ক্ষত-বিক্ষত করে দিয়েছে গোপনাঙ্গ, পরিচারকের ঘৃণ্য যৌন লালসার শিকার ২ বছরের শিশুপুত্র

ক্ষত-বিক্ষত করে দিয়েছে গোপনাঙ্গ, পরিচারকের ঘৃণ্য যৌন লালসার শিকার ২ বছরের শিশুপুত্র
দিল্লিতে যৌন লালসার শিকার ২ বছরের শিশুপুত্র। প্রতীকী ছবি।

আপনি যার কাছে আদরের সন্তানকে সযত্নে রেখে কাজে বেরোন, ভেবে দেখেছেন কি কখনও তার কাছে আদৌ সে সুরক্ষিত কিনা! আদৌ রাখে যত্নে রাখে কিনা সে বা সেই একরত্তি তার কাছে কোনভাবে হেনস্থার শিকার হচ্ছে কিনা!

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: আপনি যার কাছে আদরের সন্তানকে সযত্নে রেখে কাজে বেরোন, ভেবে দেখেছেন কি কখনও তার কাছে আদৌ সে সুরক্ষিত কিনা! আদৌ রাখে যত্নে রাখে কিনা সে বা সেই একরত্তি তার কাছে কোনভাবে হেনস্থার শিকার হচ্ছে কিনা। যদি এখনও না ভেবে থাকেন, তাহলে এই প্রতিবেদন পড়ার পরে ভাবতে বাধ্য হবেন। কারণ যার হাতে বাবা-মা সন্তানকে রেখে নিশ্চিন্তে বেরোন, সেই পরিচারকের ঘৃণ্য যৌন লালসার শিকার ২ বছরের শিশুপুত্র। লজ্জাজনক ঘটনাটি ঘটেছে খোদ রাজধানীতে।

    দিল্লির সুভাষনগর এলাকায় ঘটনাটি ঘটে মঙ্গলবার। রাতেই স্থানীয় থানায় অভিযোগ দায়ের করেন শিইশুটির বাবা। ঘটনার তদন্তে নেমে ইতিমধ্যেই পুলিশ  ১৬ বছর বয়সী অভিযুক্ত পরিচারকে আটক করেছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, শিশুটির বাবার অভিযোগ, মঙ্গলবার বেশ খানিকটা রাত করেই অভিযুক্ত ওই পরিচারক শিশুটিকে তাঁদের বাড়ির দোতলার একটি ঘরে নিয়ে যায়। সেখানেই তাঁর ওপর শারীরিক নির্যাতন করে। কিন্তু অভিযুক্ত যে এমন কাণ্ড ঘটাবেন, তা প্রথমেই বুঝতে পারেননি তাঁরা। পরিবারের দাবি, ছেলেকে ওপরে নিয়ে গিয়েছিল অন্যান্যদিনের মতোই। তাই ভাবনা আসেনি। কিন্তু যাওয়ার কিছুক্ষণ পরেই ছেলে চিৎকার করে কাঁদতে শুরু করে। তখন কী হয়েছে দেখতে, তার মা দৌড়ে যায় ছেলের কাছে।

    অভিযোগকারী শিশুটির বাবা জানিয়েছে, তাঁর স্ত্রী যখন প্রথম ওপরে জান তখন ঘরের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ ছিল। চিৎকার করে সেই দরজা খুলতে বলেন তিনি। এরপরেই সামনে আসে সাংঘাতিক ঘটনার কথা। শিশুটির মা জানিয়েছেন, যখন অভিযুক্ত দরজা খলে তখন ছেলের যৌনাঙ্গের রক্তারক্তি অবস্থা। এরপর কী করে এমন অবস্থা হল তা নিয়ে চিকার চেঁচামেচি করতেই সে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। পরিবারের দাবি, নির্যাতনের জেরে একরত্তির গোপনাঙ্গ ক্ষত-বিক্ষত হয়ে গিয়েছে। এরপরেই পুলিশের দ্বারস্থ হন তাঁরা।


    ঘটনার অভিযোগ দায়ের হওয়ার পরে তদন্তে নামে পুলিশ। নিউ দিল্লি রেল স্টেশন থেকে আটক করা হয় অভিযুক্তকে। পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, জিজ্ঞাসাবাদের সময় নিজের দোষের কথা স্বীকার করে নিয়েছে। জানিয়েছে, ঘটনার কথা জানাজানি হওয়ার পরে সে দিল্লি থেকে পালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: