ইরানে করোনা, আটকে দুই বাঙালি ইঞ্জিনিয়ার ! ভিডিও কলে দেশে ফেরার আর্জি

ইরানে করোনা, আটকে দুই বাঙালি ইঞ্জিনিয়ার ! ভিডিও কলে দেশে ফেরার আর্জি

ইরানে করোনার দাপটে একের পর এক মৃত্যু। সমস্ত বিমান পরিষেবা বাতিল। তার মধ্যেই পারান্দে একটি আবাসনে বন্দিদশা কাটাচ্ছেন দুই বাঙালি ইঞ্জিনিয়ার।

  • Share this:

#তেহরান: দেশে ফিরতে চান। ভিডিও কলে আর্জি রাসবিহারীর বাসিন্দা সায়ন্তন বন্দ্যোপাধ্যায় ও দুর্গাপুরের বিকাশ দাসের। ইরানের তেহরানের আবাসনে আরও ১১ ভারতীয়র সঙ্গে আটকে দুই বাঙালি ইঞ্জিনিয়ার। করোনার দাপটে ইরান থেকে বিমান পরিষেবা বন্ধ।

ইরানে করোনার দাপটে একের পর এক মৃত্যু। সমস্ত বিমান পরিষেবা বাতিল। তার মধ্যেই পারান্দে একটি আবাসনে বন্দিদশা কাটাচ্ছেন দুই বাঙালি ইঞ্জিনিয়ার। রাসবিহারীর সায়ন্তন বন্দ্যোপাধ্যায় ও দুর্গাপুরের বিকাশ দাসকে নিয়ে চিন্তায় ঘুম উড়েছে পরিবারের।

দুবাইয়ের একটি সংস্থার হয়ে তেহরানে কাজ করেন সায়ন্তন। তাঁর রাসবিহারীর বাড়িতে গিয়েছিল নিউজ18 বাংলা। হোয়াটস্যাপে ভিডিও কলে দেশে ফেরার আর্জি জানিয়েছেন সায়ন্তন। তেহরান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সামনে পারান্দ শহরে আছি। এখানে ২৫ জন আছি। তার মধ্যে ১১ জন ভারতীয়। ১২ জন পাকিস্তানি, নেপালি ও শ্রীলঙ্কানও আছে। করোনা নিয়ে ভয় পাচ্ছি। বাইরে বেরোচ্ছি না। ভারতীয় দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি।

এই মাসেই বাড়িতে আসার কথা ছিল সায়ন্তনের। সায়ন্তনের সঙ্গে ওই আবাসনেই আটকে দুর্গাপুরের ভিরিঙ্গি অরবিন্দপল্লির বাসিন্দা বিকাশ দাস। তিনিও দুবাইয়ের ওই সংস্থার হয়ে তেহরানে কাজ করেন। প্রতিদিনই বাড়ির সঙ্গে কথা হচ্ছে। ভিডিও কলে দেশে ফেরার আর্জি বিকাশেরও। তিনি বলেন, ‘‘আমি দুর্গাপুরে থাকি। এখন ইরানে আছি। বাড়ির সঙ্গে কথা হচ্ছে। সব ফ্লাইট বন্ধ। কবে ফিরব, বুঝছি না।’’ কয়েকদিনের মধ্যেই দুর্গাপুরে ফেরার কথা ছিল বিকাশেরও। সায়ন্তনের পরিবার ‘দিদিকে বলো’তে ফোন করেছে। সাংসদ ও কাউন্সিলর মালা রায়ের সঙ্গেও যোগাযোগ করেছেন। মহকুমাশাসকের মাধ্যমে সরকারের কাছে বিকাশের দ্রুত দেশে ফেরার আরজি জানিয়েছে পরিবার।
First published: March 3, 2020, 3:40 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर