corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউন আর বৃষ্টির জেরে প্রধান রাস্তা শুনশান!তবে পুলিশের কড়া নজরদারি জারি

লকডাউন আর বৃষ্টির জেরে প্রধান রাস্তা শুনশান!তবে পুলিশের কড়া নজরদারি জারি
Photo- Representive

একে লকডাউন! সঙ্গে দোসর বৃষ্টি। এই দুইয়ের জেরে শুনশান শিলিগুড়ি।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি:  একে লকডাউন! সঙ্গে দোসর বৃষ্টি। এই দুইয়ের জেরে শুনশান শিলিগুড়ি। বৃষ্টির জেরে কার্যত ফাঁকা শহরের রাস্তাঘাট। কখোনো হালকা, কখোনো মাঝারী বৃষ্টি। সকাল থেকেই আকাশের মুখ ভার। পাহাড় থেকে সমতল। সর্বত্রই নাগাড়ে বৃষ্টি। শিলিগুড়িতে আজও নাকা তল্লাশি চলছে পুলিশের। বৃষ্টির জন্যে কিছুটা হালকা মেজাজে পুলিশ।

কেননা রাস্তাঘাটে অন্যদিনের তুলনায় লোকের দেখা কম। তবুও যারা বৃষ্টি আর লকডাউনকে উপেক্ষা করে বাড়ির বাইরে পা রেখেছেন, তাদের গ্রেপ্তার করছে পুলিশ। সকাল থেকেই উত্তরের চম্পাসারিতে টু জোনের ডিসিপির নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী টহল দেয়। অকারণে বাইরে বের হওয়ায় বহু লোককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। যার মধ্যে মহিলারাও রয়েছে। প্রধাননগরের পাশাপাশি শিলিগুড়ি শহরেও চলে ধরপাকড়। সুভাষপল্লি বাজার থেকে রবীন্দ্রনগর এলাকায় লকডাউন উপেক্ষা করে বাড়ির বাইরে থাকায় একাধীক লোককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শহরের প্রধান রাস্তার পর এবারে টহল পাড়ায়, পাড়ায়। অলি-গলিতে লকডাউন ঠিকমতো মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ ওঠায় সক্রিয় পুলিশ।

একে স্বাগত জানিয়েছে ঘর বন্দী জনতা। করোনার থাবা ক্রমেই বাড়ছে। প্রতিদিনই দেশে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। তবু এক শ্রেণীর মানুষ লকডাউন উপেক্ষা করে রুটিন করে বাড়ি থেকে বের হচ্ছেন। রাজ্য এবং কেন্দ্র বার বার লকডাউন মেনে চলার আর্জি জানাচ্ছে। তবু হুঁশ ফিরছে না তাদের। মুখ্যমন্ত্রীও কড়া হাতে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। তবু গৃহ বন্দী থাকতে অনীহা এক শ্রেণীর মানুষের। প্রতিদিনই কখোনা বাজারের অজুহাতে, কখোনো ওষুধ কেনার আছিলায় বাড়ি থেকে বের হচ্ছেন। পুলিশ একেবারে এক মাসের ওষুধ কিনে রাখার পরামর্শ দিলেও শুনছে কে! আর তাই লকডাউন ভাঙলেই গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। এবং তা জারি থাকবে বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে পুলিশ। প্রধান রাস্তা থেকে অলি গলি, বাজার থেকে রেশন দোজান সর্বত্রই সমান নজরদারি থাকবে পুলিশের। শিলিগুড়িতে পুলিশ কমিশনার থেকে ডিসিপি, এসিপিরাও রাস্তায় নেমেছেন।

Partha Sarkar

Published by: Debalina Datta
First published: April 21, 2020, 1:45 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर