corona virus btn
corona virus btn
Loading

ঝাঁপ বন্ধ দোকানের, ওষুধের জন্য হন্যে হয়ে ঘুরছেন মানুষজন

ঝাঁপ বন্ধ দোকানের, ওষুধের জন্য হন্যে হয়ে ঘুরছেন মানুষজন
ওষুধ সঙ্কট

লকডাউনে ওষুধের সংকট ক্রমশ জটিল আকার নিয়েছে

  • Share this:

#বর্ধমান:  একে প্রয়োজনীয় ওষুধ মিলছে না, তার ওপর বন্ধ বেশিরভাগ দোকান। ফলে লকডাউনে ওষুধের সংকট ক্রমশ জটিল আকার নিয়েছে। বৃহস্পতিবার বর্ধমানে অনেক ওষুধের দোকানই বন্ধ ছিল, ওষুধ পেতে নাকাল হন বাসিন্দারা। অনেকে বাধ্য হয়ে প্রেসক্রিবশন নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে ওষুধ না পেয়ে খালি হাতে বাড়ি ফিরেছেন। গ্রাম বা মফস্বল এলাকাগুলির অবস্থা আরও খারাপ। অনেক প্রয়োজনীয় ওষুধই মিলছে না দোকানগুলিতে। বাড়িতে সংকটাপন্ন রোগী অথচ জীবনদায়ী ওষুধ না পেয়ে হন্যে হয়ে ঘুরছেন অনেকেই।

যান চলাচল না হওয়ায় অনেকেই বর্ধমানে পাইকারি ওষুধের বাজারে আসতে পারছেন না। রাস্তায় পুলিশের ধর পাকড়ের ভয়ও পাচ্ছেন অনেকে। ওষুধের অভাবে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে বর্ধমানের বাজারের ওপর নির্ভরশীল অনেক দোকান। লকডাউন ঘোষণা হতেই সেইসব দোকান থেকে প্যারাসিটামল, ভিটামিন বি কমপ্লেক্স , সাধারণ জ্বর-সর্দি, পেটের সমস্যা, মাথা ব্যথা কমানোর ওষুধ উধাও হয়ে গিয়েছে। যদি প্রয়োজন পড়ে ?  এই ভাবনা থেকে অনেকেই এসব ওষুধ আগেভাগে বাড়িতে মজুত করেছেন। এখন ব্লাড সুগার, ব্লাড প্রেসার সহ অনেক ওষুধই অমিল। বিক্রেতারা বলছেন, বর্ধমানে হোলসেল মার্কেটে যাওয়ার উপায় নেই। বাস, ট্রেন-সহ যাবতীয় যান চলাচল বন্ধ। মোটর সাইকেলে যাওয়ার লোক নেই। বিভিন্ন জায়গায় পুলিশের জেরার মুখে পড়ার ভয়ে যেতে চাইছেন না অনেকে।

কেউ কেউ উপায় না দেখে মোটর সাইকেলে বর্ধমানে যাচ্ছেন। সেখানেও আবার বন্ধ বেশিরভাগ দোকান। ফলে প্রয়োজনীয় ওষুধের জন্য শহরের এক প্রান্ত থেকে আর এক প্রান্তে চক্কর কাটছেন তাঁরা। বিক্রেতারা বলছেন, বৃহস্পতিবার এমনিতেই অনেক দোকান বন্ধ থাকে। তার ওপর করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় অনেক কর্মী আসতে চাইছেন না। পথে বেরিয়েও পুলিশের জেরার মুখে পড়ে অনেকে ফিরে যাচ্ছেন। লকডাউনের জেরে বিক্রিবাটাও কম। সেসবের জন্যই অনেকে ঝাঁপ বন্ধ করে দিয়েছেন। সব মিলিয়ে কী শহর বর্ধমান, কী শহরের বাইরের জেলার বিস্তীর্ন এলাকা... সব জায়গাতেই ওষুধের সংকট তীব্র আকার নিতে চলেছে।

 Saradindu Ghosh

First published: March 26, 2020, 4:12 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर