করোনা ভাইরাস

corona virus btn
corona virus btn
Loading

প্রকোপ বাড়ছে করোনার মারণ সংক্রমণের, যোদ্ধাদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়াল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন

প্রকোপ বাড়ছে করোনার মারণ সংক্রমণের, যোদ্ধাদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়াল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন

করোনা যুদ্ধে সামনের সারিতে থেকে লড়ছেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা, তাদের জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল স্বেচ্ছ্বাসেরী সংগঠন

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: করোনা মোকাবিলায় যারা সামনের সারি থেকে লড়ছেন, সেই বীরদের পাশে দাঁড়ালেন শিলিগুড়ির একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। উত্তরবঙ্গে করোনা প্রতিরোধে পর্যাপ্ত স্বাস্থ্য সরঞ্জামের অভাব ছিল প্রথম দিকে। ধীরে ধীরে তা স্বাভাবিক হচ্ছে। শহরের একাধীক সংগঠন ইতিমধ্যেই পিপিই সহ মাস্ক তুলে দিয়েছে রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেবের হাতে। পরে মন্ত্রী তা তুলে দেন উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সুপারের হাতে।

রাজ্য সরকারও পিপিই সহ স্বাস্থ্য সরঞ্জাম পাঠিয়েছে। তবুও যেভাবে করোনার প্রকোপ বাড়ছে,  তাতে আরো স্বাস্থ্য সরঞ্জামের প্রয়োজন। এবারে এগিয়ে এসছে মণীষা নন্দী ফাউণ্ডেশন। এই মূহূর্তে ডাক্তারী সুরক্ষা সরঞ্জামের অত্যন্ত প্রয়োজন। আজ এই সংগঠনের সদস্যরা স্বাস্থ্য সরঞ্জাম তুলে দেন উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের হাতে। সার্জিক্যাল মাস্ক, সার্জিক্যাল গ্লাভস, সার্জিক্যাল ক্যাপস এবং হ্যাণ্ড স্যানিটাইজার তুলে দেওয়া হয় মেডিকেল কর্তৃপক্ষের হাতে।

মেডিকেলের পাশাপাশি এদিন তারা ডাক্তারী সুরক্ষা সরঞ্জাম তুলে দেন নকশালবাড়ি গ্রামীণ হাসপাতালের সুপারের হাতে। সেইসঙ্গে শিবমন্দিরে "আশা" স্বাস্থ্য কর্মীদের হাতেও তুলে দেওয়া হয় প্র‍য়োজনীয় স্বাস্থ্য সরঞ্জাম। করোনা মোকাবিলায় ইতিমধ্যেই একাধীক ব্যবস্থা নিয়েছে রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরও। কোভিড স্পেশাল হাসপাতাল থেকে কোভিড সাস্পেক্টেড হাসপাতাল তৈরী করা হয়েছে। পাশাপাশি একাধীক কোয়ারান্টাইন সেন্টার থেকে আইশোলেশন ওয়ার্ড তৈরী। তবে প্রয়োজন পিপিই কিট থেকে সার্জিক্যাল স্বাস্থ্য সরঞ্জামের।

আর তাই এগিয়ে এসছে একাধীক সংগঠন। কেউ মন্ত্রীর মাধ্যমে, কেউ আবার সরাসরি স্বাস্থ্য কেন্দ্রে গিয়ে কিটস পৌঁছে দিচ্ছে। এর আগেও মণীষা নন্দী ফাউণ্ডেশন ডাক্তারী সুরক্ষা সরঞ্জাম তুলে দেয়। মারণ করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধে জিততে গেলে এইভাবেই সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। শিলিগুড়িও সেই পথই দেখাচ্ছে প্রথম দিন থেকেই। সংগঠনের সদস্যদের দাবী, এই কঠিন সময়ে স্বাস্থ্য কর্মীরাই তো প্রকৃত যোদ্ধা, বীর। তাই ওদের পাশে দাঁড়াতেই এই উদ্যোগ। আগামীদিনেও সুযোগ পেলেই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া হবে।

Partha Sarkar

Published by: Debalina Datta
First published: April 28, 2020, 8:36 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर