• Home
  • »
  • News
  • »
  • crime
  • »
  • বাইপাসের ধারে খুনের ঘটনায় গ্রেফতার ২, মদ্যপানের পরেই খুনের কথা স্বীকার দুই অভিযুক্তের

বাইপাসের ধারে খুনের ঘটনায় গ্রেফতার ২, মদ্যপানের পরেই খুনের কথা স্বীকার দুই অভিযুক্তের

সোমবার ফুলবাগান থানা  এলাকায় বাইপাসের  সল্টলেক স্টেডিয়াম মেট্রো স্টেশনের নিচে সার্ভিস  রোডের ফুটপাতে সঞ্জীব দাসের রক্তাক্ত  দেহ উদ্ধার করে পুলিশ |

সোমবার ফুলবাগান থানা এলাকায় বাইপাসের সল্টলেক স্টেডিয়াম মেট্রো স্টেশনের নিচে সার্ভিস রোডের ফুটপাতে সঞ্জীব দাসের রক্তাক্ত দেহ উদ্ধার করে পুলিশ |

সোমবার ফুলবাগান থানা এলাকায় বাইপাসের সল্টলেক স্টেডিয়াম মেট্রো স্টেশনের নিচে সার্ভিস রোডের ফুটপাতে সঞ্জীব দাসের রক্তাক্ত দেহ উদ্ধার করে পুলিশ |

  • Share this:

#কলকাতা: বাইপাসের ধারে  রহস্যজনক মৃত্যু  যুবকের ঘটনার কিনার করল পুলিশ। সোমবার দত্তাবাদের বাসিন্দা সঞ্জীত দাসের খুনের ঘটনায় ফুলবাগান থানার পুলিশ প্রথমে একাধিক প্রশ্নের সম্মুখীন হলেও ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টের পরে অনেকটাই দিনের আলোর মত পরিস্কার হয় পুলিশের কাছে। বাইপাসের ধারে সঞ্জীব দাসের দেহ উদ্ধারের পরে পুলিশের মনে প্রথম প্রশ্ন হয় দুর্ঘটনা না খুন?

ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে স্পষ্ট হয় খুন করা হয়েছে সঞ্জীব দাসকে। ফুলবাগান থানার পুলিশ তদন্তের নেমে গ্রেফতার করে সঞ্জীবের পরিচিতকে। রবি দত্ত ও মন্টু দাস খুন করে। দুই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করার পরে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে অভিযুক্তরা স্বীকার করে খুনের কথা। খুনের কারন হিসাবে বলা হয় সঞ্জীব দাস দুই অভিযুক্তকে মদ্যপান করে গুল ছুড়ছিল। সেই গুল ছোঁড়ার পরেই বচসা শুরু হয় দুইপক্ষের মধ্যে।  বচসা থেকে মারামারিতে পৌছাতেই পাথর ছুড়ে মারা হয় সঞ্জীব দাসকে। সেই পাথর মাথায় আঘাত করার পরেই মাটিতে লুটিয়ে পড়ে সঞ্জীব। তারপরে বাইপাসের ধারে রক্তাক্ত সঞ্জীবকে ফেলে পালায় অভিযুক্তরা। মদ্যপান তিনজনে পৃথক জায়গায় করলেও দেখা হবার পরেই এই বচসা।

সোমবার ফুলবাগান থানা  এলাকায় বাইপাসের  সল্টলেক স্টেডিয়াম মেট্রো স্টেশনের নিচে সার্ভিস  রোডের ফুটপাতে সঞ্জীব দাসের রক্তাক্ত  দেহ উদ্ধার করে পুলিশ | পুলিশ সূত্রের খবর, মাথায় আঘাতের  চিহ্ন ছিল ওই যুবকের, ডান হাতে ট্যাটুও দেখে পুলিশ | যেখানে বাংলায় লেখা "মা"  ও ইংরেজিতে  লেখা "S"  | এই ট্যাটুর  ইঙ্গিত ধরে তদন্তকারীরা  ওই যুবকের সম্পর্কে জানার চেষ্টা করার পরেই সন্ধান মেলে সঞ্জীবের।

পুলিশ সূত্রের খবর, ওই বেসরকারি  হাসপাতালের পঞ্চাশ মিটার দূরত্বে সার্ভিস রোডে বেশ কয়েকটি জায়গাতে রক্তের দাগ পাওয়া গিয়েছেল। হাসপাতালের ৭০ মিটার দূরে মিলেছে আরও কিছু রক্তের দাগ ও সেখানেই  ফুটপাতে মিলেছে ওই যুবকের দেহ | মাথায় আঘাতের চিহ্ন ছিল ও রাস্তায় একাধিক জায়গাতে রক্তের দাগ নজরে আসে পুলিশের| খুন নাকি অন্য কোনও ভাবে মৃত্যু হয়েছে খতিয়ে দেখেন তদন্তকারীরা। তারপরেই ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে নিশ্চিত হয় খুনের কথা। তারপরেই ফুলবাগান থানা গ্রেফতার করে দুই অভিযুক্তকে।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: