স্বামীর মৃত্যু অক্টোবরে, ডিসেম্বরে সরকার জানাচ্ছে করোনা হয়নি...ধোঁয়াশায় পাতিয়ালার পরিবার

স্বামীর মৃত্যু অক্টোবরে, ডিসেম্বরে সরকার জানাচ্ছে করোনা হয়নি...ধোঁয়াশায় পাতিয়ালার পরিবার

Representative Image

PBGOVT-এর তরফে স্বামীর ফোনে আরও একটি মেসেজ (SMS) পান সোনিয়া। সেই মেসেজে লেখা ছিল যে সেলিমের র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট হয়ে গিয়েছে, ফলাফল বলছে তিনি সম্পূর্ণ রূপেই সুস্থ

  • Share this:

#পাতিয়ালা: ইতিমধ্যেই দেশের নানা প্রান্ত থেকে খবর আসছে, ভেসে আসছে খবর, Covid 19 মোকাবিলায় RT-PCR টেস্ট নিয়ে নানা রকমের জলঘোলা চলছে। কোথাও রোগীর মৃত্যুর পরে এসে পৌঁছচ্ছে ফলাফল, কোথাও বা আবার একজনের রিপোর্ট পৌঁছে যাচ্ছে অন্যের কাছে। পাতিয়ালার (Patiala) সেলিম খান এবং তাঁর পরিবারের সঙ্গেও কি সম্প্রতি সেই ঘটনাই ঘটল?

আপাতদৃষ্টিতে দেখলে ঘটনাকে নিছক বিভ্রান্তি বলেই মনে হবে, কিন্তু আদতে দেশের স্বাস্থ্যক্ষেত্রে করোনাভাইরাসের মোকাবিলায় কী পরিমাণ গা-ছাড়া মনোভাব রাজত্ব করছে, তার জ্বলন্ত প্রমাণ।

সূত্রের খবর, চলতি বছরের অক্টোবর মাসে পাতিয়ালার সেলিম খান করোনায় (Coronavirus) আক্রান্ত হয়েছিলেন। ওই মাসের মাঝামাঝি তাঁর লালারস পরীক্ষা করা হলে রিপোর্ট কোভিড পজিটিভ আসে। প্রথমে তাঁকে ভর্তি করা হয়েছিল রাজপুরা সরকারি হাসপাতালে। কিন্তু সেলিমের শারীরিক অবস্থার ক্রমশ অবনতি হতে থাকলে তাঁকে স্থানান্তরিত করা হয় অম্বালার মিশন হাসপাতালে। সেখানেই করোনার সঙ্গে যুঝতে না পেরে তাঁর মৃত্যু হয়!

আচমকা এ'ভাবে স্বামীর মৃত্যু সঙ্গত কারণেই বিপর্যস্ত করে রেখেছে সোনিয়া খানকে। কিন্তু সেলিমের মৃত্যুর মাস দুয়েকের মধ্যেই যে আরও এক নির্মম সত্যের সম্মুখীন হতে হবে, তা বোধহয় কল্পনাও করে উঠতে পারেননি তিনি এবং খান-পরিবার। খবর বলছে, চলতি মাসে প্রথমে সেলিমের মোবাইল নম্বরে myGOV-এর তরফ থেকে একটি মেসেজ আসে। ২ ডিসেম্বরের সেই মেসেজ জানায়, সেলিমের RT-PCR টেস্ট হয়ে গিয়েছে এবং সরকার তাঁকে সেল্ফ আইসোলেশনে থাকার পরামর্শ দিচ্ছে!

এর পরে PBGOVT-এর তরফে স্বামীর ফোনে আরও একটি মেসেজ (SMS) পান সোনিয়া। সেই মেসেজে লেখা ছিল যে সেলিমের র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট হয়ে গিয়েছে, ফলাফল বলছে তিনি সম্পূর্ণ রূপেই সুস্থ!

এত কিছুর পরে আর খান-পরিবারের পক্ষে চুপ করে থাকা সম্ভব ছিল না। তাঁরা আত্মীয়স্বজনের মধ্যে ওই মেসেজদু'টি ছড়িয়ে দেন এবং বিষয়টা কী তা জানার চেষ্টা করেন। এর পরেই প্রকাশ্যে আসে মর্মান্তিক সত্য।

জানা যায়, ওই মেসেজে সেলিমের ঠিকানায় উল্লেখ করা হয়েছিল কালো মাজরা নিয়ামতপুরের নাম। আদতে তা দুই পৃথক গ্রাম। সেলিমের বাড়ি নিয়ামতপুরে (Niamatpur), কালো মাজরা (Kalo Majra) তার পাশের গ্রাম। আর কালো মাজরা স্বাস্থ্যকেন্দ্র থেকেই সবাইকে এই সুস্থ থাকার মেসেজ পাঠানো হচ্ছে। যা পেয়েছেন অকালপ্রয়াত সেলিমের পরিবারও।

এ বিষয়ে সরকারের পদক্ষেপ কি, কালো মাজরা গ্রামের স্বাস্থ্যকেন্দ্রের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে কি না, তা এখনও জানা যায়নি।

Published by:Rukmini Mazumder
First published: