corona virus btn
corona virus btn
Loading

দুর্গাপুরে ভিড় এড়াতে ব্যবস্থা ! ফাঁকা মাঠে সরছে মাছ-সবজির বাজার

দুর্গাপুরে ভিড় এড়াতে ব্যবস্থা ! ফাঁকা মাঠে সরছে মাছ-সবজির বাজার

বারবার আবেদন করেও বাজার থেকে ভিড় সরাতে না পেরে অবশেষে ফাঁকা মাঠেই বাজার সরানোর পরিকল্পনা নিল দুর্গাপুরের প্রশাসন

  • Share this:

#দুর্গাপুর: বারবার আবেদন করেও বাজার থেকে ভিড় সরাতে না পেরে অবশেষে ফাঁকা মাঠেই বাজার সরানোর পরিকল্পনা নিল দুর্গাপুরের প্রশাসন। ইতিমধ্যে মাইকে প্রচার করে এলাকার বাসিন্দাদের তা জানিয়েও দেওয়া হয়েছে। নতুন জায়গায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা নিশ্চিত করে বেচাকেনা করতে হবে বলে জানিয়ে দিয়েছে প্রশাসন। পুলিশ ও প্রশাসনের এই উদ্যোগকে সমর্থন করছেন এলাকার সচেতন বাসিন্দারা।

বাজারে অযথা ভিড় না করতে বার বার মুখ্যমন্ত্রীর তরফে আবেদন করা হচ্ছে। বাজারে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার পরামর্শ দিচ্ছে প্রশাসন। তার পরও টনক নড়ছে না কিছু মানুষের। শুক্রবার দুর্গাপুরের বেনাচিতি বাজারে মাছ ও সবজি বাজারে থিকথিকে ভিড় দেখা গিয়েছে।পুলিশ ও বাজার কমিটি সতর্ক করলেও  কোনও কাজে আসেনি।  তাই এবার নিরুপায় হয়েই ফাঁকা মাঠে বাজার সরানোর সিদ্ধান্ত নিল প্রশাসন।

শনিবার থেকে সবজি বাজার বসবে এ জোনের দেশবন্ধু নগর ময়দানে। মাছ বাজার বসবে হর্ষবর্ধন রোড দিশারী ক্লাব ময়দানে। সেখানে দূরত্ব বজায় রেখে বসতে হবে বিক্রেতাদের। নির্দিষ্ট দূরত্বে দাঁড়িয়ে সবজি মাছ কিনবেন ক্রেতারা। প্রশাসনিক আধিকারিকরা বলছেন, ' এই সময়টায় খুবই সাবধান থাকা জরুরি। সবজি-মাছ বাজার লকডাউনের আওতার বাইরে আছে মানেই সেখানে রোজ যেতে হবে, এমনটা নয়। বরং প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে পা দিলে মারণ ভাইরাসের  সংক্রমণের সমূহ সম্ভাবনা। তাই খুব জরুরি প্রয়োজন ছাড়া রাস্তায় পা দেওয়া উচিত নয় - এটা বাসিন্দাদের বুঝতে হবে।' করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে সব রকম প্রচেষ্টা চালাচ্ছে প্রশাসন।  দুর্গাপুরের বড় পাইকারি বাজার সেন মার্কেটের ভিড় দেখে প্রমাদ গুনছিলেন বিশেষজ্ঞরা। তাঁদের পরামর্শে আজ শুক্রবার বন্ধ রাখা হয় সেন মার্কেট।

এরই পাশাপাশি দুর্গাপুরে কর্মরত নির্মাণ শ্রমিকদের জন্য বিশেষ বাসের ব্যবস্থা করে দক্ষিণবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থা। দুর্গাপুরের ট্রাঙ্ক রোড ডিপো থেকে বাসে করে মুর্শিদাবাদের জঙ্গীপুরে আটকে পড়া নির্মাণ শ্রমিকদের পৌঁছে দেওয়া হয়। দক্ষিণবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থা নির্মাণকর্মীদের জন্য বিনামূল্যে এই বাসের ব্যবস্থা করেছিল। জঙ্গীপুরে হাসপাতালে শারীরিক চিকিৎসার পরে সুস্থ থাকলে বাড়ি ফেরার অনুমতি পাবেন নির্মাণকর্মীরা।

Saradindu Ghosh

First published: March 27, 2020, 5:00 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर