corona virus btn
corona virus btn
Loading

যান সমস্যা কাটাতে কলকাতায় রোপ-ট্যাক্সি? নামতে পারে দ্রুতগতির জলযান! ভাবনা শুরু বাস ভাড়া নিয়ে

যান সমস্যা কাটাতে কলকাতায় রোপ-ট্যাক্সি? নামতে পারে দ্রুতগতির জলযান! ভাবনা শুরু বাস ভাড়া নিয়ে

করোনা পরবর্তী সময়ে বর্তমান পরিস্থিতিতে পরিবহণ দফতরের কর্তাব্যক্তিদের মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে 'রোপ-ট্যাক্সি'।

  • Share this:

#কলকাতা: যানবাহন ভোগান্তি। আরও স্পষ্ট করে বললে বাস হয়রানি। করোনা পরবর্তী পর্যায়ে কলকাতার  রোজনামচায় নতুন সংযোজন রাস্তায় নেমে বাসের জন্য ম্যারাথন অপেক্ষা। বাস মালিক সংগঠনগুলোর সঙ্গে পরিবহণ দফতরের টক-ঝাল সম্পর্কের বলি হচ্ছেন লক্ষ লক্ষ যাত্রী।  পরিবহণ দফতরের পরিসংখ্যান বলছে, জেলা ও শহরতলীর ট্রেন না চললেও সাধারণ অবস্থায় প্রতিদিন শুধু কলকাতাতেই রাস্তায় নামেন ৩০ লক্ষের বেশি মানুষ। ট্রেন ব্যবস্থা চালু থাকলে এই সংখ্যাটা পৌঁছে যায় পঞ্চাশের উপরে।

অন্যদিকে সাধারণ অবস্থায় শুধু কলকাতায় বেসরকারি বাস ও মিনিবাস চলে গড়ে ৬০০০। সাম্প্রতিককালে যদিও বিভিন্ন সমস্যার কারণে এই সংখ্যাটা ১৫ থেকে ২০ শতাংশ কমেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পরিবহণ দফতরের এক শীর্ষ কর্তার কথায়, "বাসে শুধু সিটিং প্যাসেঞ্জার নিতে হলে এখন কলকাতার রাস্তায় ৮ থেকে ৯ হাজার বাস নামাতে হবে। বাস্তবে সেটা সম্ভব নয়। আর যদি সম্ভব হয়ও, তাহলে কলকাতার ট্রাফিক সিস্টেম ভেঙে পড়বে।"

তাহলে উপায়? নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পরিবহণ দফতরের সেই শীর্ষকর্তার মতে,"বিকল্প ভাবতে হবে। দ্রুত গতির জলযান নামাতে হবে। যাতে কম সময়ে যানজট ছাড়াই পৌঁছনো যাবে গন্তব্যে।" প্রিন্সেপঘাট-বারাকপুর, হাওড়া-বারাকপুরের মত বেশ কিছু জলপথের ভাবনাও রয়েছে পরিবহণ দফতরের মাথায়।

একইসঙ্গে শহরে যানজট এড়িয়ে সুষ্ঠুভাবে গণপরিবহণ চালু রাখতে রোপ-ট‍্যাক্সির ভাবনা ঘুরপাক খাচ্ছে রাজ‍্য পরিবহন দফতরে। বহু আগে গঙ্গার ওপর দিয়ে রোপ-ট‍্যাক্সি চালানোর কথা ভেবেও পিছিয়ে এসেছিল পরিবহণ দফতর। পরবর্তীকালে বাতিল হয়ে যায় সেই ভাবনা। করোনা পরবর্তী সময়ে বর্তমান পরিস্থিতিতে পরিবহণ দফতরের কর্তাব্যক্তিদের মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে সেই 'রোপ-ট্যাক্সি'।

সে সব না হয় হল! কিন্তু বেসরকারি বাস ও মিনিবাসের রাস্তায় না নামার সমস্যার মূলে যে বাস-ভাড়া! সেখানে কি হবে? পরিবহণ দফতরে কান পাতলে শোনা যাচ্ছে, বিভিন্ন বাস মালিক সংগঠনের পেশ করা গত কয়েক দিনের খতিয়ান খতিয়ে দেখে বাসভাড়া বাড়ানোর পক্ষেই রায় আধিকারিকদের সংখ্যাগরিষ্ঠ মহলের। তবে সেই বর্ধিত বাস ভাড়া যেন সাধারণ মানুষের মাথা ব্যথার কারণ না হয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেও নজর থাকছে। বেসরকারি বাসে ১০, ১২, ১৫ টাকার স্টেজ চালু করার সম্ভাবনা প্রবল। অর্থাৎ বাসে উঠলেই ন্যূনতম ভাড়া দশ টাকা হওয়ার সম্ভাবনা। মিনিবাসের ক্ষেত্রে সেটা সামান্য হেরফের হবে। একইসঙ্গে কোভিড পরবর্তী সময়ে বাসকর্মীদের আতঙ্ক দূর করতে তাদের স্বাস্থ্য বীমার আওতায় আনা হচ্ছে। এই ক্ষেত্রে বাসকর্মীরা কর্মরত অবস্থায় করোনা আক্রান্ত হলে মিলবে স্বাস্থ্যবীমার সুবিধা।

PARADIP GHOSH 

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: June 9, 2020, 9:46 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर