corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউনে উত্তর প্রদেশের কানপুরে আটকে এ রাজ্যের ১৩ জন পড়ুয়া-সহ ১৫ জন

লকডাউনে উত্তর প্রদেশের কানপুরে আটকে এ রাজ্যের ১৩ জন পড়ুয়া-সহ ১৫ জন

পড়ুয়াদের ফিরিয়ে আনার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে কাতর আবেদন জানিয়েছেন ছাত্র-ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকরা ৷

  • Share this:

#কানপুর: পরীক্ষা দিতে গিয়ে উত্তর, দক্ষিণ দিনাজপুর এবং মালদহ জেলার মিলিয়ে ১৩ জন পড়ুয়া-সহ মোট ১৫ জন উত্তর প্রদেশের কানপুরে আটকে আছেন। ছাত্র শিক্ষকদের ফিরিয়ে আনার জন্য সরকারিভাবে কোনও উদ্যোগ না নেওয়ায় চরম আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন এখানকার পড়ুয়ারা। দীর্ঘ দু’মাস ধরে সেখানে আটকে থাকায় পড়ুয়াদের পরিবারের লোকেরাও এখন চরম আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন। পড়ুয়াদের ফিরিয়ে আনার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে কাতর আবেদন জানিয়েছেন ছাত্র-ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকরা ৷

উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ ব্লকের কুনোরের বাসিন্দা জীবন কুমার মালাকারের অধীনে ১৩ জন ছাত্রছাত্রীকে  উত্তর প্রদেশের গঙ্গাসিং মহাবিদ্যালয়ে এমএ-তে ভর্তি করেছিলেন।গত ২ মার্চ এম এ বার্ষিক পরীক্ষা শুরু হয়। এক অবিভাবক এবং ১৩ জনকে পড়ুয়াকে নিয়ে জীবনবাবু উত্তরপ্রদেশে গিয়েছিল। তাদের মধ্যে উত্তর দিনাজপুর জেলার ৭ জন,দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ৫ জন এবং মালদহ জেলার ৩ জন ছিলেন।

পরীক্ষা চলাকালীন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সারা বিশ্ব। ভারতবর্ষেও চলছে লকডাউন। লকডাউনের কারনে বার্ষিক দুটি পরীক্ষা পিছিয়ে দেয় মহাবিদ্যালয় কর্ত্তৃপক্ষ। লকডাউনের ফলে দেশের সমস্ত ধরনের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরীক্ষা দিতে গিয়ে আর ফিরতে পারেননি এই ১৩ পড়ুয়া সহ ১৫ জন। লকডাউনের সময় আগামিকাল থেকে তারা উত্তরপ্রদেশের কানপুরে গঙ্গাসিং মহাবিদ্যালয়েই ছিলেন।মহাবিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আর তাদের সেখানে রাখতে চাইছে না।

মহাবিদ্যালয়ের আংশিক সময়ের শিক্ষক জীবন কুমার মালাকার জানিয়েছেন, তাদের মহাবিদ্যালয়ের পাশেই উত্তরপ্রদেশ সরকার কোয়ারেন্টাইন সেন্টার করার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় ছাত্রছাত্রীদের আতঙ্ক আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। ছাত্রছাত্রীদের থাকা খাওয়ার জন্য যে অর্থ নিয়ে গেছে তাও ফুরিয়ে যাওয়ায় এখন তাদের পেট ভরে খেতেও পারছেন না। এই অবস্থায় তাদের এখনই পশ্চিমবঙ্গে ফিরিয়ে না আনলে তাদের না খেয়েই মরতে হবে। দীর্ঘ দু’মাস পড়ুয়ারা বাইরে আটকে থাকায় তাদের অভিভাবকরাও চরম আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। অবিলম্বে তাদের বাড়িতে ফিরিয়ে আনার জন্য মুখমন্ত্রীর কাছে অভিভাকরা কাতর আবেদন করেছেন।

Uttam Paul

First published: May 3, 2020, 6:41 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर