করোনা রোগীকে এড়িয়ে যাওয়া নয়, তাঁদের বাড়িতে বিনামূল্যে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন গুজরাতের এই ব্যক্তি!

করোনা রোগীকে এড়িয়ে যাওয়া নয়, তাঁদের বাড়িতে বিনামূল্যে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন গুজরাতের এই ব্যক্তি!

ফের নিজের দাপট দেখিয়ে দেশের দৈনিক সংক্রমণকে লক্ষের উপরে পৌঁছে দিয়েছে ভাইরাস।

  • Share this:
#আহমেদাবাদ: গত বছর মার্চ মাসে দেশে ছড়িয়ে পড়ে করোনা। যার ফলে একাধিক সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় মানুষকে। দেশের অর্ধেক বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত মানুষকে হয় চাকরি হারাতে হয়েছে, নয় বেতন কম পেয়েছেন তাঁরা। একদিকে যখন এই পরিস্থিতি তখন অন্য দিকে হঠাৎ লকডাউনের ফলে ভিন রাজ্যে আটকে গিয়ে নাভিশ্বাস উঠেছে শ্রমিকদের। হেঁটে ফেরার সিদ্ধান্ত দেখিয়েছে একাধিক মৃত্যু। দেশের এমন টালমাটাল পরিস্থিতিতে অনেকেই অনেকের পাশে থেকেছেন। অনেকেই এগিয়ে এসেছেন গরিবদের সাহায্য করতে। যাদের প্রয়োজন তার পাশে থাকতে দেখা গিয়েছে সাধারণ মানুষকে। কোথাও খাবার গিয়ে সাহায্য করেছেন তো কোথাও কোভিড আক্রান্তদের পাশে থেকে। করোনা পরিস্থিতি শিথিল হয়েছে প্রায় ৮-৯ মাস আগে। লকডাউনের বাধ্যবাধকতাও নেই। কিন্তু গত সপ্তাহের শুরু থেকে ফের হু হু করে বাড়তে শুরু করেছে করোনা সংক্রমণ। অনেকেই মনে করেছিলেন করোনা হয় তো নিয়ন্ত্রণে। কিন্তু ফের নিজের দাপট দেখিয়ে দেশের দৈনিক সংক্রমণকে লক্ষের উপরে পৌঁছে দিয়েছে ভাইরাস। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আজ থেকে কার্ফু জারি মহারাষ্ট্রে। আংশিক লকডাউন হতে পারে দেশের অন্যান্য রাজ্যেও। আবারও করোনায় আক্রান্ত রোগীদের নিয়ে মানুষের চিন্তা বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে মানুষকে সাহায্য করতে, করোনায় আক্রান্তদের সাহায্য করতে নিজের উদ্যোগেই এগিয়ে এলেন ভদোদারার এক ব্যক্তি। করোনায় আক্রান্ত রোগীদের কোয়ারান্টিন বা আইসোলেশনে থাকাকালীন বিনামূল্যে খাবার সরবরাহ করার কথা ঘোষণা করলেন তিনি। https://twitter.com/ShubhalShah/status/1381457623208235008?s=20 শুভল শাহ নামে ওই ব্যক্তি সম্প্রতি নিজের Twitter প্রোফাইলে বিষয়টি ঘোষণা করেন। লেখেন, করোনা পরিস্থিতিতে আমরা আপনাদের পাশে আছি। আপনার পরিবার বা পরিবারের কেউ যদি কোভিড ১৯-এ আক্রান্ত হন, তা হলে আমরা আপনার দরজায় খাবার পৌঁছে দেব। কোনও প্রচার, ছবি তোলা বা এই ধরনের জিনিসের সঙ্গে যুক্ত নই। প্রয়োজন হলে ডিরেক্ট মেসেজ করুন। শাহ-র এই উদ্যোগ নজরে আসে অনেকের। জানা যায়, প্রচুর মেসেজ তিনি পেয়েছেন। অনেকেই সাহায্য চেয়েছেন। অনেককে এই ব্যক্তি সাহায্য করেছেনও। তবে, শুধু সাহায্য চাওয়া নয়, সাহায্য করার জন্যও অনেকে এগিয়ে এসেছেন। বেশ কয়েকটি NGO তাঁর সঙ্গে এই উদ্যোগে কাজ করার ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন। https://twitter.com/ShubhalShah/status/1381457623208235008 https://twitter.com/SyedMBasha5/status/1381502291463696384 https://twitter.com/paragp/status/1381508077925507074 https://twitter.com/vibha1604/status/1381547599405051906 https://twitter.com/mohdazamk91/status/1381640732990005249 গত বছর লকডাউনে এমন অনেক জায়গায় দেখা গিয়েছে ফুড ATM বা রাইস ATM। যেখানে সামান্য টাকার বিনিময়ে খাবার পাওয়া গিয়েছে। হায়দরাবাদেই এক ইঞ্জিনিয়র এই ধরনের রাইস ATM চালু করেছিলেন, যেখানে খাবার-সহ খাদ্য সামগ্রী গরিবদের দেওয়া হয়েছে। তামিলনাড়ুর ত্রিচিতেও পুষ্পারানি সি ও তাঁর স্বামী চন্দ্রশেখর, এই ভাবে মানুষকে সাহায্য করেছেন। খাবার দিয়ে মানুষের পাশে থেকেছেন। এই কাজের জন্য তাঁরা ৫০ হাজার টাকা ব্যাঙ্ক লোন নেন এবং মাত্র ১ টাকার বিনিময়ে সকলের মুখে অন্ন তুলে দেন।
Published by:Pooja Basu
First published: