ফেক ভিডিও দেখে শেষ পর্যন্ত মা ও ছেলের মূত্র পান! করোনা থেকে বাঁচতে যা হল হাল...

সম্প্রতি এক রিপোর্টে বিষয়টি প্রকাশ্যে এনেছে হেল্থওয়াচ সেন্ট্রাল লন্ডন। রিপোর্টে বলা হয়েছে WhatsApp-এ ছড়ানো ভুয়ো বার্তার পাল্লায় পড়ে এই অদ্ভুত কাণ্ড করে বসেছেন ওই মহিলা।

সম্প্রতি এক রিপোর্টে বিষয়টি প্রকাশ্যে এনেছে হেল্থওয়াচ সেন্ট্রাল লন্ডন। রিপোর্টে বলা হয়েছে WhatsApp-এ ছড়ানো ভুয়ো বার্তার পাল্লায় পড়ে এই অদ্ভুত কাণ্ড করে বসেছেন ওই মহিলা।

  • Share this:

#লন্ডন: যথাযথ নিয়ম মেনে নিজের মূত্র পান করলে না কি করোনা সেরে যায়! লন্ডনবাসী এই মহিলার WhatsApp-এ এমনই মেসেজ এসেছিল। বন্ধুদের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারেন, তাঁদের ফোনেও একই টেক্সট এসেছে। ইন্টারনেটে ব্যাপক ভাইরাল হওয়া ভিডিওটি নিজের চোখেও দেখেছিলেন তিনি। তাই বিশ্বাস করতে খুব একটা অসুবিধা হয়নি। করোনা থেকে বাঁচতে টানা চার দিন ধরে নিজের মূত্র পান করেছেন তিনি। সন্তানকে বাঁচাতে একই কাজ করিয়েছেন তাকে দিয়েও। ইতিমধ্যেই গোটা বিশ্বে সাড়া ফেলে দিয়েছে এই অদ্ভুত ঘটনা।

সম্প্রতি এক রিপোর্টে বিষয়টি প্রকাশ্যে এনেছে হেল্থওয়াচ সেন্ট্রাল লন্ডন। রিপোর্টে বলা হয়েছে WhatsApp-এ ছড়ানো ভুয়ো বার্তার পাল্লায় পড়ে এই অদ্ভুত কাণ্ড করে বসেছেন ওই মহিলা। ঘটনা থেকে অন্যদের শিক্ষা নেওয়া উচিৎ। আসলে এক বন্ধুর কাছ থেকে মেসেজ পেয়েছিলেন তিনি। পরে একাধিক জায়গা থেকে একই খবর পান। এই সংক্রান্ত নানা ভিডিও দেখেন। তাই তাঁর ভরসা বেড়ে যায়। আর এই বিশ্বাস থেকেই এমন উদ্ভট ও অস্বাস্থ্যকর কাণ্ড করে বসেছেন তিনি।

আরও পড়ুন বিখ্যাত প্রসাধনী সংস্থার অ্যাকাউন্টে ভুল করে ১ বিলিয়ন টাকা পাঠিয়েছিল Citibank, ফেরত পাবেনা, বলছে আদালত

তবে মহিলার ধ্যানধারণাতেও সমস্যা ছিল। WCHL-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মহিলা জানিয়েছেন, করোনার জেরে অত্যন্ত আতঙ্কিত ছিলেন। তাই নিজেকে ও সন্তানকে বাঁচাতে মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন। তাছাড়া করোনার ভ্যাকসিনে তেমন একটা ভরসা ছিল না তাঁর। ভ্যাকসিনের থেকে প্রথাগত কোনও ঘরোয়া চিকিৎসায় অধিক বিশ্বাসী ছিলেন তিনি। তাই নিজে এবং তাঁর সন্তান চার দিন ধরে নিয়ম করে নিজেদের মূত্র পান করেছেন। ভেবেছিলেন এতেই শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হবে। আর করোনা থেকে বেঁচে যাবেন। যদিও পরের দিকে বুঝতে পারেন, এই ধরনের উপায় আদতে কোনও কাজে লাগে না। তিনি ভুল পথে এগোচ্ছিলেন।

প্রসঙ্গত, বছরখানেকের মধ্যে করোনাকে কেন্দ্র করে সমাজের নানা স্তরে একাধিক গুজব ছড়িয়েছে। রাজনৈতিক প্রতিনিধিরাও নানা সময়ে নানা ধরনের গুজব ছড়িয়েছেন। তালিকায় ছিলেন আমেরিকার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও (Donald Trump)। কর্নেল ইউনিভার্সিটির এক সমীক্ষাতেও এ নিয়ে বিশদে আলোচনা করা হয়েছে। একসময় হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন (Hydroxychloroquine) নিয়েও ব্যাপক জল্পনা ছড়িয়েছিল। কোথাও সারা শরীরে কাদা মাখা, কোথাও গোমূত্র পান, নানা ধরনের টোটকা ব্যবহারের খবর প্রকাশ্যে আসে। এবার লন্ডনেও এমনই এক দৃশ্য চোখে পড়ল। বিশেষজ্ঞদের কথায়, মারণ ভাইরাস থেকে বাঁচতে সচেতনতা জরুরি। তবে সেই সচেতনতা যেন কোনও ভুল পথে চালিত না করে, সে দিকে সব সময়ে খেয়াল রাখতে হবে!

Published by:Pooja Basu
First published: