করোনা নিয়ে মিথ্যে প্রচার! ডোনাল্ড ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট সাময়িক ভাবে নিষিদ্ধ করল ট্যুইটার

করোনা নিয়ে মিথ্যে প্রচার! ডোনাল্ড ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট সাময়িক ভাবে নিষিদ্ধ করল ট্যুইটার
ডোনাল্ড ট্রাম্পের উপর খড়্গহস্ত ট্যুইটার।

গত কয়েক মাসে বেশ কয়েকবার ডোনাল্ড ট্রাম্পের উপর খড়্গহস্ত হতে দেখা গিয়েছে ফেসবুক,ট্যুইটারকে।

  • Share this:

    #ওয়াশিংটন: করোনা বিষয়ক একটি ভুয়ো ভিডিও প্রচারের জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট ব্যবহারে সাময়িক নিষেধাজ্ঞা জারি করল ট্যুইটার।

    কী রয়েছে ভিডিওটিতে? জানা যাচ্ছে, ওই ভিডিওটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমক ফক্স নিউজকে দেওয়া মার্কিন প্রেসিডেন্টের একটি সাক্ষাৎকার। যেখানে ট্রাম্প দাবি করেছিলেন, মার্কিন শিশুরা করোনার বিরুদ্ধে ইমিউন সিস্টেম বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তুলেছে। এই বার্তাটিকে কোভিড-১৯ বিষয়ক ভুয়ো তথ্য বলে চিহ্নিত করেছে ট্যুইটার। একটি বিবৃতিতে সংস্থার মুখপাত্র জানিয়েছেন, এই অ্যাকাউন্টের মালিককে নিজের করা এই ভুল ট্যুইটটি অ্যাকাউন্ট থেকে সরাতে হবে, তার পরেই এই অ্যাকাউন্ট তিনি পুনরায় ব্যবহার করতে পারবেন।

    আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সিএনএন-কে ট্যুইটার জানিয়েছে, ভিডিওটি ডিলিট করা হয়েছে। ফলে ট্রাম্পের এই অ্যাকাউন্টও পুনরায় সক্রিয় হয়েছে।


    প্রসঙ্গত এই একই ভিডিও ডোনাল্ড ট্রাম্পের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকেও সরিয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। কারণ ওই একই ভুয়ো তথ্য।

    ট্রাম্পের প্রচার পারিষদ কোর্টনি প্যারেল্লার অবশ্য দাবি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বক্তব্য অপপ্রচার হয়েছে। তিনি বলতে চেয়েছিলেন, শিশুদের করোনা তুলনামূলক ভাবে কম ধরা পড়ছে। একই সঙ্গে সিলিকন ভ্যালিকে একহাত নিয়েছেন। তাঁর কথায় সোশ্যাল মিডিয়া সংস্থাগুলি আদৌ সত্যের ধারক বাহক নন।

    গত কয়েক মাসে বেশ কয়েকবার ডোনাল্ড ট্রাম্পের উপর খড়্গহস্ত হতে দেখা গিয়েছে ফেসবুক ট্যুইটারকে। ভোটপ্রচার, প্রতিবাদ, করোনার ভুয়ো তথ্য এই তিন বিষয়ে ট্রাম্পের পোস্ট থেকেই শুরু হয়েছে বিতর্ক। উল্লেখ্য গত সপ্তাহে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ছেলের করা একটি ট্যুইটে দাবি করা হয় করোনা মোকাবিলার জন্য মাস্ক দরকার নেই। এই অ্যাকাউন্টটিও সাময়িক ভাবে নিষিদ্ধ করে ট্যুইটার।

    ট্যুইটারের বক্তব্য কোনও সহিংস ব্যবহার, কোনও ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে হিংসা ছড়ানো যাবে না এই অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে। কিন্তু এই বিধি ভেঙেই বারবার বিপদে পড়ছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

    Published by:Arka Deb
    First published: