corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা রুখতে বেনজির সিদ্ধান্ত, সীমান্তে পাচিল তুলে দিল ভারতের এই রাজ্য

করোনা রুখতে বেনজির সিদ্ধান্ত, সীমান্তে পাচিল তুলে দিল ভারতের এই রাজ্য
এভাবেই পাচিল তুলে আটকানো হয়েছে সীমান্ত৷ PHOTO- TWITTER

প্রসঙ্গত অন্ধ্রপ্রদেশ এবং তামিলনাড়ু, দুই রাজ্যেই করোনা সংক্রমণের প্রকোপ যথেষ্টই বেশি৷

  • Share this:
 

#ভেলোর: করোনা সংক্রমণ রুখতে সীমান্ত সিল করে দিয়েছে সব রাজ্যই৷ এক রাজ্য থেকে যাতে কেউ অন্য রাজ্যে ঢুকতে বা বেরোতে না পারেন, সেই কারণেই এই ব্যবস্থা৷ শুধুমাত্র জরুরি পরিষেবার জন্য সীমান্ত দিয়ে যান বাহন যাতায়াতের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে৷

কিন্তু এবার করোনার আতঙ্কে বেনজির কাণ্ড ঘটাল তামিলনাড়ু ভেলোর জেলা প্রশাসন৷ প্রতিবেশী রাজ্য অন্ধ্রপ্রদেশের সঙ্গে সীমান্তে দেওয়াল তুলে দিল তারা৷ জানা গিয়েছে অন্ধ্রের চিত্তুর জেলা এবং তামিলনাড়ুর ভেলোর জেলা পাশাপাশি৷ চিত্তুরের জেলা প্রশাসনকে কিছু না জানিয়েই দুই রাজ্যের সীমান্ত হাইওয়ের উপর পাচিল তুলে দেয় ভেলোরের জেলা প্রশাসন৷

চিত্তুরের জয়েন্ট কালেক্টর ডি মার্কেনদেয়ুলু জানিয়েছেন, পাচিল তোলার বিষয়টি উপরমহলকে জানানো হয়েছে৷ তিনি জানিয়েছেন, 'প্রতিবেশী রাজ্য তামিলনাড়ুর ভেলোর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি শহর৷ চিত্তুরের সঙ্গে ভেলোরের সীমান্ত রয়েছে৷ বহু তেলুগুভাষী মানুষ মানুষ সেখানে বসবাস করেন৷ লকডাউনের কারণে কোনও যানবাহন বা মানুষকে ওই সীমান্ত দিয়ে যাতায়াত করতে দেওয়া হচ্ছিল না৷ তাছাড়া ওখানে আন্তঃ সীমান্ত চেকপোস্ট রয়েছে৷ এই অবস্থায় দুই রাজ্যের মধ্যে এভাবে আচমকা পাচিল তুলে দেওয়া বিস্ময়কর, অস্বাভাবিক এবং অপ্রত্যাশিতও বটে৷'

চিত্তুর জেলা প্রশাসনের কর্তাদের আরও অভিযোগ, লকডাউন চললেও জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত যানবাহন চলছেই৷ পাশাপাশি, মানুষেরও জরুরি প্রয়োজনে এক রাজ্য থেকে অন্য রাজ্যে যেতে হতে পারে৷ বিশেষত ভেলোরের ক্যান্সার হাসপাতালে অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে বহু মানুষ যান৷ ভেলোরের একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও তেলুগুভাষী অনেক পড়ুয়া পড়তে যান৷ চিত্তুর জেলা প্রশাসনের অভিযোগ, ভেলোর জেলা প্রশাসনের কর্তারা তাঁদের সঙ্গে কোনও রকম আলোচনা না করেই দুই রাজ্যের সীমান্তে পাচিল তুলেছেন৷

ভেলোর জেলা প্রশাসনের অবশ্য পাল্টা দাবি, জরুরি প্রয়োজনে যাতায়াতের জন্য বিকল্প পথ রয়েছে৷ লকডাউনের মধ্যে নিয়ম ভেঙে যাতে কেউ যাতে ওই হাইওয়ে দিয়ে রাজ্যে প্রবেশ না করতে পারে, সেই জন্যই এই ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন ভেলোরের কালেক্টর এ শনমুগা সুন্দরম৷ তিনি আরও জানিয়েছেন, লকডাউন উঠলেই হাইওয়ের উপরে ওই পাচিল ভেঙে ফেলা হবে৷

প্রসঙ্গত অন্ধ্রপ্রদেশ এবং তামিলনাড়ু, দুই রাজ্যেই করোনা সংক্রমণের প্রকোপ যথেষ্টই৷ সোমবার পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে অন্ধ্রপ্রদেশে ৩১ জন মারা গিয়েছেন, আর তামিলনাড়ুতে মৃতের সংখ্যা ২৪৷

 
Published by: Debamoy Ghosh
First published: April 27, 2020, 4:58 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर