেসবুক লাইভে সুমন্ত দাস (নাম পরিবর্তিত) নামে এক বন্ধুকে দেখে চোখ কপালে ওঠে নীলাদ্রির। সেখানে দেখা যায় গলায় কিছু একটা জড়িয়ে ফাঁস দেওয়ার চেষ্টা করছে। খারাপ কিছু হতে চলেছে বুঝে সঙ্গে সঙ্গে পুলিশের ১০০ ডায়ালে ফোন করেন নীলাদ্রি। ঘটনা শুনে মুহূর্তের মধ্যে ছুটে এসে সুমন্তকে উদ্ধার করে পুলিশ। গড়ফা থানার এক অফিসার বলেন, "নীলাদ্রি সঠিক সময়ে আমাদের জানানোয় বাঁচানো সম্ভব হল। নাহলে বড় বিপদ হয়ে যেতে পারত।"

পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সূত্রে খবর, সুমন্ত গড়ফার সাপুইপাড়ার বাসিন্দা। সঙ্গীত জগতের সঙ্গে যুক্ত তিনি। কিন্তু সেখানে তেমন উন্নতি না হওয়ায় অবসাদে ভুগছিলেন। সেই কারণেই নিজেকে শেষ করে দেওয়ার চেষ্টা করছিলেন বলে পুলিশকে জানিয়েছেন। শনিবার মধ্যরাতে তাকে উদ্ধার করার পর কাউন্সেলিং করে পুলিশ। অবসাদ কাটাতে প্রয়োজনে মনোবিদের সাহায্য নিতে বলা হয়েছে পরিবারকে।

ওই রাতে ঠিক কি হয়েছিল?

নীলাদ্রি জানিয়েছেন, রাতের খাবার খেয়ে বিছানায় শুয়ে সবে ফেসবুক দেখতে শুরু করেছিলেন। তিনি বলেন, "হঠাৎ দেখি সুমন্ত ফেসবুক লাইভে এল। কিন্তু আসার পর দেখছি গলায় ফাঁস দিয়ে কিছু করছে। করতে গিয়ে পড়ে যাওয়ার পর আবার চেষ্টা করছিল। কি করবো বুঝতে পারছিলাম না। তখন হঠাৎ মনে হল তাই ১০০ ডায়ালে ফোন করে পুলিশের সাহায্য চাইলাম। গড়ফা থানার পুলিশ সঙ্গে সঙ্গে এসে দরজা ভেঙে উদ্ধার করলো। নাহলে ভয়ঙ্কর কিছু হয়ে যেত। পুলিশকে ধন্যবাদ।"

সুমন্তর মা জানিয়েছেন, রাতে মদ্যপ অবস্থায় এসেছিল ছেলে। টাকা চেয়েছিল। টাকা দিতে অপারগ বলার পর থেকে আচরণ বদলে যায়। আলমারিতে লাথি মারতে থাকে। তারপর একটা ইট নিয়ে নিজেই নিজের মুখে আঘাত করে। তাতে নাক ফেটে রক্ত বেরোয়। তিনি বলেন, "এরপর ঘরে গিয়ে দরজা বন্ধ করে দেয়। রাতে রায়গঞ্জ থেকে এক আত্মীয় ফোন করে জানায় যে ছেলে নাকি ফেসবুক লাইভ করে কি সব করছে। গলায় ফাঁস দেওয়ার চেষ্টা করছিল। তারপর আমি গিয়ে দরজা ধাক্কাই। কিন্তু খুলছিল না। পুলিশ এসে দরজা ভেঙে উদ্ধার করে।"

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ১০০ ডায়ালে ফোন আসার পর সঙ্গে সঙ্গে গড়ফা থানাকে জানানো হয়। পাশাপাশি মোবাইলের আই পি অ্যাড্রেসের মাধ্যমেও ছেলেটির বাড়ির ঠিকানা খোঁজা হয়। তারপর দরজা ভেঙে তাকে উদ্ধার করা হয়। প্রসঙ্গত, এই প্রথম নয়, আগেও একইভাবে ফেসবুক লাইভ করে আত্মহত্যার চেষ্টা রুখেছে কলকাতা পুলিশ।

সুজয় পাল

Published by: Debalina Datta
First published: February 23, 2020, 11:59 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर